কলকাতা 

মায়ের মাথায় হাতুড়ির আঘাত দিয়ে মেরে ফেলার চেষ্টা অধ্যাপিকা মেয়ের , খোদ সল্টলেকের এই ঘটনাকে ঘিরে বিস্মিত বাংলা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : মেয়ে মাকে হাতুড়ি দিয়ে মারছেন এই দৃশ্য খুব একটা দেখা যায় না । বিশেষ করে শিক্ষিত মেয়ে , পেশায় অধ্যাপক । সেই মেয়ে মায়ের মাথায় হাতুড়ি আঘাত করছেন , প্রতিবেশীরা সময় মতো না পৌছালে হয়তো মেরেই ফেলতো মাকে । ঘটনটি অন্য কোনো রাজ্যের নয় খোদ বাংলায় , সল্টলেকের বুকে , বাঙালি পরিবারের ঘটনা।

পুলিশ সূত্রে খবর, বেলা ২টো নাগাদ বিধাননগর দক্ষিণ থানায় ফোন করে খবর দেন আবাসনের বাসিন্দারা। ওই আবাসনের বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ওই ফ্ল্যাটটি অবসরপ্রাপ্ত ইঞ্জিনিয়র এস কে প্রতিহারের। তাঁর স্ত্রী দীপালি এবং মেয়ে বেঙ্গালুরুতে থাকেন। সেখানে মেয়ে ঋতুপর্ণা একটি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যাপিকামেয়ের কাছেই থাকতেন মা প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, এক সপ্তাহ আগে মামেয়ে কলকাতায় আসেন এবং তার পরই কোনও পারিবারিক গণ্ডগোলের জেরে বাড়ি থেকে অন্যত্র কোথাও চলে যান এস কে প্রতিহার

মঙ্গলবার মামেয়ের বেঙ্গালুরু ফেরার কথা ছিল ওই আবাসনের নিরাপত্তা রক্ষীরা পুলিশকে জানিয়েছেন, সকাল থেকেই মামেয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি, বচসার আওয়াজ পাচ্ছিলেন তাঁরা এর খানিক পরেই হঠাৎ করে মায়ের আর্ত চিৎকার শোনেন নিরাপত্তা রক্ষীরা এবং প্রতিবেশীরা তারা ওই ফ্ল্যাটের দরজা ধাক্কা দেন কিন্তু ভিতর থেকে তালা বন্ধ ছিল দরজা

এর পরেই গ্রিলের দরজার ওপারে থাকা কাঠের দরজা ভেজানো থাকায় কোনও ভাবে খুলে যায়। সেই খোলা দরজা দিয়ে নিরাপত্তা রক্ষীরা এবং প্রতিবেশীরা দেখেন ঋতুপর্ণা হাতুড়ি দিয়ে পর পর আঘাত করছেন মা দীপালির মাথায়। গোটা ঘর রক্তে ভেসে যাচ্ছে। তার মধ্যেই রক্তাক্ত মাকে টেনে পাশের ঘরে নিয়ে যাচ্ছেন বছর ৩৮এর ঋতুপর্ণা। ওই দৃশ্য দেখেই পুলিশে খবর দেন বাসিন্দারা। নিরাপত্তা রক্ষীদের সঙ্গে নিয়ে দরজা ভেঙে ভিতরে ঢোকেন প্রতিবেশীরা। ততক্ষণে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছয়

প্রতিবেশীদের দাবি, শুধু মাকে আঘাত করাই নয়, ঋতুপর্ণা ঘরের মধ্যে কয়েকটি বাক্সে আগুন লাগিয়ে দিয়েছিলেন। সেই সময় গ্যাসও খোলা ছিল। গোটা ফ্ল্যাটে আগুন ধরে যেতে পারতো প্রতিবেশীরা সময় মতো দরজা ভেঙে না ঢুকলে

পুলিশ সূত্রে খবর, আশঙ্কাজনক অবস্থায় বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন ওই মহিলা। হাসপাতালেই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয় ঋতুপর্ণাকে। কেন তিনি মাকে প্রবল আক্রোশে মারছিলেন তা এখনও স্পষ্ট নয় তদন্তকারীদের কাছে। তাঁরা ঋতুপর্ণার ব্যবহারে অসঙ্গতি পায়। অভিযুক্ত মানসিক ভাবে কতটা সুস্থ তাও খতিয়ে দেখতে  চিকিৎসকদের সাহায্য নেওয়ার কথা ভাবছিলেন তদন্তকারীরা। ঘটনার পিছনে সম্পত্তি নিয়ে কোনও পুরনো পারিবারিক অশান্তি আছে কি না, তাও খতিয়ে দেখা শুরু হয়। পুলিশ সূত্রে খবর, হাসপাতালেই আটক করে রাখা হয়েছিল তাঁকে। সেখান থেকেই পুলিশের চোখ এড়িয়ে পালিয়ে যান ঋতুপর্ণা। ঋতুপর্ণার থোঁজ শুরু করেছে তদন্তকারী দলটি

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment