দেশ 

লকডাউন : মদ কিনতে নাগরিকদের বিশেষ পাসের ব্যবস্থা করছে কেরল সরকার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

করোনা ভাইরাস  সংক্রমণ রুখতে ২১ দিনের লকডাউন  চলছে গোটা দেশে। এই পরিস্থিতিতে যে সব মদ্যপায়ীরা ‘উইথড্রয়াল সিম্পটম’-এর শিকার, তাঁরা চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশন দেখালে তাঁদের জন্য বিশেষ পাসের ব্যবস্থা করা হবে। সেই পাসের সাহায্যে তাঁরা আবগারি দফতর থেকে মদ কিনতে পারবেন। তেমনই সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেরল  সরকার। সোমবার রাতে এই সংক্রান্ত একটি সরকারি নির্দেশ জারি করা হয়েছে। চিকিৎসকদের অ্যাসোসিয়েশনের আপত্তি সত্ত্বেও এই নির্দেশিকা জারি করেছে কেরল সরকার। ওই নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, লকডাউনের সময় রাজ্যে মদের দোকান বন্ধ থাকা অবস্থায় বহু সামাজিক সমস্যার উদাহরণ সামনে আসছে। এর মধ্যে রয়েছে অবসাদ এমনকী আত্মহত্যার চেষ্টার মতো ঘটনাও। যাঁরা নিয়মিত মদ্যপান করেন তাঁদের মধ্যে এমনটা দেখা গিয়েছে। রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এই সমস্যার সমাধানে পদক্ষেপ করার।

ওই নির্দেশে আরও বলা হয়েছে যাঁদের শারীরিক ও মানসিক সমস্যা শুরু হয়েছে ‘উইথড্রয়াল সিম্পটম’-এর কারণে, তাঁরা মদ কিনতে পারবেন। তবে অবশ্যই নিয়ন্ত্রিত পরিমাণে এবং প্রেসক্রিপশন মেনে।

‘উইথড্রয়াল সিম্পটম’ দেখা দিলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের স্বাস্থ্য কেন্দ্র, জেলা বা সদর হাসপাতাল কিংবা কোনও মেডিক্যাল কলেজে গিয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়ার কথাও বলা হয়েছে নির্দেশিকায়। নির্দেশিকায় জানিয়ে দেওয়া হয়েছে তেমন কোনও ব্যক্তিকে যদি চিকিৎসকরা প্রেসক্রিপশন দেন যাতে লেখা তিনি ‘উইথড্রয়াল সিম্পটম’-এর শিকার, তাহলে তাঁকে নিয়ন্ত্রিত পরিমাণে মদ দেওয়া যেতে পারে।

বলা হয়েছে, নিকটবর্তী আবগারি দফতরে ওই প্রেসক্রিপশন জমা দিতে হবে। সেই সঙ্গে ওই ব্যক্তির সরকারি পরিচয়পত্র। এর পরে তিনি একটি পাস পাবেন। তবে এই ব্যক্তিদের মদ বিক্রি করতে মদের দোকান খুলে রাখার দরকার নেই বলেও জানানো হয়েছে।
সরকারের এহেন পদক্ষেপের নিন্দা করেছে ‘ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন’। সংগঠনের সভাপতি আব্রাহাম ভার্গেসে বলেচেন, ‘‘যাঁদের মধ্যে উইথড্রয়াল সিম্পটন দেখা যাচ্ছে, তাঁদের বিজ্জানসম্মত ভাবে চিকিৎসা করা সম্ভব যা বাড়িতেও করা সম্ভব অথবা হাসপাতালে ভর্তি রাখার কথা।”

এখনও পর্যন্ত রাজ্যে তিনটি আত্মহত্যার ঘটনা সামনে এসেছে যাঁরা ‘উইথড্রয়াল সিম্পটম’-এ ভুগছেন। অ্যালকোহল নিষিদ্ধ হওয়ার পর থেকে তাঁরা অবসাদে ভুগছিলেন বলে জান‌া গিয়েছে। সৌজন্যে এনডিটিভি।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment