কলকাতা 

চন্দনের পর আরেক চন্দ্রের বেসুরো মন্তব্য ছাগলও মাতা তার মাংস খাওয়া উচিত নয়, পাল্টা মন্তব্য ত্রিপুরার রাজ্যপাল তথাগতের গরুই মাতা ,ছাগল নয়

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : আমাদের দেশে নরেন্দ্র মোদীর কল্যানে এখন গরুর জীবনের দাম মানুষের চেয়ে বেশি। কারণ গো-মাতাকে রক্ষা করার জন্য এক শ্রেনির মানুষ যে উন্মত্ত আচরন করছে তা মেনে নেওয়া যায় না। কিন্ত এই ধরনের আচরনকে যখন ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল নৈতিক সমর্থন করে তখনই সংকট ঘনীভূত হয়। সম্প্রতি গোরুর মাংস খাওয়াকে কেন্দ্র করে বেশ কয়েকটি জায়গায় মানুষের উপর হামলা হয়েছে । এই প্রেক্ষাপটকেই সামনে রেখেই নেতাজি সুভাষচন্দ্রের এক ভাইপো যিনি বিজেপির প্রার্থী হিসেবে ভোটে দাঁড়িয়েছিলেন সেই চন্দ্র বসু মন্তব্য করেছেন ছাগলের দুধ তো মানুষ খান , গান্ধীজি খেতেন তাই ছাগলও মাতা। সুতরাং ছাগলের মাংসা খাওয়া বন্ধ করতে হবে। শনিবার রাতে চন্দ্র বসু একটি টুইটে এইভাবে লিখেছিলেন,”গান্ধিজি প্রায়ই কলকাতায় আমার ঠাকুরদা শরৎচন্দ্র বোসের এক নম্বর উডবার্ন পার্কের বাড়িতে থাকতেন। তিনি ছাগলের দুধ খেতে পছন্দ করতেন। সেকারণে আমাদের বাড়িতে দু’টি ছাগল রাখা হয়েছিল। দুধ খাওয়ার জন্য ছাগলকে মায়ের আসনে বসিয়েছিলেন হিন্দুদের রক্ষাকর্তা গান্ধিজি। তাই হিন্দুদের উচিত ছাগলের মাংস না খাওয়া।” এই ধরনের যুক্তি নির্ভর টুইটের পরেই রে রে করে আসরে নামেন ত্রিপুরার রাজ্যপাল তথাগত রায় । পাল্টা বিজেপি নেতা চন্দ্র বসুকে আক্রমণ করে তথাগত লেখেন,”গান্ধিজি বা আপনার ঠাকুরদা কেউ কখনও বলেননি ছাগল মাতা। গান্ধিজি বা অন্য কেউ কখনও নিজেকে হিন্দুদের রক্ষাকর্তা হিসেবে দাবি করেননি। আমরা হিন্দুরা গরুকে আমাদের মা বলে মনে করি, ছাগলকে নয়। অনুগ্রহ করে এই ধরনের মত ছড়াবেন না।”
যদিও এরপরেও নেতাজির ভাইপো নিজের বক্তব্যে অনড় থাকেন। পরে তিনি এক সংবাদ সংস্থাকে বলেন, রাজনীতির সঙ্গে ধর্মকে এক করা উচিত নয়।

 

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment