দেশ 

দিল্লির অশান্তি নিয়ে পুলিশের ভূমিকার প্রশ্ন তুলেই কী বদলী বিচারপতি মুরলীধর ? প্রশ্ন রাহুল-প্রিয়াঙ্কার , রুটিন বদলী বলছেন রবিশংকর

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : দিল্লির মানুষ রক্ষা করার জন্য যিনি মধ্যরাতেই শুনানীর আয়োজন করেছিলেন সেই দিল্লি হাইকোর্টের বিচারপতি মুরলীধরকে বুধবার মধ্যরাতেই বদরী করা হয় পঞ্জাব হাইকোর্টে।আর বদলীকে ঘিরে শুরু হয়েছে বিরোধী শাসক দলের চাপান-উতোর।

দিল্লির অশান্তিতে বিচারপতি মুরলীধর পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন এবং হিংসায় উস্কানি দেওয়ার অভিযোগ যাঁদের বিরুদ্ধে উঠেছে, সেই সব নেতার বিরুদ্ধে এফআইআর করার বিষয়ে কেন্দ্রকে চিন্তাভাবনা করতে বলেন। তারই প্রেক্ষিতে এই রাতারাতি বদলির নির্দেশ কি না, তা নিয়েই প্রশ্ন তুলছেন বিরোধী পক্ষের নেতারা।

কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী এদিন বিচারপতি মুরলীধরের বদলির সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে কেন্দ্রকে এক হাত নেন। তিনি টুইটে লিখেছেন , “বিচারপতি লোয়ার কথা মনে পড়ছে, যাঁকে বদলি করা হয়নি”। সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ব্রিজগোপাল হরকিষেন লোয়ার ২০১৪ সালে মারা যান। তিনি সেই সময় গুজরাতের সোহরাবুদ্দিন শেখের হত্যা সংক্রান্ত তদন্তের মুখ্য তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন। ওই মামলার অন্যতম অভিযুক্ত ছিলেন অমিত শাহ। লোয়ার মৃত্যু নিয়ে বিপুল বিতর্ক শুরু হয়। যদিও ২০১৮-য় সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এই মৃত্যুকে ‘স্বাভাবিক’ বলে রায় দেয়, তবু গণমানসে লোয়ার মৃত্যু নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়।

রাহুলের এই টুইটের পরই ময়দানে নেমে পড়ে বিজেপি। বিজেপি নেতা তথা কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ এক টুইট-বার্তায় জানিয়েছেন, মুরলীধরের বদলি কার্যত রুটিন বদলি। ১২ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের কলেজিয়াম এই বদলির নির্দেশ জারি করে। সেই মোতাবেকই কাজ চলছে। কিন্তু দিল্লির সাম্প্রতিক পরিস্থিতির প্রেক্ষিত আর এই বদলির নির্দেশকে ‘কাকতালীয়’ হিসেবে দেখছেন না রাহুল গাঁধী, প্রিয়ঙ্কা গাঁধীর মতো কংগ্রেস নেতারা।

প্রিয়ঙ্কা গাঁধী তাঁর টুইটে লিখেছেন। “মধ্যরাতে বিচারপতি  মুরলীধরের এঈ বদলির নির্দেশ বর্তমান পরিস্থিতিতে মোটেই আশ্চর্যের বিষয় নয়। কিন্তু নিশ্চিত ভাবে বেদনাদায়ক ও লজ্জাকর। “ তাঁর মতে এই ঘটনা সরকারের তরফে বিচারব্যবস্থার মুখে লাগাম পরানোর সমতুল। এতে দেশের বিচারব্যবস্থার উপরে জনগণের আস্থা ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

অন্যদিকে আইন মন্ত্রী তাঁর টুইটে বলেছেন, লোয়ার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টই রায় দিয়েছিল। রাহুলের এই প্রসঙ্গ আবার তুলে আনা মানে, দেশের সর্বোচ্চ আদালতের রায়কে প্রশ্ন করা। তিনি লিখেছেন, “রাহুল গাঁধী কি নিজেকে সুপ্রিম কোর্টের ঊর্ধ্বে মনে করেন?” তাঁর মতে, কংগ্রেস এই বদলিকে ইচ্ছে করে রাজনৈতিক রং দিতে চাইছে। তাঁর আরও মন্তব্য, কংগ্রেস কার্যত একটি বিশেষ পরিবারের সম্পত্তি। এমন দলের এ ধরনের প্রশ্ন তোলার কোনও অধিকারই নেই। জরুরি অবস্থার সময় দেশের বিচার ব্যবস্থা, বিশেষ করে সুপ্রিম কোর্ট ও তার বিচারপতিদের উপরে কী ধরনের নিয়ন্ত্রণ চালু ছিল, তা সকলেই জানেন। রবিশঙ্করের কথায়, ‘‘কোনও সিদ্ধান্ত তাদের (কংগ্রেসের) অপছন্দ হলেই তারা প্রতিষ্ঠানকে আক্রমণ করে থাকে।’’

বুধবার রাত ১১টা নাগাদ রাষ্ট্রপতির তরফে দিল্লি হাই কোর্টের বিচারপতি মুরলীধরকে পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টে বদলির নির্দেশ জারি করা হয়। নিয়ম মাফিক বদলির আগে বিচারপতিকে ১৪ দিন সময় দেওয়ার কথা। কিন্তু এই ‘রাতারাতি’ বদলির পিছনে অন্য কারণ বিদ্যমান— কংগ্রেসের এই মতকে উড়িয়ে দিয়ে এই বদলিকে ‘রুটিন’ হিসেবে দেখাতে চাইছে বিজেপি নেতৃত্ব। আপাতত এই নিয়ে বিতণ্ডা তুঙ্গে।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment