দেশ 

স্বীকৃত সংখ্যালঘু শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের ক্ষমতা কার হাতে থাকবে রাজ্যের আইনজীবীকে প্রশ্ন বিচারপতিদের

শেয়ার করুন
  • 28
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিবেদক : আজ সুপ্রিম কোর্টের ডিভিসন বেঞ্চে মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন মামলার শুনানীতে রাজ্য সরকারের আইনজীবী অংশ নেন । রাজ্য সরকারের আইনজীবী দু ঘন্টা ধরে সংখ্যালঘু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মাদ্রাসাগুলিতে শিক্ষক নিয়োগের অধিকার কেন কমিশনের হাতে থাকবে তা নিয়ে সওয়াল করেন। ডিভিসন বেঞ্চে দুই বিচারপতি উমেশ উদয় লোলিত এবং অরুণ মিশ্র রাজ্য সরকারের আইনজীবীকে প্রশ্ন করেন, সংখ্যালঘুদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চালানোর যে অধিকার সংবিধানে আছে সেই অধিকারকে সুরক্ষিত রেখে কীভাবে নিয়োগ করার ক্ষমতা সরকার কিংবা কমিশনের হাতে রাখবে ? এই বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট অতীতে কোন রায় দিয়েছে কিনা তাও জানতে চায় বেঞ্চ । কিন্ত রাজ্য সরকারের আইনজীবী সংখ্যালঘু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ ক্ষমতা আর্থিক সাহায্য দেওয়ার কারণে রাজ্য সরকার কিংবা রাজ্য সরকারের গঠিত কমিশনের হাতে দেওয়ার কথা বলেছে এমন কোন রায়ের কথা বলতে পারেননি। সুপ্রিম কোর্টও  এমন কোন রায় দিয়েছে কিনা সেই কপিও এদিন আদালতে দেখাতে পারেননি রাজ্যের আইনজীবী । তবে কয়েকটি সুপ্রিম কোর্টের রায় তুলে ধরে রাজ্যের আইনজীবী বলার চেষ্টা করেন সরকারের হস্তক্ষেপ করার অধিকার আছে । সেগুলো সবই সরকারের প্রতি নির্দেশ যেখানে সংখ্যালঘুদের সাংবিধানিক অধিকারকে খর্ব না করে এইসব প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের জন্য নির্ধারিত মাপকাঠি তৈরি করে দিতে সুপ্রিম কোর্ট বলেছে ।

আগামী ১৯ জুলাই পরবর্তী শুনানী হবে এই বেঞ্চে এদিন ফোরামের আইনজীবী বলবেন,তারপর পরিচালন সমিতির আইনজীবী বক্তব্য পেশ করবেন। এরপরই মামলার চূড়ান্ত রায় ঘোষিত হবে। পরিচালন সমিতির আইনজীবী আবু সোহেল বাংলার জনরবকে বলেন, আজকের শুনানীতে রাজ্য সরকারের আইনজীবী একটাও সুপ্রিম কোর্টের রায় দেখাতে পারেননি যেখানে বলা হয়েছে স্বীকৃত সংখ্যালঘু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের ক্ষমতা রয়েছে সরকারের কিংবা সরকার গঠিত কোন কমিশনের ।


শেয়ার করুন
  • 28
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment