দেশ 

সিএএ বিরোধী আন্দোলনকারীরা আলোচনার জন্য বাসভবন গেলেও দেখা করলেন না স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ! ইন্দিরা যা করতে পেরেছিলেন , অমিত শাহ তা পারলেন না কেন ? জানতে হলে ক্লিক করুন

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : সিএএ নিয়ে আলোচনায় বসতে প্রস্তুত জানিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ । একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে অমিত শাহ শাহিন বাগ আন্দোলনকারীদের উদ্দেশে আলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়েছিলেন । সেই মত দিল্লির শাহিন বাগের প্রতিবাদীরা আলোচনার জন্য অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করার জন্য দিল্লি পুলিশের কাছে অনুরোধ জানিয়েছিল । কিন্ত দিল্লি পুলিশ প্রতিনিধি পাঠিয়ে দেখা করার জন্য পাল্টা অনুরোধ করে । শাহিন বাগ তা মানতে চায়নি । তারা বলে আমরা সকলেই মিছিল করে অমিত শাহের বাড়ি যাব সেখানে গিয়ে প্রকাশ্যে অমিত শাহের সঙ্গে আমাদের বৈঠক হবে । দিল্লি পুলিশ এই মিছিলের অনুমতি দেয়নি । তা সত্ত্বে আজ রবিবার বেলা ২.৩০টা নাগাদ শাহিন বাগ থেকে কৃষ্ণ মেনন মার্গে অমিত শাহের বাসভবনের উদ্দেশে মিছিল শুরু করেন তাঁরা। রাস্তায় নামেন বহু মানুষ। উদ্দেশ্য, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রস্তাব মতো তাঁর সঙ্গে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) ও জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি) নিয়ে আলোচনা করা। জাতীয় পতাকা নিয়ে মিছিল শুরু করেন প্রতিবাদীরা। পোস্টার ও ব্যানারের পাশাপাশি বিআর অম্বেডকরের ছবিও দেখা যায় তাঁদের হাতে।

পরিস্থিতির মোকাবিলায় অমিত শাহের বাসভবন নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয় হাই সিকিওরিটি জোন কৃষ্ণ মেনন মার্গ। বাড়ানো হয় নিরাপত্তারক্ষীর সংখ্যা। অমিত শাহের বাসভবনের চারপাশে বসানো হয় ব্যারিকেডও। মিছিল আটকাতে শান্তির রাস্তাই বেছে নিয়েছিল পুলিশ। মিছিলে যাঁরা পা মিলিয়েছিলেন তাঁদের বোঝানোর চেষ্টা করেন পুলিশকর্মীরা। মিছিল আটকে দেওয়া হলেও, এ দিন ব্যারিকেডের কাছাকাছি পৌঁছে যান প্রতিবাদীদের কয়েকজন। তাঁরা অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করার জন্য পুলিশের কাছে আবেদন করেন। কিন্তু তাতে কর্ণপাত করেনি দিল্লি পুলিশ। বদলে তারা জানিয়ে দেয়, আগে থেকে অনুমতি না নিলে অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করা যাবে না। আর এতেই শেষ পর্যন্ত কাজ হয়। এ দিনের মতো নিরস্ত হন প্রতিবাদীরা। মিছিল অমিত শাহের বাসভবনের চৌহদ্দির আগে থেকেই ফিরে চলে যায়।

সিএএ ও এনআরসি নিয়ে আলোচনার জন্য রবিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে সকলে মিলে দেখা করার কথা আগেই ঘোষণা করেছিলেন শাহিন বাগের প্রতিবাদীরা। শনিবার আবেদনও করা হয় দিল্লি পুলিশের কাছে। কিন্তু প্রতিবাদীদের ওই প্রস্তাব ২৪ ঘণ্টার মধ্যে খারিজ করে দেয় পুলিশ। সংবাদ সংস্থা এএনআই জানিয়েছে,  প্রতিবাদীদের মধ্যে কারা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে প্রতিনিধি হিসাবে যেতে চান তা জানতে চেয়েছিল দিল্লি পুলিশ। কিন্তু তাঁদের সকলেই অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করতে চান। বিক্ষোভকারীদের ওই আবেদনে এটাও উল্লেখ করা হয় যে, ওই মিছিলে প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ যোগ দেবেন। তবে সেই প্রস্তাব মেনে নেয়নি দিল্লি পুলিশ।

অমিত শাহ নিজের দেওয়া কথায় রাখতে পারলেন না । দেখা করলেন না শাহিন বাগ আন্দোলনকারীদের সঙ্গে । রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন ,অমিত শাহ ইচ্ছা করলেই এই প্রতিবাদীদের বেরিয়ে এসে নিজের বক্তব্য রাখতে পারতেন । আর এটা করতে পারলে শাহিন বাগ আন্দোলন অনেকটাই ভোঁতা হয়ে যেত । কিন্ত তা না করে বিজেপি এবং অমিত শাহ দুজনেই অনেকটাই রাজনৈতিক ভাবে ব্যাকফুটে চলে গেলেন । জরুরি অবস্থার সময় জেএনইউ-র পড়ুয়ারা ইন্দিরা গান্ধী বাসভবন ঘেরাও করে ছিল । সেই সময় ইন্দিরা গান্ধী বাইরে বেরিয়ে এসে আন্দোলনকারীদের বক্তব্য শুনেছিলেন এবং তাদের দাবি মেনে জেএনইউ-র আচার্য পদ থেকে পদত্যাগও করেছিলেন । ইন্দিরা যা করতে পেরেছিলেন অমিত শাহ সেই সুযোগ পেয়ে তা করতে পারলেন না ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment