কলকাতা 

বসন্ত উৎসবে অশ্লীলতা : রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের ইস্তফা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : রবীন্দ্রনাথে ঐতিহ্যকে ধুলায় মিশিয়ে অশ্লীলতার দায়ে অভিযুক্ত হল বসন্ত উৎসব । আর তার দায় মাথায় নিয়ে পদত্যাগ করলেন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য সব্যসাচী বসু রায়চৌধুরি ।

বৃহস্পতিবার বসন্ত উৎসব আয়োজিত হয়েছিল রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের মরকতকুঞ্জ (বিটি রোড) প্রাঙ্গণে। সেই অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং পড়ুয়ারা ছাড়াও আরও বহু বহিরাগত অংশ নেন। বেশ কয়েক জন তরুণ-তরুণীকে পিঠে এবং বুকে রং দিয়ে অশ্লীল শব্দ এবং বিকৃত রবীন্দ্রসঙ্গীত লিখতে দেখা যায়। সেই ছবি দাবানলের মতো ভাইরাল হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। প্রায় সব মহল থেকে তা নিয়ে নিন্দার ঝড় ওঠে।  বসন্ত উৎসবের নামে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে এ কী চলছে? এই প্রশ্ন তুলে বিস্ময় প্রকাশ করতে শুরু করেন শিক্ষাবিদ থেকে সাহিত্যিক, রবীন্দ্রভারতীর অধ্যাপক থেকে অন্যান্য কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকারাও। মুখ খোলেন শিক্ষামন্ত্রীও পর্যন্ত । একে নিন্দাজনক বরে অভিহিত করেন পার্থ চট্টোপাধ্যায় ।

উপাচার্য সব্যসাচী বসু রায়চৌধুরী বৃহস্পতিবারই স্বীকার করে নিয়েছিলেন যে, এই ঘটনা তাঁর ক্যাম্পাসেই ঘটেছে। তবে বিশদ মন্তব্যে যেতে চাননি। আজ, শুক্রবার বিভিন্ন শিবির থেকে উপাচার্যের দিকেও আঙুল তোলা শুরু হয়।  দিনভর হইচই চলে বিষয়টি নিয়ে। শুক্রবার সন্ধ্যায় জানা গেল, পদত্যাগ করেছেন উপাচার্য।
বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য তথা রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের কাছেই পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন সব্যসাচী। পদত্যাগপত্রের প্রতিলিপি পাঠিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কেও। বসন্ত উৎসবে যা ঘটেছে, তার দায় স্বীকার করেই তিনি ইস্তফা দিয়েছেন বলে বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যাচ্ছে।

 

সব্যসাচী বসু রায়চৌধুরীর এই পদত্যাগ চাঞ্চল্য তৈরি করেছে রাজ্যের শিক্ষা মহলে। রাজ্যের শাসক দলের প্রিয়পাত্র হিসাবেই পরিচিত তিনি। বসন্ত উৎসবে গত কাল যা ঘটেছে, তা নিয়ে নানা শিবিরের অস্বস্তি বাড়লেও উপাচার্য পদ থেকে সব্যসাচী ইস্তফা দেবেন, এমনটা অনেকেই ভাবেননি। কিন্তু এ দিন সন্ধ্যায় তাঁর ইস্তফার কথা জানা যেতেই এ কথা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে যে, বসন্ত উৎসব-কাণ্ড নিয়ে শিক্ষা দফতরের সর্বোচ্চ পর্যায়ে তোলপাড় চলছে।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment