জেলা 

রাস্তা তৈরিতে বাধা দেওয়ার ‘অপরাধে’ পায়ে দড়ি বেধে শিক্ষিকাকে হেনস্থা তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েতের উপ-প্রধানের , ভিডিও ভাইরাল হতেই রাজ্য জুড়ে চাঞ্চল্য , সাসপেন্ড উপ-প্রধান

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : নিজের জমির উপর দিয়ে সম্পূর্ণ রাস্তা তৈরি করতে বাধা দেওয়ার জন্য এক শিক্ষিকাকে প্রকাশ্যে রাস্তায় হেনস্থা করল তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েদের উপ-প্রধান ।পায়ে দড়ি বেঁধে রাস্তার উপর দিয়ে হেঁচড়াতে হেঁচড়াতে শিক্ষিকাকে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে । থানা প্রথমে অভিযোগ তো নিতে চায়নি, উল্টে তাঁর বিরুদ্ধেই অভিযোগ দায়ের হয়েছিল, অভিযোগ আক্রান্ত শিক্ষিকার। ঘটনাটি গত শুক্রবার ঘটেছে দক্ষিণ দিনাজপুরের গঙ্গারামপুর থানা এলাকায় ।

জানা গেছে ,গোলমালের সূত্রপাত একটি রাস্তা তৈরিকে কেন্দ্র করে। নন্দনপুর থেকে হাপুনিয়া পর্যন্ত রাস্তা তৈরির কাজ চলছে। যে শিক্ষিকাকে হেনস্থা করার ভিডিয়ো সামনে এসেছে, তিনি জানিয়েছেন, ‘‘আমি ১২ ফুট চওড়া জমি ছাড়তে চেয়েছিলাম। বলেছিলাম বাকি ১২ ফুট অন্য পাশ থেকে নিতে। কিন্তু পঞ্চায়েত ২৪ ফুট রাস্তাই আমার জমির উপর দিয়ে বানাবে। তাতে আমি বাধা দেওয়ায়, উপপ্রধান অমল সরকার এবং তাঁর লোকজন আমাকে আর আমার দিদিকে রাস্তায় ফেলে মারধর করল। পায়ে দড়ি বেঁধে রাস্তা দিয়ে টানতে টানতে নিয়ে গেল।’’

যে ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়েছে, তাতে দেখা গিয়েছে, একটি নির্মীয়মাণ রাস্তার উপরে বসে রয়েছেন দুই মহিলা। অনেকে তাঁদের ঘিরে রয়েছেন। তার পরে একটি ট্রাক্টর নিয়ে এসে প্রথমে তাঁদের ভয় দেখানোর চেষ্টা হচ্ছে। কিন্তু ট্রাক্টর দেখেও তাঁরা না ওঠায়, বেশ কয়েক জন মিলে চড়াও হচ্ছেন এক মহিলার উপরে। দড়ি দিয়ে বেঁধে ফেলা হচ্ছে তাঁর দুটো পা। তার পরে চ্যাংদোলা করার ভঙ্গিতে দু’টো হাত ধরে রাস্তার উপর দিয় হেঁচড়াতে হেঁচড়াতে নিয়ে গিয়ে একটি টিনের ঘরের সামনে বেঁধে রাখা হচ্ছে তাঁকে। এর পরে রাস্তার উপরে বসে থাকা দ্বিতীয় মহিলাকেও টেনে-হিঁচড়ে সেখানে এনেই ফেলা হচ্ছে। এই দ্বিতীয় মহিলাকে বাঁধা হয়নি বলে তিনি ফের রাস্তায় নেমে যাচ্ছেন। তখন আছাড় মেরে তাঁকে রাস্তার ধারে ফেলে দেওয়া হচ্ছে। তার পর লাঠি দিয়ে মারা হচ্ছে। সঙ্গে চলছে অশ্রাব্য গালিগালাজ।

ভিডিয়োটি ছড়িয়ে পড়ার পরে স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, যে মহিলাকে বেঁধে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল, তিনি একটি স্কুলের পার্শ্বশিক্ষিকা। আর দ্বিতীয় যে মহিলাকে দেখা গিয়েছে, তিনি ওই পার্শ্বশিক্ষিকার দিদি।

আক্রান্ত শিক্ষিকার দাবি, পুলিশ প্রথমে তাঁর অভিযোগ নিতে চায়নি। উল্টে শান্তিভঙ্গের নালিশের ভিত্তিতে তাঁর বিরুদ্ধেই অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিল। হাসপাতাল থেকে ফেরার পরে তিনি ফের থানায় অভিযোগ করতে যান। দ্বিতীয় বারে পুলিশ তাঁর অভিযোগ নিয়েছে।

তৃণমূল অবশ্য এই ঘটনার দায় ঝেড়ে ফেলার রাস্তায় হাঁটেনি। উপপ্রধান অমল সরকারকে সাসপেন্ড করা হয়েছে দল থেকে। বালুরঘাটের প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ তথা দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেত্রী অর্পিতা ঘোষ বলেছেন, ‘‘যে অভিযোগ ওই উপপ্রধানের বিরুদ্ধে উঠেছে, তার প্রেক্ষিতেই আমরা ওঁকে সাসপেন্ড করেছি। প্রশাসনকে বলেছি তদন্ত করে দেখুন। তদন্তে কী উঠে আসে তা দেখে আমরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব।’’

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment