কলকাতা 

এসসি/এসটি কমিশন বিল নিয়ে রাজ্যপালের ডাকা সর্বদলীয় বৈঠক বিশ বাঁও জলে ? নাকি মমতার পথ ধরেই রাজ্যপালকে এড়াতে চাইছেন আবদুল মান্নান-সুজনরা ? নেপথ্যে রহস্য কি ? জানতে হলে ক্লিক করুন

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

স্মৃতি সামন্ত : এসসি-এসটি কমিশন বিল নিয়ে জট কাটাতে রাজ্যপাল সর্বদলীয় বৈঠক আহ্বান করেছিলেন। সূত্রের খবর, যে নির্দিষ্ট দিন ওই বৈঠকের জন্য ঠিক করা হয়েছিল সেইদিন বৈঠক হচ্ছে না। রাজ্যের পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন ওই বৈঠকে উপস্থিত থাকতে পারবেন না মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি রাজ্যের বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান এবং বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তীও আগে থেকে জানিয়ে দিয়েছিলেন তাদের পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচি রয়েছে ঐদিন। সব দলের শীর্ষ নেতৃত্ব বৈঠকে না থাকলে আসলে যে উদ্দেশ্য নিয়ে বৈঠক তা ফলপ্রসূ হবে না এটা অনুধাবন করে বৈঠকের দিন বদল করতে চলেছেন রাজ্যপাল। রাজভবন সূত্রের খবর, রাজভবনের সর্বদল বৈঠক এর দিন বদল। সর্বদল বৈঠক এর দিন পরিবর্তন করলেন রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকড়। আগামী একুশে জানুয়ারি বিকেল চারটে নাগাদ সর্বদলীয় বৈঠক ডেকেছেন তিনি।


রাজ্যপালের ডাকা বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উপস্থিত হবেন না বলে আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন পরিষদীয় মন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেসের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। পাশাপাশি, দিল্লিতে পূর্বপরিকল্পিত কর্মসূচি থাকার জন্য বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান উপস্থিত হতে পারবেন না।অন্যদিকে কেরালাতে কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে থাকতে হবে বলে রাজভবন যেতে পারবেন না বাম পরিষদীয় দলের নেতা সুজন চক্রবর্তী।সে বিষয়ে রাজভবনকে বাম-কংগ্রেস উভয়পক্ষই অবগত করে।‌

সূত্রের খবর, তারপরেই বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নানকে ফোন করেন রাজ্যপাল। সেখানে মান্নান সাহেব রাজ্যপালকে দিনবদলের আর্জি জানান। স্বাভাবিকভাবেই তিনপক্ষ উপস্থিত না হলে এই ধরনের সর্বদল বৈঠক এর গুরুত্ব থাকবে না। সেই জায়গা থেকেই সর্বদল বৈঠক দিন ১৭ জানুয়ারির বদলে একুশে জানুয়ারি করেছেন রাজ্যপাল। মূলত, গণপিটুনি বিল এবং এসসিিএসটি কমিশন বিল নিয়ে সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনার জন্যই রাজ্যপাল এই সর্বদল বৈঠক ডেকেছেন।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment