কলকাতা 

মেডিকেলের অনশনরত পড়ুয়াদের পাশে সুশীল সমাজ, সমস্যার সমাধানে কেন্দ্রের স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

অনশনরত পড়ুয়াদের দাবি বিবেচনা করতে আজ বৈঠকে বসছেন মেডিকেল কর্তৃপক্ষ,

পড়ুয়াদের দাবির সমর্থনে মহামিছিলের ডাক সুশীল সমাজের

নিজস্ব প্রতিনিধি :মেডিকেল কলেজে পড়ুয়াদের একটানা ১৩ দিন অনশন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও বিজেপি নেতা মুকুল রায় । তিনি পড়ুয়াদের অনশন ও তাদের দাবিকে সমর্থন জানিয়ে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জে পি নাড্ডাকে চিঠি দিয়েছেন। একইসঙ্গে মেডিকেলের পড়ুয়াদের দাবিকে দ্রূত বাস্তবায়নের জন্য মেডিকেল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়ার সভাপতি জয়শ্রী মেহতারও দৃষ্টি আর্কষনের করে বিজেপি নেতা মুকুল রায় চিঠি দিয়েছেন। এই চিঠিতে তিনি লিখেছেন, “অনশনরত পড়ুয়াদের দাবি মানবিকভাবেই পূরণ করা যেত। সেটা না করে পুলিশ এবং কয়েকজন দুষ্কৃতীদের দিয়ে দু’জন ছাত্রকে মারধর করেছে। তাঁরা বর্তমানে চিকিৎসাধীন।” মুকুল রায় রবিবার দুপুরে কলকাতা মেডিকেল কলেজে যান । তবে পড়ুয়ারা মুকুল রায়কে দেখে বলেন, আমরা নিজেদের মত অনশন করছি ,কোন রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ চাইছি না। তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নে উত্তরে বলেন,অনশনের বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী কেয়ারলেস, তাঁর কোনও সহানুভূতি নেই। মুকুল বাবু আরও বলেন“১৩ দিন হয়ে গেছে মেডিকেল কলেজের ছাত্ররা অনশন করছে। ওরা আমাদেরই মতো কারোর বাড়ির ছেলে। এ বিষয়ে সুপার বা অন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ যা আচরণ করছে তা অমানবিক। ওদের দাবিতে অন্যায়টা কী আছে? অত্যন্ত সাধারণ দাবি। ছোটোরা যদি না খেয়ে থাকে, আমরা বড়রা কী করি? আমার বাড়ির ছেলেমেয়ে যদি না খেয়ে থাকে তাহলে তাকে বলি, বাবা তুই কেন এমন করছিস। তোর কী চাই? ছাত্ররা বসে অনশন করছে আর পুলিশ এসে মারধর করছে। এটা ১৯৬৮, ৬৯, ৭০ সালে হত। এসব যেন সেইসব দিন মনে করাচ্ছে। এই জায়গায় দাঁড়িয়ে আমি ছাত্রদের নিজেদের শরীরের অবস্থা বিবেচনা করতে বলব।”

গতকাল বিকেলে রাজ্যের স্বাস্থ্য-শিক্ষা অধিকর্তা দেবাশিস ভট্টাচার্য এক প্রেস বিবৃতিতে বলেন,“আমি কথা দিচ্ছি ছাত্রদের হস্টেলের ঘরের অবস্থার উন্নতি ও সংস্কারের জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। হাসপাতালে জনগণকে পরিষেবা দেওয়া হয়। তার গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ ছাত্রছাত্রীরা। তাদের দেখতে হবে যাতে স্বাস্থ্য পরিষেবায় কোনও ব্যাঘাত না হয়। ছাত্ররা অনশন প্রত্যাহার করে পড়াশোনায় ফিরুক।” আর শিক্ষা স্বাস্থ্য অধিকর্তার এই বিবৃতিতেই অনশনরত পড়ুয়াদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। পড়ুয়াদের অভিযোগ ,স্বাস্থ্য-শিক্ষা অধির্কতার বিবৃতিতে কোথাও সমস্যার সমাধানের কথা বলা নেই শুধু নয়, সমস্যার সমাধানের সুস্পষ্ট আশ্বাসও নেই।

এদিকে মেডিকেলের সিনিয়র ছাত্ররা অনশন শুরু করেছিলেন নতুন হষ্টোলের দাবিতে । প্রথমে ৫ জন পড়ুয়া অনশন শুরু করলেও এখন তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০ জন। রাজ্যের সুশীল সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা অনশনরত পড়ুয়াদের পাশে দাঁড়িয়েছে । সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, মিরাতুন নাহারের মত অরাজনৈতিক ব্যক্তিরা এই অনশন মঞ্চে এসেছেন এবং তাঁরা যে পড়ুয়াদের দাবিকেই সমর্থন করছেন তা জানিয়ে দিয়েছেন। আবার রবিবার অনশনরত পড়ুয়াদের সঙ্গে দেখা করতে আসেন বিশিষ্ট গায়ক কবীর সুমন। তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অনুরোধ করেছেন অনশনরত পড়ুয়াদের সমস্যার সমাধানে উদ্যোগ নিতে। অন্যদিকে অনশনরত পড়ুয়াদের পক্ষে রবিবার এক নাগরিক কনভেনশনের আয়োজন করা হয়। এই কনভেনশনে নাট্য পরিচালক কৌশিক সেন, পল্লব কীর্তানীয়া, কবি মান্দাক্রান্ত সেন সহ বহু বিশিষ্ট ব্যক্তি যোগ দেন। এখানে দাবি জানানো হয় অবিলম্বে পড়ুয়াদের দাবি মেনে নিয়ে সরকারকে সমস্যার সমাধান করতে হবে। এই কনভেনশনে বহু লোক সমাগম হয়েছিল,সভার পর একটি মিছিলও বের করা হয়।

জানা গেছে অনশনরত পড়ুয়াদের দাবি পূরণের লক্ষ্যে আজ মেডিকেল কলেজের কাউন্সিলের সদস্যরা বৈঠকে বসছেন। মঙ্গলবার ছাত্রদের সমর্থনে মহা মিছিলের ডাক সুশীল সমাজের।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment