আন্তর্জাতিক 

মোদী সরকার সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন তৈরি করে ,আধুনিক ভারতের দুই প্রতিষ্ঠাতা জওহরলাল নেহরু ও মহাত্মা গাঁধীর ধর্মনিরপেক্ষতার ভাবাদর্শকেও বাতিল করে দিয়েছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ মার্কিন সিআরএসের

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে শুধু ভারতে নয় , বিদেশেও ভারত সরকারের গতিবিধি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে । ইতিমধ্যে মুসলিম রাষ্ট্রগুলি সিএএ আইন নিয়ে কড়া মন্তব্য করেছে । আমেরিকার পত্র পত্রিকায় বিভিন্ন কলামে ভারত সরকারের এই আইনের সমালোচনা করা হয়েছে । আমেরিকার এক প্রখ্যাত দৈনিকে প্রবন্ধ লেখা হয়েছে যেখানে বলা হয়েছে , ভারত এখন হিন্দু রাষ্ট্রের দিকে এগিয়ে চলেছে । ওই প্রবন্ধেই নামকরা এক সাংবাদিক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক মন্তব্য করেছেন , উত্তরপ্রদেশে বিজেপির মুখ্যমন্ত্রীর যোগী আদিত্যনাথের মুসলিম বিরোধী নীতি ওই রাজ্যের মুসলিম সন্ত্রস্ত করে তুলেছে ।

এবার আর পত্র পত্রিকায় নয় , খোদ মার্কিন সরকারের রিপোর্টেই উঠে উদ্বেগের ছবি । মার্কিন কংগ্রেসের থিঙ্কট্যাঙ্ককংগ্রেসনাল রিসার্চ সার্ভিস (সিআরএস)’-এর সাম্প্রতিক রিপোর্টে এই উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছেএতে বলা হয়েছে মোদী শাসিত ভারতের ২০ কোটি মুসলিম আতংকের মধ্যে দিন যাপন করছে।ভারতে সিএএ প্রভাব নিয়ে ওই রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে মার্কিন বিদেশ দফতরের দক্ষিণ মধ্য এশিয়া বিভাগের তদারকি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি অ্যালিস ওয়েলসের মন্তব্যও

ভারতের নতুন আইন নিয়েগভীর উদ্বেগপ্রকাশ করে অ্যালিস বলেছেন, ‘‘সিএএ মতো সামাজিক ইস্যুগুলি যে শুধুই মূল্যবোধকে অগ্রাধিকার দেওয়ার ব্যাপারে ভারতের আন্তরিকতাকে ক্ষুণ্ণ করবে, তা নয়; ভারত প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার দেশগুলিতে আমরা (আমেরিকা) যে মুক্ত অবাধ স্বাধীনতার বাতাবরণ তৈরি করতে চাইছি, সেই প্রচেষ্টায় শামিল হওয়ার পথ থেকেও ভারতকে দূরে সরিয়ে দেবে।’’সরকারি ভাবে মার্কিন কংগ্রেসের রিপোর্ট না হলেও সিআরএসএর এই রিপোর্ট বানানো হয়েছে কংগ্রেস সদস্যদের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের মতামতের ভিত্তিতেই

মার্কিন কংগ্রেসের থিঙ্কট্যাঙ্কের সাম্প্রতিক রিপোর্টে বলা হয়েছে, ভারত শুধুই বিদেশি আগ্রাসনকারীদের হাতে লু্ণ্ঠিত হয়েছে, এই ভাবেই সে দেশের ইতিহাসটাকে ব্যাখ্যা করতে চাইছেন হিন্দু জাতীয়তাবাদীরা। শুধু এই ভাবেই বিষয়টিকে তাঁরা দেখছেন। দেখাতে চাইছেন। তার ফলে, তাঁরা আধুনিক ভারতের দুই প্রতিষ্ঠাতা জওহরলাল নেহরু মহাত্মা গাঁধীর ধর্মনিরপেক্ষতার ভাবাদর্শকেও বাতিল করে দিয়েছেন

রিপোর্টে লেখা হয়েছে, ‘‘বহু বিশেষজ্ঞের ধারণা, দেশের উত্তরোত্তর ঝিমিয়ে পড়া অর্থনীতি থেকে মানুষের নজর অন্য দিকে ঘুরিয়ে রাজনৈতিক সমর্থন ধরে রাখতে বিজেপি সরকার এখন আবেগের উপরেই গুরুত্ব দিচ্ছে। হাতিয়ার করছে ধর্মকে।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment