কলকাতা 

লাগাম ছাড়া বিল : সিইএসসির বিরুদ্ধে আরও কড়া হচ্ছে মমতা সরকার , নোটিশ পাঠাচ্ছে ক্রেতা সুরক্ষা দফতর!

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : সিইএসসির লাগাম ছাড়া বিল পাঠানোর যে যুক্তি সিইএসসির পক্ষ থেকে দেখানো হচ্ছে তা মানতে নারাজ রাজ্য সরকার । বিশেষ করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মনে করছেন , কোনো পরিস্থিতিতে এই বেসরকারি বিদ্যুৎ সংস্থা মাথায় তোলা যাবে না । সাধারন মানুষের স্বার্থকে সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দেবে রাজ্য সরকার । তাই সিইএসসির যুক্তির বিরুদ্ধে এবার ক্রেতা সুরক্ষা দফতর নামালো রাজ্য সরকার ।

ক্রেতা সুরক্ষা দপ্তরের মন্ত্রী সাধন পাণ্ডে সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, “লকডাউনের ফলে ঠিকমতো মিটার রিডিং নেওয়া হয়নি। তা সত্ত্বেও অতিরিক্ত বিলের বোঝা সাধারণ মানুষের উপর চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে। প্রতি মাসে যা বিল আসে, তার চেয়ে অনেক গুণ বেশি বিল আসছে। একে লকডাউনে বেশিরভাগ মানুষের আয় কমেছে। তার উপর আবার মাত্রাতিরিক্ত বিলের বোঝায় নাজেহাল গ্রাহকরা।”

বিশেষ সূত্রে জানা গেছে আগামিকাল অর্থাৎ সোমবার বেসরকারি ওই বিদ্যুৎ সংস্থাকে নোটিস পাঠাবে ক্রেতা সুরক্ষা দপ্তর। এছাড়া ওইদিন সিইএসসির সদর দপ্তর ভিক্টোরিয়া হাউসের সামনে বিক্ষোভ দেখাবে রাজ্যের বিদ্যুৎ গ্রাহকদের সংগঠন অ্যাবেকা।

সিইএসসির দাবি, করোনা সংক্রমণের জেরে মার্চ থেকে লকডাউন  জারি করা হয়। তার ফলে বেশ কয়েকমাস বন্ধ ছিল মিটার রিডিং নেওয়া। স্বাভাবিকভাবেই এপ্রিল ও মে মাসে অনুমানের ভিত্তিতে বাৎসরিক গড়ে বিদ্যুৎ ব্যবহারের নিরিখে বিল পাঠানো হয়েছে। তবে তা বিদ্যুৎ ব্যবহারের তুলনায় অনেক কম। জুন থেকে ফের মিটার রিডিং শুরু হয়েছে। বাড়তি ইউনিট বিলে যুক্ত হয়েছে। তার উপর আবার গ্রীষ্মকালে বিদ্যুৎ খরচ হয় তুলনামূলক বেশি। তাই অতিরিক্ত বিল দেখে বিরক্ত হচ্ছেন গ্রাহকরা।

গ্রাহকরা মনে করছেন সিইএসসি প্রতি বছরই কোনো কোনো গ্রাহকের কাছ থেকে বেশি অংকের বিল পাঠায় যা বিস্ময়ের বিষয় । শুধু তাই নয় গ্রাহকদের মিটার ট্যাম্পিং হলে তার দায় নিতে চায় না সিইএসসি । ফলে এক শ্রেণির অসাধু ব্যক্তিদের সঙ্গে যোগসাজশ করে বিলের মাত্রা বাড়ায় সিইএসসি ।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment