কলকাতা 

বিধানসভার অন্দরে নার্গিসের অশালীন আচরণ কোনোভাবেই গনতান্ত্রিক নয় , বরং লজ্জার !

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সেখ ইবাদুল ইসলাম : লজ্জা বললেও কম বলা হবে । বিধানসভার অন্দরে শাসক দলের এক মহিলা বিধায়ক কুৎসিত ভাষায় বিরোধী দলের এক মহিলা বিধায়ককে আক্রমণ করছেন । যা বিধানসভার ইতিহাসে বেনজির ঘটনা ।মেমারির বিধায়ক নার্গিস বেগম রাজ্য বাজেট নিয়ে বলছিলেন বিধানসভায় । কিন্ত মাঝপথে মেয়েদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন জামুরিয়ার সিপিএম বিধায়ক জাহানারা বেগম । এ নিয়ে শুরু তর্ক-বির্তক । শেষ পর্যন্ত উত্তেজনার বসে তৃণমুল বিধায়ক নার্গিস বেগম বলে ফেলেন ‘ তোমার ধর্ষণ হবে’। এরপরেই কেঁদে ফেলেন জামুরিয়ার সিপিএম বিধায়ক জাহানারা বেগম । বিধানসভায় তর্ক-বির্তক চলতেই পারে তা বলে সরাসরি একজন বিধায়ক কী মহিলা বিধায়ককে লক্ষ্য করে এই ধরনের মন্তব্য করতে পারেন ?

যদিও বিরোধীদের প্রবল চাপে পরে অবশ্য ক্ষমা চেয়েছেন নার্গিস। কিন্তু তাতে শাসকদলের অস্বস্তি অবশ্য ঢাকা পড়েনি। যে মমতা বন্দ্যেপাধ্যায় কথায় কথায় অন্য দলকে শবক শেখান সেই মমতার দলেরই একজন বিধায়ক এই ধরনের মন্তব্য করেন কীভাবে ? সবচেয়ে লজ্জাজনক ঘটনা নার্গিস বেগম মুসলিম সমাজের এক মহিলা । আর তিনি যাঁকে আক্রমণ করছেন তিনিও মুসলিম মহিলা । ধর্ম নিয়ে প্রশ্ন নয় । তবে ধর্মের অবশ্যই গুরুত্ব আছে । কারণ আজ সমগ্র দেশজুড়ে মুসলিম সমাজকে কাঠগড়ায় তোলা হচ্ছে । ঠিক সেই সময় এই ধরনের আচরণ কোনোভাবেই কাম্য নয় ।

তবে এর জন্য কম দায়ী নন তৃণমূল নেতৃত্বও । কারণ তাঁর সংখ্যালঘু সমাজ থেকে সেই সব মানুষ বিধায়ক-সাংসদ করছেন যাদের চরিত্র এটাই । মানুষের সঙ্গে ভাল আচরণ করেন , জনসংযোগ আছে , কিংবা বিনয়ী, নম্র ব্যবহার করেন , সবাইকে সম্মান দিয়ে কথা বলেন সেই শিক্ষিত-মার্জিত মুসলিম নারী-পুরুষদের দেখতে পান না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মত এক জন জনপ্রিয় নেত্রী । তবে একথা ঠিক আগামী বিধানসভা নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিঃসন্দেহে তাঁর দলের বিধায়ক পদের প্রার্থী হিসাবে শিক্ষিত-মার্জিত-বিনয়ী ব্যক্তিদেরকে অগ্রাধিকার দেবেন বলে আমার বিশ্বাস ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment