দেশ 

দেশ থেকে ভয় আতঙ্ক দূর করতে কংগ্রেসকেই দায়িত্ব নিতেই হবে, বিজেপিকে হারাতে মহাজোটের পক্ষে সওয়াল সোনিয়া-রাহুলের

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিনিধি : জেগে উঠুন এবং লড়াই করতে এগিয়ে আসুন । দেশের পীড়িত ও পিছিয়ে পড়া মানুষকে সামনের সারিতে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে এবং তাদের অধিকারকে সুরক্ষিত করতে ভারতের জাতীয় কংগ্রেসকেই অগ্রণী ভূমিকা নিতে হবে। আজ কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির মিটিং-এ বক্তব্য রাখতে গিয়ে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী এই ভাষায় কংগ্রেসের নবগঠিত ওয়ার্কিং কমিটির সদস্যদের অনুরোধ করেন। ওয়ার্কিং কমিটির সদস্যরা দেশের কণ্ঠস্বর বলে উল্লেখ্য করে তিনি বলেন, আমাদের দায়িত্ব হল দেশ থেকে সন্ত্রাস ও ভয়ের পরিবেশ দূর করা। তাই আগামী লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি এবং আরএসএসকে ক্ষমতা থেকে সরানো। এর জন্য প্রয়োজন হলে সম-মনোভাব সম্পন্ন দলগুলির সঙ্গে জোট করতে হবে। উল্লেখ্য, রাহুল গান্ধী কংগ্রেস সভাপতি হওয়ার পর এই প্রথম তিনি নব গঠিত কংগ্রেস কার্যনিবার্হি কমিটির সভায় বক্তব্য রাখলেন। গত সপ্তাহে রাহুল গান্ধী নবীন-প্রবীনের মেলবন্ধন করে এবারের ওয়ার্কিং কমিটি গঠন করেছেন। আজ সেই কমিটির বৈঠক বসে।

এদিনের বৈঠকে কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধী বলেন, নরেন্দ্র মোদীর অতিরিক্ত ভাষণবাজী প্রমান করছে তাঁর মধ্যে হতাশা কাজ করছে। তিনি আরও বলেন, ভারতের গনতান্ত্রিক ব্যবস্থার সঙ্গে আপোষকারী এক ভয়ানক শাসন থেকে দেশকে মুক্ত করতে হবে। আর এটা করতে পারে একমাত্র কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন জোটই।২০১৯-র লোকসভা নির্বাচনে যে জোট হতে চলেছে সেই ইঙ্গিত দিয়ে সোনিয়া গান্ধী বলেন, জোট হবে । আর সভাপতি সেই জোটের কারিগর হবেন। এদিন জোট নিয়ে কংগ্রেস একটি কমিটিও গঠন করেছে বলে জানা গেছে।

এদিনের বৈঠকে  আগামী নির্বাচনের কৌশল নিয়ে আলোচনা করেন প্রবীন কংগ্রেস নেতা পি.চিদম্বরম। তিনি বলেন, দেশের ২৯ রাজ্যের মধ্যে ১২টি বড় রাজ্যে কংগ্রেস সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী। আগামী নির্বাচনে এই ১২ টি রাজ্যে কংগ্রেস কম করে ১৫০টি আসন পাবে । আর অন্য রাজ্যগুলিতে আঞ্চলিক দলগুলির সঙ্গে জোট বাঁধতে পারলে ৩০০ আসন পাওয়া কঠিন হবে না। এদিনের বৈঠকে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং তীব্র ভাষায় নরেন্দ্র মোদীর সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, এই প্রধানমন্ত্রী মিথ্যে কথা বলছেন, আমদের এই মিথ্যের বিরুদ্ধে সরব হতে হবে । তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন,২০২২ সালে কৃষকের আয় দ্বিগুন হবে। কিন্ত এটা বাস্তবায়ন করতে হলে এখনই কৃষকের আয় বৃদ্ধি হওয়া উচিত ১৪ %। তা হয়নি। কংগ্রেস কার্যনিবার্হি কমিটির আজকের বৈঠকে স্পষ্ট হয়েছে আগামী নির্বাচনে বিজেপির বিরুদ্ধে কংগ্রেসের নেতৃত্বে মহাজোট হতে চলেছে।

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment