Featured Video Play Iconজেলা 

মালদহের সুজাপুরে বনধের দিন গাড়ি ভাঙচুর করছে পুলিশ ভিডিয়ো ভাইরাল রাজ্য জুড়ে চাঞ্চল্য

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক :  কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নগুলির ডাকা ভারত বনধকে কেন্দ্র আজ সমগ্র উত্তরবঙ্গ থমথমে ছিল । বিশেষ করে মালদহ বেশ কয়েকটি সরকারি গাড়িতে বনধ সমর্থকরা হামলা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে । আবার অনেক বনধ সমর্থক ও পুলিশের মধ্যে হাতাহাতিও হয়েছে । এদিকে একটি সোস্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে । সেখানে দেখা যাচ্ছে উর্দিতে থাকা পুলিশ কর্মীরা সুজাপুর মোড়ে মসজিদের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা একের পর এক গাড়িতে ইট মেরে বা লাঠি মেরে ভাঙচুর চালাচ্ছে।

ওই ভিডিয়ো প্রকাশ্যে আসার পর জেলা পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া কে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাঁকে ফোনে পাওয়া যায়নি। তবে ওই জেলার অন্য এক পুলিশ কর্তা ভিডিয়োর কথা শুনে বলেন,‘‘বিষয়টি আমার জানা নেই। ভিডিয়ো খতিয়ে দেখে আমরা বলতে পারব।”

প্রদেশ কংগ্রেসের সংখ্যালঘু সেলের সাধারণ সম্পাদক আলবেরুনি বলেন, ‘‘এই ভিডিয়োটি আমরাই সংগ্রহ করেছি। ওই ভিডিয়ো থেকে দেখুন পুলিশ পরিকল্পনা করে কী ভাবে একটা শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকে ভাঙার জন্য নিজেরাই অশান্তি পাকালো।”

তবে ওই ভিডিয়ো বুধবার বিকেলেই ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায় এবং ওই ভিডিয়োকে কেন্দ্র করে শুরু হয় রাজনৈতিক বিতর্ক। কারণ সুজাপুরের হিংসার ঘটনার পরে তৃণমূলের তরফ থেকে দায়ী করা হয়েছিল সিপিএম-কংগ্রেসকে। তৃণমূলের মালদহ জেলার কার্যকরী সভাপতি বাবলা সরকার অভিযোগ করেন,‘‘ কংগ্রেস এবং সিপিএমের উস্কানিতেই ওই হিংসা হয়েছে।” পাল্টা মালদহ জেলা কংগ্রেসের সভাপতি মোস্তাক আলম দাবি করেন,‘‘ তৃণমূল-বিজেপি পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে অশান্তি পাকিয়েছে।”

আলবেরুণি এ দিন অভিযোগ করেন, ‘‘ প্রথম থেকে আমাদের অবরোধ শান্তিপূর্ণ ছিল। পুলিশ বিনা প্ররোচনায় লাঠি-কাঁদানে গ্যাস চালায়। নিজেরাই নিজেদের গাড়ি জ্বালিয়ে আমাদের দোষী করছে। এই ভিডিয়ো সবচেয়ে বড় প্রমাণ যে পুলিশই গাড়ি ভেঙেছে।”  তিনি বলেন,‘‘ ওখানে রোজই বেশ কিছু গাড়ি থাকে। ওই গাড়িগুলো সুজাপুর থেকে মালদহ যায়। সেই গাড়ির সঙ্গে এ দিন রাস্তায় আটকে যাওয়া কিছু গাড়িও ছিল। পুলিশ সব গাড়ি এ ভাবেই ভেঙেছে।”

সৌজন্যে : ডিজিটাল আনন্দবাজার ।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment