দেশ 

‘‘সিএএতে গান্ধীজির ইচ্ছেকে মর্যাদা দেওয়া হয়েছে , কাশ্মীরে শ্যামাপ্রসাদের স্বপ্ন পুরণ ; আন্দোলনের নামে হিংসা দেশের মনোবল নষ্ট করে।” : রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : মহাত্মা গান্ধীর নির্দেশকে মান্যতা দিতেই সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন করা হয়েছে । আজ শুক্রবার সংসদে বাজেট অধিবেশনের সূচনা করে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ একথা বলেছেন । তাঁর ভাষণে তিনি দাবি করেছেন , মহাত্মা গান্ধীর ইচ্ছাকেই মর্যাদা দেওয়ার জন্যই নাগরিকত্ব আইন সংশোধন করা হয়েছে ।

এদিন রাজ্যসভা ও লোকসভার যৌথ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ বলেন, ‘‘দেশের বিভাজনের সময় মহাত্মা গাঁধী বলেছিলেন, পাকিস্তানের হিন্দু ও শিখ শরণার্থীরা সে দেশে বসবাস করতে না চাইলে এ দেশে আসতে পারেন। ওই শরণার্থীদের আশ্রয় দেওয়াটা ভারত সরকারের কর্তব্য। আমি আনন্দিত যে সংসদের দু’কক্ষেই সিএএ পাশ করে মহাত্মা গাঁধীর সেই ইচ্ছেকে মর্যাদা দিয়েছে।’’ সিএএ-র বিরুদ্ধে দেশজোড়া বিক্ষোভের আবহে রাষ্ট্রপতির এই মন্তব্যে উচ্ছ্বসিত করতালিতে ভরিয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী-সহ বিজেপি ও তার শরিক দলের সাংসদেরা। কিন্তু, রাষ্ট্রপতির ভাষণের মধ্যেই তা নিয়ে তীব্র ধিক্কার জানাতে দেখা যায় বিরোধী সাংসদের।  তৃণমূল-সহ বহু বিরোধী সাংসদেরা সিএএ, জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) এবং জাতীয় জনসংখ্যাপঞ্জি (এনপিআর)-এর বিরুদ্ধে ব্যানার হাতে ধিক্কার দেন।

সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ করে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা খর্ব করার পর জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখে মানুষজন যে দেশের অন্যান্য প্রান্তের মতোই উন্নয়নের সুফল লাভ করছেন, তা-ও উল্লেখ করেন রাষ্ট্রপতি। তিনি বলেন, ‘‘সাত দশক পর কাশ্মীরে শ্যামাপ্রসাদের স্বপ্নপূরণ হয়েছে।’’

কাশ্মীর প্রসঙ্গ ছাড়াও আগামিকালের কেন্দ্রীয় বাজেটের আগে এ দিন রাষ্ট্রপতির ভাষণে মোদী সরকারের উন্নয়নমূলক কাজকর্মের কথাও উল্লেখ করে রামনাথ কোবিন্দ। দেশের উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলির উন্নয়নে কেন্দ্রের বিশেষ নজর রয়েছে বলেও জানান তিনি। বোরো চুক্তির মাধ্যমে তা রূপায়ণে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ করা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ। দেশকে আরও মজবুত করার জন্য সরকার ৫ লক্ষ কোটি ডলারের অর্থনীতির লক্ষ্যমাত্রা পূরণে বদ্ধপরিকর বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এ দিনের ভাষণে সিএএ-বিরোধী আন্দোলনে হিংসার প্রসঙ্গেও মন্তব্য করেন রাষ্ট্রপতি। তিনি জানান, আন্দোলনে হিংসাত্মক রূপ দেশের মনোবলকেই ভেঙে দেয়। রাষ্ট্রপতির কথায়, ‘‘আলোচনা ও বিতর্ক গণতন্ত্রকে মজবুত করে। কিন্তু আন্দোলনের নামে হিংসা দেশের মনোবল নষ্ট করে।”

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment