আন্তর্জাতিক 

করোনাভাইরাসে চিনে মৃত্যু সংখ্যা ৮০০ ছাপিয়ে গেল , চিকিৎসা পরিষেবা নিয়ে ক্ষুদ্ধ সাধারণ মানুষ বিক্ষোভে সামিল

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল চিনে ৮০০ জনের । পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে ২০০২-’০৩ সালের সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিন্ড্রোম-এ (সার্স) আক্রান্ত মৃত্যুর সংখ্যাকেও ছাপিয়ে গিয়েছে। ওই সময় সার্স-এর হানায় বিশ্ব জুড়ে মৃত্যু হয়েছিল ৭৭৪ জনের। সেখানে তিন মাসেরও কম ব্যবধানে শুধুমাত্র চিনের করোনাভাইরাসের হানায় মৃত্যুর সংখ্যাটা ৮০০ ছাড়িয়ে গিয়েছে।

আক্রান্তের সংখ্যাও বাড়ছে হু হু করে। এখনও পর্যন্ত সরকারি হিসাবে সংখ্যাটা ৩৭ হাজার ২০০, বেসরকারিভাবে তা লক্ষাধিক। গত ২৪ ঘণ্টায় ৮৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৬৫৬ জন। চিনের জাতীয় স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, গত কয়েক দিনে যে হারে আক্রান্তের সংখ্যাটা বাড়ছিল গত ২৪ ঘণ্টায় সেই সংখ্যাটা অনেকটাই কমেছে। চিনের বাইরেও আক্রান্তের সংখ্যাটাও নেহাত কম নয়। প্রায় ৩০০। তার মধ্যে এই প্রথম চিনে দুই বিদেশি নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে করোনার হানায়।এক জন মার্কিন নাগরিক। অন্য জন জাপানের। অন্য দিকে, ফিলিপিন্সে মৃত্যু হয়েছে এক চিনা নাগরিকের।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) সাম্প্রতিক রিপোর্টে বলা হয়েছে, গত চার দিনে হুবেই প্রদেশে পরিস্থিতি একটু আয়ত্তে এসেছে। তবে পাশাপাশি হু এই সতর্কবার্তাও দিয়েছে, পরিস্থিতি খানিকটা নিয়ন্ত্রণে এলেও আশঙ্কার মাত্রাটা কোনও ভাবেই কমেনি। মৃত্যু বা আক্রান্তের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলেও ওই রিপোর্টে বলা হয়েছে।

চিন প্রশাসন সূত্রে দাবি করা হয়েছে, আক্রান্তদের মধ্যে গত কয়েক দিনে প্রায় আড়াই হাজার মানুষ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। শনিবারে আরও ৬০০ জনকে চিকিত্সার পর ছেড়ে দেওয়া হয়। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে চিন সরকারের ভূমিকায় যদিও প্রবল ক্ষুব্ধ সে দেশের মানুষ। বিক্ষোভটা বেড়েছে শুক্রবার এক চিকিত্সকের মৃত্যু প্রকাশ্যে আসার পর। লি ওয়েনলিয়াং নামে উহানের ওই চিকিত্সক করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন অনেক আগেই। অভিযোগ, তাঁর সেই সতর্কবাণীকে খুব একটা গুরুত্ব দেয়নি স্থানীয় প্রশাসন। করোনায় আক্রান্ত এক রোগীর চিকিত্সা করতে গিয়ে লি নিজেও আক্রান্ত হন। পরে মৃত্যু হয় তাঁর। তবে চিনের অন্দরে ক্ষোভ তৈরি হলেও করোনা ঠেকাতে সরকারের তত্পর পদক্ষেপের প্রশংসা করেছে আন্তর্জাতিক মহল। সার্স-এর সময় বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেছিল চিন। ফলে আন্তর্জাতিক সমালোচনা মুখে পড়তে হয় তাদের। তবে করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রে কোনও ঝুঁকি নিতে চায়নি তারা, অন্তত তেমনই দাবি চিনের এক প্রশাসনিক সূত্রের।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment