দেশ 

 “ন্যায়বিচারের স্বার্থে” দিল্লি হাইকোর্টকে শুক্রবার সমস্ত আর্জি গ্রহণ করে শুনানী করতে বলল সুপ্রিম কোর্ট

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : দিল্লির দাঙ্গা বিষয়ে অতি দ্রুত শুনানী করতে দিল্লি হাইকোর্টকে নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট। “ন্যায়বিচারের স্বার্থে” দিল্লি হাইকোর্টকে শুক্রবার সমস্ত আর্জি গ্রহণ করতে বলল সুপ্রিম কোর্ট । কেন্দ্র দিল্লি হিংসা সম্পর্কিত মামলার বিষয়ে আরও কিছুদিন সময় চেয়েছিল। সেই আবেদন খারিজ করে দিয়ে শীর্ষ আদালত বলেছে,  বিজেপি নেতাদের বিদ্বেষমূলক বক্তব্যের বিরুদ্ধে করা আবেদন সহ দিল্লিতে সহিংসতা সম্পর্কিত সমস্ত মামলার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই দিনই দিল্লির আদালতে শুনানি হওয়া উচিত। প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদে বুধবার বলেন, “আমরা বিচারের স্বার্থে এই মামলাগুলি শুক্রবার দিল্লি হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির অধীনে মামলার তালিকাভুক্ত করার কথা বলছি … আমাদের অনুরোধ, হাইকোর্ট এই মামলাগুলির যতটা সম্ভব দ্রুততার সঙ্গে সমাধান করুক”।

 

গত সপ্তাহে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনকে কেন্দ্র করে দুই গোষ্ঠীর মধ্যে প্রথমে সংঘর্ষে  ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে, আহতের সংখ্যা শতাধিক। তারপরেই এই ঘটনার ন্যায়বিচার চেয়ে প্রথমে দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন মৃতদের পরিবার। কিন্তু সেখানে মামলার শুনানির দিন অনেক দেরিতে দেওয়ায় দ্রুত শুনানির আর্জিতে দেশের শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হন তাঁরা। সেই আবেদনের ভিত্তিতেই দিল্লি হাইকোর্টকে ওই নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট। বিজেপি নেতাদের বিদ্বেষমূলক প্ররোচনার জেরেই দিল্লিতে হিংসা ছড়িয়েছে, তাই তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হোক, এই আবেদনও করা হয় আদালতে।

“আমরা মনে করি যে (হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী) এত দীর্ঘ মেয়াদে একটি মামলার শুনানি স্থগিত করা যথাযথ সিদ্ধান্ত। আমাদের কাছে মামলাটি আসা সত্ত্বেও আমরা চাই না হাইকোর্টের  এক্তিয়ারে ঢুকতে, তাই দিল্লি হাইকোর্টকেই জরুরি ভিত্তিতে শুনানি করার অনুরোধ করছি”, বলেন দেশের প্রধান বিচারপতি বোবদে।

কিন্তু সুপ্রিম কোর্টে আজকের (বুধবার) শুনানিতে কেন্দ্রের তরফ থেকে ওই মামলার জন্যে আগামী সোমবার পর্যন্ত সময় চাওয়া হলেও তা খারিজ করে দেন প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদে। যদিও কেন্দ্রের আইনজীবী তাঁর সওয়ালে বলেন ভারতের প্রধান বিচারপতি দিল্লির “পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত নন” এবং “হাইকোর্টে গুণ্ডামি হয়”। এই প্রসঙ্গে জামিয়া মামলার শুনানির উদাহরণও তুলে ধরেন তিনি। সেই মামলার শুনানি চলাকালীন খোদ আইনজীবীরা দিল্লি হাইকোর্টে “শেম, শেম” ধ্বনি তুলে মামলার কাজে বিঘ্ন ঘটান বলে অভিযোগ করেন তিনি।

সুপ্রিম কোর্ট অবশ্য কেন্দ্রের হয়ে সওয়াল করা আইনজীবীর সব যুক্তি খারিজ করে বলে,”আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব শান্তি ফিরে এসেছে এটা দেখতে চাই। আমরা মধ্যস্থতার আদেশ দিচ্ছি না”। প্রধান বিচারপতি বলেন, “দিল্লি হাইকোর্টই এই বিরোধের শান্তিপূর্ণ সমাধানের চেষ্টা করুক”।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment