কলকাতা 

মুকুল রায়ের সম্পত্তির বিস্তারিত তথ্য চেয়ে নোটিস পাঠাল ইডি

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : বিধানসভা নির্বাচনের প্রাককালে মুকুল রায়কে ইডি নোটিস ধরাল । মূলত সম্পত্তির হিসাব চেয়ে মুকুল রায়কে এই নোটিস ধরানো হয়েছে । কারণ মুকুল রায় এর আগে যে হিসাব ইডির কাছে দিয়েছিল তা অসম্পূর্ণ বলে জানিয়ে দিয়েছে সংস্থা । সেখানে নাকি একটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট দেওয়া হয়েছে । আনন্দবাজার পত্রিকার খবর অনুযায়ী  নোটিস-সহ চিঠিটি ৯ নভেম্বর লেখা হলেও ছুটি থাকায় সেটি পাঠানো হয়েছে খুব সম্প্রতি। তাতে বলা হয়েছে, ৩ জুলাই ই-মেল করে যে-সব নথিপত্র চাওয়া হয়েছিল, ৩১ জুলাই ই-মেল করে তিনি তার অনেকটা জানিয়ে দেন। কিন্তু কিছু নথি বাকি আছে। মাত্র একটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের নথি দিয়েছেন তিনি। এ বার তাঁর এবং তাঁর স্ত্রীর সব ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের তথ্য চাই। চাই ২০১৭-১৮ এবং ২০১৯-২০ সালের আয়কর রিটার্নও। ২০১৩-১৪ অর্থবর্ষ থেকে অদ্যাবধি তিনি যত সম্পত্তি কিনেছেন, তারও হিসেব দিতে হবে চিঠি পাওয়ার সাত দিনের মধ্যে। “এমন কোনও চিঠির কথা আমি জানি না। অফিসে গিয়ে দেখতে হবে কিছু এসেছে কি না। কিছু জানতে চাইলে জানিয়ে দেওয়া হবে,” সোমবার বলেন মুকুলবাবু।

২০১৭-র ৩ নভেম্বর মুকুলবাবু তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি-তে যোগ দেন। রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন ওঠে, সারদা-নারদ মামলা থেকে বাঁচতেই তিনি বিজেপির শরণ নিয়েছেন। সম্প্রতি তাঁকে বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি করা হয়েছে। তদন্তকারীদের একাংশের বক্তব্য, ইতিমধ্যেই মুকুলবাবুর বিরুদ্ধে যে-সব তথ্যপ্রমাণ পাওয়া গিয়েছে, তাতে সারদা মামলা থেকে তাঁর ছাড় পাওয়া মুশকিল। তবে রাজনৈতিক শিবিরের একাংশ মনে করে, বিজেপি-র ছত্রচ্ছায়ায় থাকলে ছাড় পেয়ে যেতে পারেন তিনি।

রাজ্যে আসন্ন বিধানসভা ভোটের কাজে লাগানোর লক্ষ্যে বিজেপি তাঁকে গুরুত্ব দিয়েই রাখতে চাইবে। রাজনৈতিক শিবিরের অন্য অংশের মতে, নির্বাচনের মুখে সারদা মামলায় মুকুলবাবু যদি গ্রেফতার হয়ে যান, তা হলে আখেরে সুবিধা বিজেপিরই। মুকুলবাবু জেলে গেলে তারা প্রচার করবে, সততা, নৈতিকতা, দুর্নীতির ক্ষেত্রে বিজেপি যে আপস করে না, মুকুল-কাণ্ডই তার প্রমাণ। সৌজন্যে আনন্দবাজার ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment