কলকাতা 

পদ্মশ্রী সম্মানে সম্মানিত হলেন আমাদের মাসুমদা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সেখ ইবাদুল ইসলাম : আমরা গর্বিত বাংলার সন্তান তথা আমাদের কাছের মানুষ কাজী মাসুম আখতার ভারতের অন্যতম প্রথম সারির জাতীয় সম্মান পদ্মশ্রী পেলেন । বাঙালি মুসলিম পরিবারের সন্তান মাসুম আখতার যাদবপুরের এক উচ্চ-মাধ্যমিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক । পেশায় শিক্ষক হলেও নেশায় সমাজসেবী । সাধারন মানুষের উন্নয়নের জন্য তিনি প্রতিনিয়ত চিন্তাভাবনা করে থাকেন । সমাজকে নিয়ে ভাবেন । বিশেষ করে মুসলিম সমাজের উন্নয়নের জন্য তিনি চেষ্টা করে যাচ্ছেন । এর আগে রাজ্য সরকারের শিক্ষারত্ন সম্মান তিনি পেয়েছেন । একদা বামপন্থী মানসিকতা সম্পন্ন সমাজভাবনায় উদ্দীপিত কাজী মাসুম আখতার সব সময় প্রতিবাদী মুখ হিসাবে বিরাজ করছেন । তিনি কথা বলেন স্পষ্ট । তোষামোদ করেন না । মিল্লাতের নাম করে যারা সমাজকে ঠকাচ্ছেন , প্রতারণা করছেন তাদের বিরুদ্ধে মাসুমদা সব সময় কথা বলেছেন । যে কথা বলতে আমাদের বাধে সেই কথা তিনি অকাতরে বলে দিতে পারেন। এখানেই তিনি অনন্য ।

কাজী মাসুম আখতার হাওড়া জেলার প্রত্যন্ত গ্রাম পেঁড়ো বসন্তপুরের ভূমিপুত্র । এক নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান । প্রথম থেকেই মেধাবি ছিলেন । পড়াশোনা করেছেন নিজের অদম্য ইচ্ছাকে সম্বল করে । স্কটিশচার্চ কলেজ থেকে ইতিহাসে সাম্মানিক সহ অর্নাস এবং মাস্টার করেছেন । স্কুল সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে তিনি চাকরি পেয়েছিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগণার এক গ্রামের বিদ্যালয়ে । পরবর্তীকালে মাসুম আখতার হাই-মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক হিসাবে কাজ করেছেন । এখন তিনি যাদবপুরের এক উচ্চ-মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসাবে কর্মরত । অল্প বয়সেই তিনি দেশের অন্যতম প্রথম সারির জাতীয় সম্মান পেয়ে আমাদেরকে গর্বিত করেছে । তাঁর মত মানুষ আরও বড় কিছু পাবে বলে প্রত্যাশা করি । মাসুম আখতারের যোগ্যতা –দক্ষতায় তিনি একদিন ভারতরত্ন হয়ে উঠুক এই কামনা করি ।

মাসুমদার সঙ্গে আমার পরিচয় দীর্ঘদিনের । তিনি আমাকে ভাইয়ের মত স্নেহ করেন । ভালবাসেন পরামর্শ দেন । তাঁর কঠিন সময়েও আমি তাঁর সঙ্গে ছিলাম । তবে এত বড় সম্মান পাওয়ার কথাটি মাসুমদা আমার কাছে চেপে যাওয়ায় আমি দুঃখিত । তাই খুশি হয়েও তাঁকে অভিনন্দন জানানোর জন্য ফোন করিনি।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment