কলকাতা 

হিন্দু হষ্টেলে অবিলম্বে থাকার ব্যবস্থা করে দিতে হবে এই দাবিতে বিক্ষোভ প্রেসিডেন্সীর ছাত্রছাত্রীদের, যাদবপুর-মেডিকেলের পর প্রেসিডেন্সীতেও কী জয়ী হবে ছাত্র আন্দোলন ?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : প্রেসিডেন্সী বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরানো হিন্দু হষ্টেলে ছাত্রদের থাকার ব্যবস্থা করতে হবে এই দাবিতে বিগত চারদিন ধরে আন্দোলন করছে ছাত্রছাত্রীরা।কিন্তু শতাব্দী প্রাচীন হিন্দু হোস্টেলটি এখন যে অবস্থায় রয়েছে তাতে সেটা কোনো ভাবেই ফিরিয়ে দেওয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়ে দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অনুরাধা লোহিয়া।তিনি বলেন, “হোস্টেলের মেরামতির কাজের দায়িত্বে রয়েছে পূর্ত দফতর। তাদের বিষয়টি ইতিমধ্যেই জানানো হয়েছে। এখনও কাজ শেষ হয়নি। এর মধ্যে পড়ুয়াদের থাকার ব্যবস্থা করা যাবে না।” হোস্টেল পুরোপুরি তৈরি হতে এখনও আরও চার-পাঁচ মাস সময় লেগে যেতে পারে বলে পূর্ত দফতর জানিয়েছে।

সোমবার বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আন্দোলন তুলে নেওয়ার জন্য আন্দোলনকারীদের অনুরোধ করেন। তবে  তাঁদের দাবি থেকে সরে আসতে রাজি হননি।উল্লেখ্য, হষ্টেলের মেরামতির জন্য ২০১৫ সালে খালি করা হয়েছিল শতাব্দী প্রাচীন এই হোস্টেল। তিন বছর হয়ে গেলেও এখন সংস্কার শেষ হয়নি ঐতিহ্যবাহী হিন্দু হস্টেলের। গত ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। সেই সময় সীমার মধ্যে কাজ না শেষ হওয়ায় ছাত্ররা এখন বিছানাপত্র নিয়ে প্রেসিডেন্সী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসেই থাকতে শুরু করেছে । তাদের দাবি হিন্দু হষ্টেল খুলে দেওয়া না পর্যন্ত তারা বিশ্ববিদ্যালয়েই অবস্থান করবে। আজ উপাচার্য অনুরাধা লোহিয়া জানিয়ে দিয়েছেন, হিন্দু হষ্টেল সংস্কার চলছে, সেই কাজ শেষ হতে আরও বেশ কয়েক মাস লাগবে । সুতরাং আন্দোলনকারী ছাত্রদের দাবি এখনই মানা সম্ভব হবে না।

উল্লেখ্য অবিলম্বে হিন্দু হষ্টেলে থাকার ব্যবস্থা করতে হবে না হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসেই আন্দোলনকারীরা থাকবে এই দাবিতে গত শুক্রবার বেলা ৩টে থেকে প্রেসিডেন্সি কলেজের প্রশাসনিক ভবনে ডিন অব স্টুডেন্ট-সহ অন্য আধিকারিকদের ঘেরাও করেন পড়ুয়ারা। অবস্থান চলছে উপাচার্য ও রেজিস্ট্রারের অফিসের সামনেও।

যাদবপুরের পর মেডিকেল কলেজ,এরপর প্রেসিডেন্সী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আন্দোলন কোন দিকে মোড় নেয় সেদিকেই তাকিয়ে রয়েছেন শিক্ষাবিদরা । ইতিমধ্যে যাদবপুর ও মেডিকেলে শেষ পর্যন্ত ছাত্র আন্দোলনই জয়যুক্ত হয়েছে। এবার সেই পথ ধরেই প্রেসিডেন্সীতে ছাত্র আন্দোলনই জয়লাভ করবে কিনা সেটাই এখন দেখার ।

 

 

 

 

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment