কলকাতা 

সরকারি টাকায় বিলাসিতা বন্ধ করে, তা সাধারণ মানুষের উন্নয়নে কাজে লাগাতে হবে : মুখ্যমন্ত্রী

শেয়ার করুন
  • 19
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিবেদক : রাজ্য সরকার এবার অপ্রয়োজনীয় খরচে লাগাম টানতে চাইছে। ইতিমধ্যে মুখ্যসচিব এক সার্কুলার জারি করে ১৫ দফা নির্দেশ সমস্ত দপ্তরের সচিবদের কাছে পাঠিয়েছেন । ওই নির্দেশনামায় স্পষ্ট বলা হয়েছে অহেতুক খরচ করা যাবে না। এমনকি সরকারি অনুষ্ঠানে ফুল কেনার সময়ও তা কম দামে কেনার কথা বলা হয়েছে । বাইরের অতিথি ছাড়া রাজ্যের কোন অফিসার কিংবা মন্ত্রী বিশেষ সুযোগ সুবিধা পাবে না। এমনকি যেসব অফিসার রাজ্যের বাইরে যাওয়ার সময় প্লেনে যান তারও প্লেনে গেলে অবশ্যই ইকোনমী ক্লাসে যেতে হবে।

মুখ্যসচিবের এই নির্দেশ দিয়েই সরকার তার দায়িত্ব শেষ করেনি। এবার খরচ কমানোর জন্য বৈঠকে বসলেন খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । আজ নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের সমস্ত মন্ত্রী, আমলাদের নিয়ে বৈঠক করেন। এই বৈঠকে ঠিক হয়, যেকোন মূল্যে সরকার খরচ কমাবে। মুখ্যমন্ত্রী সরাসরি রাজ্যের মন্ত্রী ও আমলাদের জানিয়ে দেন, সরকারি টাকায় বিলাসিতা করা যাবে না। বিলাসিতা বন্ধ করে সেই টাকায় সাধারণ মানুষের উন্নয়নে কাজ করতে হবে। তিনি ওই বৈঠকে আরও বলেন , খরচ কমানোর লক্ষে ১২টি দপ্তরকে একসঙ্গে মিশিয়ে দেওয়া হয়েছে । প্রয়োজন হলে আরও খরচ কমানোর জন্য আরও কড়া অবস্থান নেওয়া হবে বলে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দেন।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মুখ্যমন্ত্রী বলেন, প্রতিমাসে ৪৬ হাজার কোটি টাকা ঋণ শোধ করতে চলে যায়। এভাবেই দু লক্ষ চব্বিশ হাজার কোটি টাকা ঋণ শোধ করেছি। তার উপর আমরা ঘোষণা করেছি  নতুন হারে ডিএ দেওয়া হবে । রাজ্য সরকারি কর্মীদের বর্ধিত হারে ডিএ দিতে প্রায় পাঁচ হাজার কোটি টাকা লাগবে । সেই টাকা আসবে কোথা থেকে? সেই কারণেই কেন্দ্রের বঞ্চনা উপেক্ষা করে খরচ কমানোর দিকে নজর দিতে হবে। তিনি আরও বলেন, খরচ কমিয়ে যে টাকা বাঁচবে তা মানুষের উন্নয়নের জন্য খরচ করা হবে। তবে তিনি এদিন বলেন,জনকল্যাণমুখী কোন প্রকল্প খরচ কমানোর নামে বন্ধ করা হবে না।

তিনি বিভিন্ন দপ্তরে কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে তা প্রয়োজনীয়তা যাচাই করে নিতে নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানা গেছে। শুধু তাই নয় সরকারি খরচ কমানোর লক্ষে নবান্নে খাবারের মেনু থেকে কয়েকটি ভাল পদ বাদ যেতে পারে বলে জানা গেছে।


শেয়ার করুন
  • 19
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment