কলকাতা 

স্কুল সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ উচ্চ প্রাথমিক এর নন ট্রেন্ড চাকরিপ্রার্থীদের অবিলম্বে নিয়োগের দাবিতে ভারত সভা হলের কনভেনশন থেকে বৃহত্তর আন্দোলনের ডাক

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : গতকাল ১৫ মার্চ রবিবার স্কুল সার্ভিস কমিশনের উচ্চ প্রাথমিক এর নন ট্রেন্ড চাকরিপ্রার্থীদের পক্ষ হইতে কলকাতার (ভারত সভা ) হলে স্কুল সার্ভিস কমিশন এর যোগ্য বঞ্চিত নন ট্রেন্ডপদপ্রার্থীদের নিয়ে একটি কনভেনশনের আয়োজন করা হয় । দাবি ছিল (উচ্চ প্রাথমিকে স্কুল সার্ভিস কমিশনের গেজেট অনুযায়ী যেসব সিটে পর্যাপ্ত পরিমাণে ট্রেন্ডপার্থী পাওয়া যায়নি সেই সিট গুলিতে সুযোগ পাবে নন ট্রেন্ড চাকরি প্রার্থীরা ২০১৫ সালের ১৬ ই আগস্ট উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা হয়েছিল তখন পরীক্ষায় বসার সুযোগ পেয়েছিল ট্রেন্ড এবং ননট্রেন্ড উভয় চাকরিপ্রার্থী যারা টেট পরীক্ষায় পাস করে তাদের সকলের ২০১৯ সালে নথি ভেরিফিকেশন হয় ।

কয়েক মাস আগে একটি মেরিট লিস্ট প্রকাশ করে স্কুল সার্ভিস কমিশন।কিন্তু ননট্রেন্ড চাকরিপ্রার্থীদের নথি যাচাই হলেও ইন্টারভিউ এখনো নেয়া হয়নি। এই কনভেনশন উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন শিক্ষা সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত বুদ্ধিজীবী ব্যক্তি বর্গ গন। অরুণ কুমার চ্যাটার্জী সেকেন্ডারি টিচার এন্ড এমপ্লয়িজ অ্যাসোসিয়েশন ( STEA) এর ভাইস প্রেসিডেন্ট, হীরালাল মান্না কোষাধক্ষ্য (STEA),বিশ্বজিৎ মিত্র প্রধান শিক্ষক কৈলাস বিদ্যামন্দির সাধারণ সম্পাদক মাধ্যমিক শিক্ষকও শিক্ষাকর্মী সমিতি, বিষ্মবড় মুড়া কার্যকরী সভাপতি ফেডারেশন অফ আদিবাসী অরগানাইজেশন (FAO), পরিমল হাঁসদা অফিস সম্পাদক STEA ও সাধারণ সম্পাদক ফেডারেশন অব আদিবাসী অরগানাইজেশন, অনিল বরণ হাঁসদা FAO প্রমূখ।

প্রথমে নন ট্রেন্ড দের হয়ে দেবাশীষ মুদি বঞ্চিত যোগ্য নন ট্রেন্ড দের বিষয়টি সম্বন্ধে কিছু বক্তব্য রাখেন এবং অবগত করেন পরবর্তীকালে বিভিন্ন ক্যাটাগরির বিভিন্ন ক্যান্ডিডেট বক্তব্য রাখেন তাদের বিষয়ের উপর এবং পরিশেষে একে একে সংগঠনের উপস্থিত ব্যক্তিবর্গ বক্তব্য পেশ করে এমতাবস্থায় আমরা অনেক কিছুই জানতে পারি আপার প্রাইমারি নিয়োগ সম্বন্ধে রাইট টু এডুকেশন অ্যাক্ট সম্বন্ধে এবং ইনারা আমাদের আশ্বস্ত করেন আমাদের যথেষ্ট মেরিট আছে এবং ইনারাই ও বলে যাদের ভেরিফিকেশন হয়ে গেছে তাদেরকে সবাইকে একত্রিত করুন আগামী দিনের আন্দোলন লড়াইয়ের জন্য এবং এখান থেকেই আমাদের কর্মসূচি নেয়া শুরু হয় ঠিক যেন অভিভাবকের পথ নির্দেশক এর মত সেই মতো উনার নির্দেশ দেয় এডুকেশন ডিপার্টমেন্ট সচিবালয়, সেক্রেটারিএবং এসএসসি চেয়ারম্যান কে একটি করে লেটার জমা দিতে হবে এবং তার রিসিভ কপি নিয়ে আসতে হবে।

কারণ পরবর্তীকালে এই রিসিভ কপি এবং লেখার মাধ্যমেই তাদেরকে চাপ সৃষ্টি করতে হবে এবং উনারা আমাদের আশ্বাস দেন পরবর্তীকালে সবসময় আমাদের পাশে থাকবেন। যা যা করণীয় তা করবেন । পথের লড়াই ও আইনি লড়াইয়ের মাধ্যমে এমনকি উচ্চস্তরের মন্ত্রীদের সাথেও সাক্ষাৎ করতে পারেন। এ বিষয়ে আগে অনেকগুলো আন্দোলন হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীকে ডেপুটেশন দেওয়া হয়েছে।আজকের কনভেনশনে একটি কমিটিও গঠন করা হয় কমিটির মধ্যে সভাপতি সহ সভাপতি সম্পাদক সহ-সম্পাদক কোষাধক্ষ্য কোষাধক্ষ্যসহ কমিটি গঠন করা হয়। যারা আগামী দিনে আন্দোলনকে একটি সুনির্দিষ্ট দিকে নিয়ে যাবে। এবং বৃহত্তর আন্দোলন করা হবে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment