জেলা 

জনতা কারফিউয়ের দিনেই স্কুলে মিড-ডে মিলের সামগ্রী বিলির নির্দেশ দিয়ে বির্তকে সরকার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : রবিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জনতা কারফিউয়ের ডাককে অগ্রাহ্য করে রাজ্যের সরকারি শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানগুলিকে খুলে রাখার নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার । কারণ এদিন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় বাড়ি বাড়ি মিড-ডে মিল পৌছে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে সরকার ।  তবে, এরই মধ্যে রাজ্য সরকারি স্কুলের শিক্ষকদের ওই স্কুলে যেতে বলা হয়েছে। ফলে, কীভাবে তাঁরা স্কুলে যাবেন, তা নিয়ে চিন্তায় পড়েছেন অনেকেই।

রাজ্যের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ আগেই দেওয়া হয়েছে। যতদিন স্কুল বন্ধ থাকবে, ততদিনের মিড ডে মিলের সামগ্রী পড়ুয়াদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

গত ২০ মার্চ ব্যারাকপুরের অফিসের তরফে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা জেলার সব উচ্চ প্রাথমিক, উচ্চ, উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষকদের উদ্দেশ্য করে একটি নোটিশ জারি করা হয়েছে। ওই জেলার স্কুলগুলি রবিবার খোলা রাখার আর্জি জানানো হয়েছে। মিড ডে মিল বিলির যাবতীয় প্রস্তুতি রবিবারের মধ্যে সেরে রাখতে বলা হয়েছে।

যদিও এই সিদ্ধান্ত নিয়ে যথারীতি বিতর্ক শুরু হয়েছে। বিজেপির অভিযোগ, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ‘জনতা কার্ফু’-র দিন বেছে নিয়েছে শিক্ষা দফতর।

বিজেপির এই অভিযোগ অবশ্য উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে তৃণমূলের তরফে। তাদের মতে, জরুরি পরিষেবার জন্যই শিক্ষকদের যেতে বলা হয়েছে।

প্রশ্ন উঠেছে , শিক্ষকরা সাধারনত এখন চাকরি করেন এক জেলা থেকে অন্য জেলায় । আবার অনেক শিক্ষক চাকরি করেন ১০০ কিমি দূরে । তাহলে জনতা কারফিউয়ের দিনে কীভাবে প্রধান শিক্ষকরা স্কুলে পৌছাবেন । যেদিন রাস্তায় গাড়ি যেমন চলবে একইভাবে ট্রেন চলাচলও ব্যাহত হবে । শুধু তাই নয় , পরিস্থিতি বিচার করে যেখানে উচ্চ-মাধ্যমিক পরীক্ষা বন্ধ করে দেওয়া হল , সেখানে মিড-ডে মিল দেওয়ার জন্য রবিবার কেন স্কুল খুলতে হবে সেটা বোধগম্য হচ্ছে না । সোমবারও তো দেওয়া যেতে পারত ? তা না করে শুধুমাত্র মোদীর বিরোধিতার জন্যই কী মমতা সরকারের এই উদ্যোগ ?


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment