কলকাতা 

সংগঠনে সংখ্যালঘুদের গুরুত্ব না দিয়ে মুসলিম ভোটের প্রত্যাশায় ত্বহার কাছে আবদুল মান্নান -অধীর

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : সংখ্যালঘু ভোট পেতে হলে সংখ্যালঘু সমাজের ভাল ভাল ছেলেমেয়েদেরকে সামনের সারিতে আনতে হবে । এটাই স্বাভাবিক নিয়ম । মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সংখ্যালঘু ভোট নিতে পারে এভাবেই । গ্রামীণ স্তর থেকে শুরু করে যেখানে যেমন সেখানে তেমনভাবে সংখ্যালঘুদের গুরুত্ব দেয় তৃণমূল । অন্যদিকে কংগ্রেস দল একচেটিয়া সংখ্যালঘু বা বাঙালি মুসলিমদের ভোট পেয়ে থাকে । বিনিময়ে সংখ্যালঘু সমাজের মানুষদের  গুরুত্ব দেওয়া হয় না রাজ্য কংগ্রেসে ।

এবারের রাজ্যসভার নির্বাচনের দিকে তাকালেই স্পষ্ট হযে যাবে । অভিষেক মনু সিংভির পর প্রদীপ ভট্টাচার্য রাজ্যসভার সদস্য হওয়ার  পর এবার কোনো মুসলিম নেতাকে রাজ্যসভায় কেন পাঠানো হল না ? কংগ্রেস তো মুসলিম ভোট পেয়ে জয়ী হয় । তারপর কেন এবারের রাজ্যসভার আসনটা বামেদের ছেড়ে দেওয়া হল ? এর উত্তর একটাই কোনো মুসলিমকে রাজ্যসভায় পাঠাতে রাজি ছিল না প্রদেশ কংগ্রেস সেজন্য তারা গোপনে এই আসনটি বামেদের ছেড়ে দিল । অথচ কয়েক মাস আগেই লোকসভা নির্বাচনের সময় বামেদের সঙ্গে জোটে না গিয়ে এই রাজ্যে বিজেপির জয়কে সুগম করেছিল কংগ্রেস নেতারা । ওই সময় যদি জোট হতো তাহলে বিজেপি কম করে ১০টি আসন কম পেত । কিন্ত তা না করে বিজেপিকে এই রাজ্যে শক্তি হিসাবে তুলে ধরা হল জোট না করে ।

এরপর একটু লক্ষ্য করলেই দেখা যাবে , বিজেপির নেতারা সকালে যা বলেন বিকেলে একই কথা বলেন কংগ্রেস নেতারা । কোনোভাবে বিজেপির বিরুদ্ধে কথা বলতে চান না কংগ্রেস নেতারা । অন্যদিকে মুসলিম ভোটের উপর জয়ী হয়েও মুসলিমদের সামান্য জায়গা ছাড়তে রাজি নন কংগ্রেস নেতারা। মুর্শিদাবাদের মত মুসলিম অধ্যুষিত জেলায় কংগ্রেসের নেতা অধীর আর মনোজ । এছাড়া কেউ নেই । আর এই অবস্থায় ত্বহা সিদ্দিকীর কাছে ভোট চাইতে গেলে কী মুসলিমরা ভোট দেবে ? না বিজেপিকে মেরুকরণের সুবিধা করে দিতেই অধীর চৌধুরিরা ফুলফুরায় গেলেন ? একটা ধর্মনিরপেক্ষ দল কেন শুধু ফুলফুরা ? মুসলিম ভোটের জন্য । মুসলিমরা কংগ্রেসকে ভোট দেবে কেন ? কংগ্রেস কী দিয়েছে তাদের ? এই আত্মসমালোচনা কী করেছেন অধীর চৌধুরিরা ? আবদুল মান্নান কী মুসলিম নেতা ? তিনি মুসলিমদের শিক্ষা-চাকরির দাবিতে সরব হয়েছেন কী ?

মুসলিম সমাজকে ভোটের স্বার্থে ব্যবহার করে এসেছে কংগ্রেস । আর নয় , এবার তারা ত্বহা সিদ্দিকীর কাছে যান আর যার কাছেই যান কেন মুসলিম ভোট সেই অর্থে কংগ্রেস আর পাবে না । অন্যদিকে ধর্মনিরপেক্ষ দল কংগ্রেস নেতাদের উচিত ছিল রামকৃষ্ণ মিশন , ভারত সেবা সংঘ সহ সব ধর্মের গুরুদের কাছে যাওয়া। তা না করে মুসলিম ভোট পাওয়ার প্রত্যাশায় যেভাবে অধীর-মান্নানরা ছুটে বেড়াচ্ছেন তাতে আর যাইহোক কংগ্রেসের কোনো সুবিধা হবে না , সুবিধা হবে বিজেপির । কংগ্রেস মুসলিম ভোটও পাবে না । বিধানসভা নির্বাচনের পর কংগ্রেসকে দূরবীণ দিয়ে এই রাজ্যে খুঁজে বেড়াতে হবে ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment