কলকাতা 

দিল্লির উস্কানিমূলক স্লোগান ‘ গোলি-মারো’ এবার কলকাতায় , কপালে চিন্তার ভাঁজ নাগরিকদের

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : দিল্লির স্লোগান এবার কলকাতায় ।‘গোলি মারো’ স্লোগান এবার শোনা গেল ধর্মতলায় বুকে । অমিত শাহের কলকাতা আগমনের বিরোধিতা করে এনআরসি ও সিএএ বিরোধী বিক্ষোভ যখন পুরসভার কাছে চলছে ঠিক সেই সময় এসপ্লানেড মেট্রোর ৬ নম্বর গেটে কাছে সাত-আট জন বিজেপি সমর্থক এই স্লোগান দেয় । তবে পুলিশ ঘটনাস্থলে থাকায় এবং তারা মিছিলে ঢুকে স্লোগান বন্ধ করার কথা বলে । ডিজিটাল আনন্দবাজার খবর অনুযায়ী :-

রবিবার দুপুর .২০ মিনিট নাগাদ এসপ্ল্যানেড মেট্রো স্টেশনের নম্বর গেট দিয়ে বেরিয়ে আসেন সাত থেকে আট জন বিজেপি কর্মী সমর্থক। তাঁদের হাতে ছিল দলীয় পতাকা। সেই সময় গ্র্যান্ড হোটেলের পাশের গলিতে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন কিছু মানুষ। তাঁদের হাতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি) বিরোধী পোস্টার। অমিতবিরোধী পোস্টারও ছিল বিক্ষোভকারীদের হাতে। সেই সময় বিক্ষোভকারীদের লক্ষ করে আচমকাই দিল্লির কায়দায়গোলি মারোস্লোগান দিতে থাকেন ওই বিজেপি কর্মীসমর্থকরা

ওই বিজেপি কর্মীরা স্লোগান দিতে দিতে ব্যারিকেডের দিকে এগিয়ে আসতে থাকেন। পাল্টা ব্যারিকেডের বাইরে বার হওয়ার চেষ্টা করেন বিক্ষোভকারীদের কয়েকজন। মুহূর্তে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। ঘটনাস্থলে কলকাতা পুলিশের শীর্ষ কর্তারা উপস্থিত ছিলেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তাঁরা দুপক্ষের মাঝে চলে আসেন। তাঁরা দ্রুত দুপক্ষকে আলাদা করে দেন। আটক করা হয় তিন জনকে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন যুগ্ম কমিশনার (অপরাধ) মুরলীধর শর্মা, অতিরিক্ত কমিশনার ডিপি সিংহসহ কয়েক জন পুলিশ কর্তা

উপস্থিত পুলিশকর্তারা বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে কথা বলেন তাঁদের সরে যেতে অনুরোধ করেন শেষ পর্যন্ত ওই জমায়েত সরে যায় তবে পুরসভা ভবন পর্যন্ত গলিতে তখনও বিক্ষোভ চলছিল দিন ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশ বাহিনী থাকায় কোনও রকম অপ্রীতিকতর পরিস্থিতি তৈরি হয়নি

দিল্লি বিধানসভা ভোটের প্রচারে শাহিন বাগের প্রতিবাদীদের উদ্দেশে প্রথম বার এই স্লোগান তুলেছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর। পরবর্তী কালে স্লোগানকে সামনে রেখে দিল্লিতে হিংসা ছড়ায় । যার ফলে হাজার হাজার মানুষ আক্রান্ত হয় , ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে । খোদ কলকাতার বুকে এই ধরনের স্লোগান ওঠায় চিন্তিত পুলিশ ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment