অন্যান্য 

কালা-ইংরেজের # বিচার অথবা ব্যক্তিগত স্বাধীনতার নয়া সংজ্ঞা / অধ্যাপক ইমানুল হক

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

অধ্যাপক ইমানুল হক : এখানে থাকলে আমি হাসতে ভুলে যাব, এভাবেই ভেবেছিল রবীন্দ্রনাথের বিদূষক চরিত্র। আর রাশিয়ান চলচ্চিত্র পরিচালক সের্গেই আইজেন্সটাইন বলেছিলেন, সামাজিক ক্রোধের ভারি ট্যাংক যেখানে অচল, হাসির হালকা বন্দুক সেখানে আমাদের অস্ত্র। হাসির জন্ম হয় অসঙ্গতি আর অতিরেক থেকে। কিন্তু যখন হাসি বারণ হয়ে ছবি বা কার্টুন আঁকা কিংবা নকল করা বিপজ্জনক হয়ে দাঁড়ায়, হাসি মানে হয় সমালোচনা –কী করবেন আপনি? নিকোনার পাররার কবিতা পড়বেন শঙ্খ ঘোষের নিপুণ অনুবাদে। নাকি চার্লি চ্যাপলিনের ছবি দেখবেন–লুকিয়ে? তার আগে জেনে নিতে হবে চার্লি চ্যাপলিন কেউ দাঁড়াতে হয়েছে, আমেরিকায়, অ-আমেরিকিয় কার্যকলাপের অপরাধে আধুনিক ইনকুইজিশনের সামনে। ভারতে এখন একটাই পরিবার। সঙ্ঘ পরিবার। তাঁদের নির্ধারিত মাপকাঠি পেরোলেই ইনকুজিশন। যে ইনকুইজিশন পরিচালনা করছে, আদালত এবং প্রচার মাধ্যম। তাতেও কাজ না হলে আছে ঘাতকের পিস্তল। গৌরী লঙ্কেশ, কালবুর্গি, সাবরেওয়াল, গোবিন্দ পানেসর তার সাক্ষী। গত ছয় বছরে ৫৬ জন সাংবাদিক নিহত ভারতে। কাশ্মীর তো বটেই উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, আসাম, ত্রিপুরায় চলছে সাংবাদিক হত্যা। আসামের সাংবাদিক পরাগ ভুঁইয়া বিজেপি নেতাদের দুর্নীতি নিয়ে প্রশ্ন করেছিলেন। খুন হয়েছেন। জুন জুলাই আগস্টে তিনজন সাংবাদিক খুন দেশের সেরা মুখ্যমন্ত্রী যোগীর রাজ্যে। ছয় লাখ প্রদীপ জ্বলেছে দেওয়ালিতে কিন্তু তাতে কি ঢাকা যাবে মহাত্মা গান্ধী রোজগার যোজনায় চরম দুর্নীতি নিয়ে লেখা সাংবাদিক বিনয় তেওয়ারিকে প্রকাশ্যে গণপিটুনি দেওয়ার কলঙ্ক। যারা ভাবেন, হিন্দু/ ব্রাহ্মণ হলেই রেহাই, তাঁরা জানেন কি না জানি না, জুন থেকে নিহত তিন সাংবাদিক ব্রাহ্মণ/ সবর্ণ।
#
ভারতের ইতিহাসে ১৯৭৫ এর জরুরি অবস্থাও লজ্জা পাবে, বর্তমান সময়ের খতিয়ান লিখতে। পোষা তোতাপাখি সি বি আই, আয়কর, ইডি, সেনাবাহিনী, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক, নির্বাচন কমিশন এমনকী লোকে যে বলবে, আদালতে দেখা হবে–তার উপায় নেই, উচ্চ ন্যায়ালয়ের একটা অংশ এখন নির্বাচিত বিচারে বিশ্বাসী। কারো কারো বেলায় তড়িঘড়ি রাতারাতি বিচার। হলফনামায় ভুল পর্যন্ত সংশোধন করতে বলা হচ্ছে না। কারো বেলায় বছরের পর বছর নীরবতা। শুনানির সময় নেই। অর্ণব গোস্বামীর মামলার কথাই ধরা যাক। অর্ণব গোস্বামীর বিরুদ্ধে যতবার জামিনের আবেদন হয়েছে, তড়িঘড়ি শুনানি করে জামিন দিয়েছে আদালত। এবার মামলা ফৌজদারি। বাক-স্বাধীনতার প্রশ্নে নয়। টিভিতে চেঁচিয়ে মেচিয়ে কুৎসা বা মিথ্যা প্রচারের জন্য নয়, ভুয়ো টি আর পি মামলাও নয়। অন্বয় নামে এক আন্তরিক সজ্জা বা ভিতরের নকশার ঠিকাদার তিন জন ব্যক্তির কাছে পাঁচ কোটির বেশি টাকা পেতো। এর মধ্যে একজন অর্ণব। ৮৩ লাখ টাকা মেরে দেয় বলে অভিযোগ। পাওনাদারদের তাগাদায় অন্বয় নাইক আত্মহত্যা করেন অর্ণব ফিরোজ সহ তিনজনের নামে আত্মঘাতী নোট লিখে। আত্মহত্যার প্ররোচনায় মামলা করে পরিবার। সঙ্ঘ পরিবারের বিশ্বস্ত মেগাফোন এবং সাংবাদিকের ছদ্মবেশ ধরা প্রচারক অর্ণব গোস্বামীর বিরুধে বিজেপি সরকারের পুলিশ মামলা চালায় না তৎকালীন মুখমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশের কথায়। বর্তমান শিবসেনা সরকারের আমলে মামলাটি পুলিশ চালু করার সিদ্ধান্ত নেয়। পুলিশ অর্ণবসহ বাকি দুজন অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে। অর্ণব পুলিশকে বাড়ীতে এক ঘণ্টা ঢুকতে দেন না। বহু জায়গায় ফোন করেন। বিফল হওয়ার পরও পুলিশকে গ্রেপ্তারে বাধা দেন। পুলিশ ভ্যান থেকে চিৎকার করেন। পুলিশ মেরেছে বলে অভিযোগ করেন। শিরদাঁড়ায় প্রচন্ড আঘাত পেয়েছেন বলে আদালতে জানান। অথচ সুপ্রিম কোর্টে জামিন মেলার পর-ই কোন আঘাতের চিহ্ন নেই। নেতার মতো হুড খোলা জিপে পরিক্রমা করেন শ্লোগান দিতে দিতে।
আইন অনুযায়ী নিম্ন আদালতে জামিন না পেলে তবে উচ্চ আদালতে যাওয়ার কথা। নিম্ন আদালতে জামিনের শুনানি বাকি। মুম্বাই হাইকোর্ট জামিনের আবেদন নাকচ করেছে। অতএব সুপ্রিম কোর্টে গেল। এবং ১২ ঘণ্টার মধ্যে শুনানি হলো। তার চেয়েও বিস্ময়কর বিচারপতি চন্দ্রচূড়ের বক্তব্য: আমরা যদি এই মামলায় হস্তক্ষেপ না করি ধ্বংসের পথে যাবে।
কী ধ্বংসের পথে যাবে ? না ব্যক্তিগত স্বাধীনতা। পার্সোনাল লিবার্টি। ফৌজদারি/ আত্মহত্যায় প্ররোচনার মামলায় ব্যক্তিগত স্বাধীনতার কথা এলো কী করে? এটা তো সাংবাদিকতার বিষয় নিয়ে মামলা নয়। আর কেরলের এক বিশিষ্ট সাংবাদিক সিদ্দিক কাপ্পান হাথরাস যাচ্ছিলেন দলিত এক তরুণীকে ধর্ষণ ও খুনের মামলায় খবর করার জন্য। দুই সাংবাদিকসহ। তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে দেশদ্রোহিতার অভিযোগে। এমনকী ভাড়া গাড়ির চালককেও। তাদের ব্যক্তিগত স্বাধীনতা নেই? তাদের জামিন জোটেনি। জেলে পচছেন। সুধা ভরদ্বাজ। লেখিকা অধ্যাপিকা সমাজকর্মী আদানি কর্তৃক আদিবাসীদের জমি লুঠের বিরোধিতা করেছিলেন। মোদিকে খুনের চক্রান্তের মিথ্যা বানানো অভিযোগে দু বছরের বেশি জেলে। বৃদ্ধা। অসুস্থা। স্বাস্থ্যের কারণে জামিনের আবেদন করলে বলা হয়েছে, সাধারনভাবে জামিনের আবেদন করতে। কবি ভারভারা রাও মারাত্মক অসুস্থ। একই অভিযোগে ২০১৮ থেকে জেলে। তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য চিকিৎসা পর্ষদ বা মেডিকেল বোর্ড গড়তে বলা হয়েছে। তাঁর ব্যক্তিগত স্বাধীনতার দরকার নেই। ১৯ বছরের ছাত্রী কর্ণাটকের অমূল্যা শ্লোগান দিয়েছিলেন, এই অপরাধে জেলে। তাঁর ব্যক্তিগত স্বাধীনতার দরকার নেই। বর্তমানে কেন্দ্রীয় সরকারের সমীক্ষা অনুযায়ী দেশের সেরা বিশ্ববিদ্যালয় জামিয়া মিলিয়ার ২০০ জন ছাত্র ছাত্রী ক্যা এন আর সি এন পি আর বিরোধী আন্দোলন করার জন্য এপ্রিল থেকে জেলে। জামিন জোটেনি। দেশের নামকরা লেখক লেখিকা সমাজকর্মী কতদিন জেলে আছেন দেখা যাক–
সুধা ভরদ্বাজ ৮১০ দিন
গৌতম নো নওলাখা ৮১০ দিন
আনন্দ তেম্বতুলে ৮১০ দিন
হুইল চেয়ার সঙ্গী আধ্যাপক সত্যবাবা ৮১০
উমর খালিদ ৬১ দিন
দেবাঙ্গনা কলিতা নাতাশা নারোয়াল ১৭৪ দিন
শারজিল ইমাম ২৮৯ দিন
মণিপুরের সাংবাদিক কিশোর ওয়াংখেম ৩৩ দিন
অতি বৃদ্ধ অসুস্থ স্ট্যান স্বামীর জামিনও নেই। শুধু স্বাধীনতা আছে বিজেপি প্রচারকের। বিচার ব্যবস্থা কি তামাশা? প্রশ্ন তুলেছেন রাহুল গান্ধী। দেশের প্রবীন আইনজীবী চিদাম্বরমকেও জামিন দেয়নি সুপ্রিম কোর্ট। কাশ্মীরে ৬য় হাজারের বেশি গ্রেপ্তার । জামিন নেই। এক বছর চার মাস হতে চলল সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেছেন কাশ্মীর টাইমসের সম্পাদক অনুরাধা ভাসিন। শুনানির সময় নেই। উলটে কাগজের দপ্তরে তালা মেরে দিয়েছে মোদী শাহের সরকার। কাশ্মীরের বহু সাংবাদিক জেলে। তাঁদের ব্যক্তিগত স্বাধীনতার দরকার নেই? শুধু বিজেপির পোষা ভৃত্যদের স্বাধীনতা আছে যা খুশি বলার করার, টাকা মেরে দেওয়ার।
এখন পড়েছে কমেডিয়ান কুণাল কামরাকে নিয়ে। অর্ণবের প্রহসনমূলক জামিনের পর সুপ্রিম কোর্টের রঙ গেরুয়া করে ছবি দেন কুণাল। তাই নাকি মানহানি হয়েছে। বলেছেন, সুপ্রিম কোর্ট এখন বিজেপির বর্ধিত পার্টি অফিস।
তাতে মানহানি মামলার অনুমতি দিয়েছেন বিজেপি সরকারের অ্যাডভোকেট জেনারেল কে কে বেণুগোপাল। কুণাল কামরা সাহসী পদক্ষেও নিয়েছেন। বলেছেন, প্রশান্ত ভূষণের মামলায় সুপ্রিম কোর্ট ২০ ঘন্টা সময় নষ্ট করেছে। আমার মামলায় আমি কোন উকিল দেবো না। বহু জরুরি মামলা পড়ে আছে সুপ্রিম কোর্টে সেগুলো শুনুক আদালত। তাঁর কথা, আইনজীবী নয়, ক্ষমাপ্রার্থনা নয়, জরিমানা নয়, সময় নষ্ট নয়।
প্রহসনমূলক এই বিচার ব্যবস্থার প্রহসনের সামনে কুণাল কামরা এক বিস্ময় ও দীপাবলির আলো।
আর তার সামনে টিমটিম করে জ্বলছে তথ্য অধিকার কর্মী সাকেত গোখলের প্রশ্ন?
ক) কতগুলো জামিনের আবেদন পড়ে আছে সুপ্রিম কোর্টে?
খ) গড়ে কতদিন লাগে জামিনের মামলার শুনানির তালিকা হতে।
মান্যবর সঙ্ঘী প্রচারক অর্ণবের ক্ষেত্রে সব মিলিয়ে সময় লেগেছে ১২ ঘণ্টা।
সংখ্যাটি তাৎপর্যপূর্ণ।
আমাদের তিনটি প্রশ্নও থাক।
১। বাবরি মসজিদ মামলায় ১৯৯০ এ বলা হয়েছিল স্থিতাবস্থা বজায় রাখা হবে। ১৯৯২ এর ৬ ডিসেম্বর ভেঙ্গে দেওয়া আদালত অবমাননা নয়। হলে, আজ পর্যন্ত তার শুনানি হয়নি কেন?
২। অশোক সিঙ্ঘল এবং আদবানি বলেছিলেন, আদালত এ-বিষয়ে বলার কে? মানহানি হয়নি।
৩। দেশের বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেছিলেন, কেরলের শবরীমালা মন্দিরে ঋতুমতী মহিলাদের প্রবেশের অধিকারের যে রায় সুপ্রিম কোর্ট দিয়েছে–তা মানবেন না।
অমান্য করেই মিছিল করেন।
মানহানি হয়নি।
শেষ কথা, যে উদ্দেশ্যে ইস্ট ইণ্ডিয়া কোম্পানি সুপ্রিম কোর্ট স্থাপন করেছিল, অন্যায় আদেশকে ন্যায়ের বিধান হিসেবে ঘোষণার, নন্দকুমারে ফাঁসি ও ভারতের প্রথম আধুনিক সংবাদপত্রের জনককে গ্রেপ্তার দিয়ে তার শুরু।
ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের বিশ্বস্ত দালাল সঙ্ঘ পরিবার তথা কোম্পানি সেই পুরাতন অবস্থানেই নিয়ে যাচ্ছে দেশের বিচার,নির্বাচন কমিশন, শিক্ষা, প্রশাসন, সেনাবাহিনী, আয়কর, ইডি সহ সব সরকারি দপ্তরকে। সঙ্ঘ কোম্পানির সেবা করা ছাড়া কাজ নেই। কালা ইংরেজের রাজত্ব। কালা ইংরেজের বিচার। শাসন শোষণ–সব।
জয়প্রকাশের ধাঁচে সর্বাত্মক বিপ্লব ছাড়া পরিত্রাণ নেই।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment