কলকাতা 

কলকাতায় সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীর গণধর্ষণ কান্ডে ধৃত চারজনের ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পুলিশ হেফাজত ; জড়িত থাকার সন্দেহ আজ গ্রেফতার বাড়ির মালিকও

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : ভাগ্যিস ইকবালপুরের ধর্ষণকান্ডে কোনো মুসলিম ছেলে জড়িত নেই । এমনকি যে বাড়িতে ধর্ষণ করা হয়েছে ওই নাবালিকাকে সেই বাড়িটিও কোনো মুসলিমের নয় । না হলে ! ভয়ংকর বিপদ সামনে আসত । এতক্ষণে হয়তো এনআইএ এসে হাজির হয়ে যেত । কিন্ত দুঃখের হলেও সত্য সপ্তম শ্রেণির ওই ছাত্রীর ধর্ষণকান্ডে অভিযুক্তরা সবাই অমুসলিম । গতকাল ধর্ষণের অভিযোগে চারজনকে গ্রেফতার করা হলেও , আজ একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে । এই মামলায় মোট ৫জনকে গ্রেফতার করা হল ।অভিযোগ উঠেছে বাড়ির মালিকও ধর্ষণ কান্ডে মদত দিয়েছে ।

উল্লেখ্য ,গত বৃহস্পতিবার রাতে পরিকল্পনামাফিক ওই কিশোরীকে একবালপুর এলাকার ভূ-কৈলাস রোডের বাড়িতে ডেকে যৌন নির্যাতন করা হয় বলে পুলিশ প্রাথমিক তদন্তে জানতে পেরেছে।ঘটনায় চার যুবকের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে। ওই চার জনের মধ্যে এক যুবক কিশোরীর খুবই পরিচিত। পুলিশ সূত্রে খবর, ওই যুবকের কথাতেই ছাত্রীটি একবালপুরে গিয়েছিল। অভিযোগ, কিশোরী যাওয়ার আগে থেকেই দুই যুবক মত্ত অবস্থায় ছিল। সে পৌঁছতে তাকেও জোর করে মদ খাওয়ানো হয় বলে অভিযোগ। যে বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে, তার মালিক ওই সঞ্জয় মির্ধা।

ওই রাতে মেয়ে বাড়ি ফিরছে না দেখে, পর্ণশ্রী থানায় নিখোঁজের অভিযোগ করে তার পরিবার। শুক্রবার সকালে ওই কিশোরী পর্ণশ্রী থানায় এসে ঘটনাটি পুলিশকে জানায়।পুলিশ একটি ‘জিরো’ এফআইআর দায়ের করে তদন্ত শুরু করে। শুক্রবার বিকেলে পর্ণশ্রী, একবালপুর এবং দক্ষিণ বন্দর থানার পুলিশকে নিয়ে তৈরি হয় যৌথ তদন্তকারী দল। গ্রেফতার করা হয় চার অভিযুক্তকে।পকসো (প্রোটেকশন অফ চিলড্রেন ফ্রম সেক্সুয়াল অফেসেন্স) আইনে  গণধর্ষণের মামলা রুজু করা হয়েছে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, চার অভিযুক্তের মধ্যে অমরজিৎ চৌপাল এবং মনোজ শর্মা পর্ণশ্রী এলাকার বাসিন্দা। বাকি দু’জন বিকাশ মল্লিক এবং ঋত্বিক রাম একবালপুরের। এ দিন তাদের আলিপুর পকসো আদালতে তোলা হলে ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment