কলকাতা 

যাদবপুরে পড়ুয়াদের বিক্ষোভের সঙ্গী এবার প্রাক্তনীরা, তবু কর্তৃপক্ষের ভর্তির তারিখ ঘোষণা,বয়কটে অধ্যাপকরা

শেয়ার করুন
  • 17
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিবেদক : যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন থেকে চলে আসা প্রবেশিকা পরীক্ষা তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তে গত বুধবার থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা আন্দোলন শুরু করেছে। আজ সেই আন্দোলনকে সমর্থন করেছে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তণ ছাত্রছাত্রীরা। ফলে এবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির প্রবেশিকা পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে আবার নতুন জট পাকিয়ে উঠতে চলেছে। এদিকে পড়ুয়াদের বিক্ষোভের মাঝেই বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাডমিশন কমিটি ভর্তির তারিখ ঘোষণা করে দিয়েছে। আগামী ২৭,২৮.৩০ ও ৩১ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি নেওয়া হবে। এদিকে কমিটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে ৭ জুলাই থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত আবার ভর্তির ফর্ম দেওয়া হবে । এবার ভর্তি হবে উচ্চ-মাধ্যমিকে প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে। এতদিন ধরে যাদবপুরে ভর্তি হতে গেলে আলাদা প্রবেশিকা পরীক্ষা নেওয়া হত। এবারই প্রথম প্রবেশিকা পরীক্ষা ছাড়াই মেধা তালিকার ভিত্তি ভর্তি নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয়ের এই সিদ্ধান্ত যাদবপুরের পড়ুয়ারা মেনে পারছে না। তাদের মতে সরকারের চাপে কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবিতে তাদের আন্দোলন চলবে বলে পড়ুয়ারা জানিয়েছে।

উল্লেখ্য, এ বছর যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রথমেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল স্বীকৃত বোর্ড  থেকে পাশ করা ছাত্র-ছাত্রীদের প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে তৈরি করা হবে মেধা তালিকা । আর সেই তালিকা মত ভর্তি নেওয়া হবে । কিন্ত পড়ুয়ারা বিশেষ করে কলা বিভাগের ছাত্রছাত্রীরা এই সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করে এবং আন্দোলন শুরু করে। তাদের আন্দোলনের চাপে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত বদল করে কলা বিভাগের  ছটি বিষয়ে প্রবেশিকা পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্ত কয়েক দিন পরই গত বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মসমিতি রাতারাতি সিদ্ধান্ত বদল করে জানিয়ে দেয় উচ্চ-মাধ্যমিকে প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতেই ভর্তি নেওয়া হবে। কর্তৃপক্ষের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বুধবার থেকেই আন্দোলন শুরু করেছে পড়ুয়ারা।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপকরা সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা ভর্তি প্রক্রিয়া বয়কট করবেন। দীর্ঘদিন চলে আসা একটা পরম্পরাকে হঠাৎ  পরিবর্তন করাকে মেনে নিতে পারছেন না ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপকরা । সব মিলিয়ে যাদবপুর যে আবার উত্তাল হতে চলেছে তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই।


শেয়ার করুন
  • 17
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment