কলকাতা 

নিজ হাতে ফুটপাতবাসী ও গরীব-নিম্নবিত্তদের খাবার তুলে দিয়ে করোনা সংকটে দেশে নজীর সৃষ্টি করলেন মমতা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : মানবিক মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একের পর এক নজীর সৃষ্টি করে চলেছেন । দেশের রাজনৈতিক নেতারা যখন টুইটারে বক্তব্য লিখে পোষ্ট করতে ব্যস্ত ঠিক তখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় টুইটারে নয় আম জনতার মাঝখানে চলে যাচ্ছেন । জনতার মনের কোঠায় পৌছে যাচ্ছেন তিনি ।  করোনা সংক্রমণের ভয়ে যখন দেশের প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না, তখন প্রতিদিন নিয়ম করে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলেছেন মমতা । সবাই যখন ঘুমিয়ে আছেন , মমতা তখন জেগে মানুষকে ত্রাণ দেওয়ার জন্য ।

দেশজুড়ে চলছে লকডাউন । ২১ দিন মানুষ ঘর থেকে বেরোতে পারবে না । সমস্যা সেই মধ্যবিত্ত সমাজের । কিন্ত শ্রমজীবী মানুষের সমস্যা তো আছেই । তারা কী খাবে ? কী পরবে ?  মুখ্যমন্ত্রী আশ্বাস দিচ্ছেন কোনো সমস্যা হবে না । তবে আশ্বাসে বিশ্বাস করে না মমতা । তিনি কাজে বিশ্বাস করেন । লকডাউনের শুরু থেকেই অত্যাবশ্যকীয় পণ্য সরবরাহ ব্যবস্থা মসৃণ রাখতে সচেষ্ট ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিশেষ করে গরিব মানুষের যাতে খাদ্যদ্রব্য পেতে কোন রকম সমস্যা না হয় সে ব্যাপারে প্রশাসনকে দৃষ্টি রাখতে নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি।

আজ শুক্রবার কালীঘাট ও আলিপুর চত্বরে নিজেই ফুটপাতবাসী ও রিকশাওয়ালাদের চাল,ডাল বিলি করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে এদিন উপস্থিত ছিলেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম, কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা, এবং স্থানীয় কাউন্সিলররা করোনার সংক্রমণ রাজ্যে ছড়িয়ে পড়তেই একাধিক সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কলকাতার হাসপাতালগুলিতে কিভাবে করোনা মোকাবিলায় কাজ করছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা, তা দেখতে ছুটে বেরিয়েছেন এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে। শুধু হাসপাতালই নয়, বাজারের অবস্থা এখন দেখতে বৃহস্পতিবার শহরের বিভিন্ন বাজারে ঘুরে বেরিয়েছেন। শুক্রবার দুপুরে একইভাবে গরিব মানুষের স্বার্থে ফের একবার পথে নামলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ট্রাকভর্তি করে চাল, ডাল পেঁয়াজ সহ অন্য শুকনো খাবার বিলি করলেন নিজে হাতে। প্রায় ৩০০ জন গরিব মানুষের হাতে তুলে দিয়েছেন খাবার। দাঁড়িয়ে থেকে তদারকি করলেন খাদ্যদ্রব্য বন্টন ব্যবস্থার।

এদিন নিজে গরীব মানুষদের কাছে খাবার পৌছে দিয়ে দেশের সমস্ত নেতাদের বার্তা দিলেন শুধু ভাষণ নয় , রেশনও দিতে হয় । মানুষকে শুধু ভাষণ শুনিয়ে লাভ নেই সঙ্গে খাবারও সংস্থান করে দিতে হয় । মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখানেই অনন্য ।

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment