জীবিকার খোঁজখবর 

উচ্চ-মাধ্যমিকে প্রথম গ্রন্থণের শিক্ষক সফল হওয়ার চাবি কাঠি কী ? ব্যাখ্যা করলেন

শেয়ার করুন
  • 380
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেখ জাহিরউদ্দিন, দক্ষিণ ২৪ পরগণার পূজালীর এক পাটকল শ্রমিকের সন্তান । নিজের মেধা ও অধ্যাবসায়ের জোরে প্রাইমারী শিক্ষক থেকে রেলের স্টেশন ম্যানেজার পদে চাকরি করেছেন । এরপরও একাধিক কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের চাকরী পেলেও তিনি শেষ পর্যন্ত পাবলিক সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষায়( এ গ্রেড চাকরী ) পাশ করে সরকার বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে জলপাইগুড়ি জেলা স্কুলে কর্মরত আছেন । এই সরকারি স্কুলটি বেশ কয়েক বার মাধ্যমিক ও উচ্চ-মাধ্যমিকের মেধা তালিকায় ঠাঁই পেয়েছে। এবারে উচ্চ-মাধ্যমিকে এই সরকারী বিদ্যালয়ের ছাত্র রোহণ সেনগুপ্ত  কলা বিভাগ থেকে এ বছর মেধা তালিকায় প্রথম স্থান দখল করে সবা্ইকে চমকে দিয়েছে। আর রোহণের এই সাফল্যের নেপথ্যে শেখ জাহিরউদ্দিনের উৎসাহ প্রেরণা অনেকটাই কাজ করেছে । এই প্রেক্ষাপটেই সফল হতে গেলে শিক্ষার্থীদের কেমনভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে এবং সাফল্যের নেপথ্যের রহস্য কী  তা নিয়ে তিনি খোলামেলা আলোচনা করেছেন আর এক শিক্ষক তাজ্জামুল হোসেনের সঙ্গে । বাংলার জনরবের পাঠকদের জন্য এবং শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনে তা তুলে ধরা হল।

 প্রশ্ন : আপনার ছাত্র উচ্চমাধ‍্যমিকে ১ম হয়েছে,এ বিষয়ে আপনার প্রতিক্রিয়া?

জাহিরউদ্দিন :  নিজের ছাত্র উচ্চমাধ্যমিকে প্রথম হওয়া অত্যন্ত তৃপ্তিদায়ক। এই অনুভূতি হৃদয়ে আজীবন অমলিন হয়ে থাকবে। 2017-2018 শিক্ষাবর্ষ আমার শিক্ষক জীবনের এক সোনালী পর্ব। প্রথমে অন্বেষা দাস নামে এক ছাত্রী 2017 মাধ্যমিকে দশম হয়, 2018 মাধ্যমিকে নীলাব্জ ও মৃন্ময় যুগ্ম ভাবে মাধ্যমিকে তৃতীয় হয়, 2018 উচ্চমাধ্যমিকে গ্রন্থন সেনগুপ্ত প্রথম হয়, এই বছরই আরেক ছাত্র নাসিম আখতার (যাকে প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার প্রশিক্ষণ দিয়েছিলাম সে ) যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি পেয়েছে , আরেক ছাত্র (যাকে ইতিহাস বিষয়ে স্কুল সার্ভিস পরীক্ষার জন্য প্রশিক্ষণ দিয়েছিলাম) দেবাশীষ স্কুল সার্ভিস কমিশন আয়োজিত SLST পাশ করে ইতিহাসের ASST. TEACHER হিসেবে এমপানেলড হয়েছে। এই মুহূর্তে শিক্ষক জীবন বেশ উপভোগ করছি।
প্রশ্ন : কলা বিভাগ থেকে ১ম হ‌ওয়া খুব কঠিন, তা সত্বেও আপনার ছাত্র প্রথম হয়েছে, কীভাবে এই অসাধ‍্য সাধন করলেন?
 জাহিরউদ্দিন : কলা বিভাগ থেকে প্রথম হওয়াটা বেশ কঠিন ব্যাপার।কারণ এখনকার সিস্টেমে একজন কলাবিভাগের ছাত্র কে পাঁচটা বড় প্রশ্ন লিখতে হয় যার মান 8 নম্বর করে, অর্থাৎ 5×8=40 এই জায়গাটায় নম্বর তোলাটা বেশ কঠিন । এতদসত্বেও বলা যায় উপযুক্ত মানের উত্তর, যথাযথ বাক্যবিন্যাস, পরিচ্ছন্ন উপস্থাপন ও বিষয় সম্পর্কিত সঠিক শব্দচয়ন ভালো নম্বর পেতে খুব উপযোগী।
আমরা সৌভাগবান যে গ্রন্থন এই সব দিকে যথাযথ নজর দিয়েছে। ক্লাসে ওরা খুব স্ট্যান্ডার্ড প্রশ্ন করতো ওদের সেরা জায়গায় আনতে আমরা সাধ্যমত চেষ্টা করেছি, ওদের খাতা গুলো চুলচেরা বিশ্লেষণ করে ত্রূটি বিচ্যুতি গুলো নজরে আনা হত। তবে আমি মনে করি সম্পূর্ণ ক্রেডিট ওর নিজের। ও খুবই পরিশ্রমী ও ফোকাসড ।

প্রশ্ন :  কী ভাবে পড়াশুনো করলে সাফল‍্য আসবে ?

জাহিরউদ্দিন :  কীভাবে পড়াশোনা করলে সাফল্য আসবে এটার উত্তর বহুমাত্রিক। ক্লাস অনুযায়ী তা ভ্যারি করে। বিভিন্ন ক্লাসের স্টূডেন্টদের জন্য ভিন্ন ভিন্ন স্ট্র্যাটেজি নেওয়া দরকার।
এইচ এস এর ক্ষেত্রে : প্রথমত , কমপক্ষে দুটো টেক্সট বই খুঁটিয়ে পড়া দরকার।
দ্বিতীয়ত, প্রত্যেক চ্যাপ্টার থেকে সম্ভাব্য 8 নম্বরের প্রশ্নগুলো পৃথক করে উপযুক্ত মানের উত্তর তৈরি করা।
তৃতীয়ত , অবজেক্টিভ প্রশ্নের জন্য টেক্সট বই ছাড়াও বিভিন্ন প্র্যাকটিস সেট দেখে অনুশীলন করা,
চতুর্থত, নিয়মিত লেখার অভ্যাস করা।
এগুলো করলে সাফল্য ধরা দেবেই।
প্রশ্ন :  কর্মজীবনে সফলতার জন‍্য আপনার পরামর্শ কী?
জাহিরউদ্দিন : কর্ম জীবনে সফলতার জন্য উপযুক্ত পরিকল্পনা, পরিকল্পনা বাস্তবায়নের মত মানসিক প্রস্তুতি, সঠিক সময়ে সঠিক কাজ করা, প্রস্তুতিকে সর্বোচ্চ মাত্রায় নিয়ে যাওয়ার জন্য কোনো কিছুর সাথেই আপস না করা, সঠিক গাইডেন্স পাওয়া ও সফলতার খিদে থাকা খুব জরুরি। মনে রাখতে হবে জীবনে জয়ী হওয়ার ইচ্ছা সকলেরই থাকে , কিন্তু তার জন্য উপযুক্ত প্রস্তুতি নেওয়ার সদিচ্ছা খুব কম জনেরই থাকে। তাই সঠিক সময়ে সঠিক প্রস্তুতি নিলে সাফল্য পেতে অসুবিধা হবে না। বরং সাফল্য নিজে  থেকেই ধরা দেবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

প্রশ্ন : প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষায় সফল হতে গেলে কীভাবে পড়াশোনা করতে হবে ?
জাহিরউদ্দিন : প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষায় সফল গেলে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে নজর দিতে হবে :
১. বিষয় ভিত্তিক টেক্সট বই পড়া।
২. উপযুক্ত মানের কম্পিটিটিভ মেটিরিয়াল ফলো করা।
৩. লুসেন্ট, আরিহান্ট, ও কিরণ পাবলিকেশন এর বইপত্র নিয়মিত ফলো করা।

৪ যে এক্সাম দেওয়া হচ্ছে তার সম্ভব হলে বিগত 20 বছরের প্রশ্ন সলভ করা ।
৫ নিয়মিত রুটিন বানিয়ে পড়া।
৬. প্রতিটি সবজেক্ট কে ব্যালেন্স করে পড়া
৭. রিজনিং সপ্তাহে অন্তত 2 দিন করা ।
৮. নিয়মিত একটা নিউজ পেপার, একটা চাকরি সংক্রান্ত পেপার, একটা মান্থলি (যেমন অচিভার্স) নিয়ম করে পড়া দরকার।৯. নিজের উপর বিশ্বাস রাখা জরুরী ।
১০. অব্যশই কোনো অভিজ্ঞ মানুষ , বা সিনিয়র দাদার সান্নিধ্যে থাকা উচিৎ।


শেয়ার করুন
  • 380
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

One Thought to “উচ্চ-মাধ্যমিকে প্রথম গ্রন্থণের শিক্ষক সফল হওয়ার চাবি কাঠি কী ? ব্যাখ্যা করলেন”

  1. Anupam Das

    জাহির স্যাররের প্রত্যেক প্রশ্নের উত্তর সত্যিই অসাধারণ। শেষ ১০ টি উপদেশ প্রত্যেক সরকারী চাকরির পরিক্ষাথীকে আরো এক ধাপ উপরে নিয়ে যাবে। ছাত্র হিসাবে আমরা প্রত্যেকে জাহির স্যাররের কাছে কৃতজ্ঞ।

Leave a Comment