জেলা 

‘‘কোনও এনআরসি হবে না। কোনও বিভাজন হবে না। কাউকে দেশ থেকে তাড়ানো চলবে না। এনআরসি আর ক্যাব মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ’’- ক্যাব বিল লোকসভায় পাশের দিনেই হুংকার মমতার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : নাগরিকত্ব বিলের বিরুদ্ধে এবার প্রকাশ্যে গর্জে উঠলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । আজ লোকসভায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাসের পরেই বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর হুঙ্কার, ‘‘কোনও এনআরসি হবে না। কোনও বিভাজন হবে না। কাউকে দেশ থেকে তাড়ানো চলবে না। এনআরসি আর ক্যাব মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ’’। লোকসভায় যখন হই হট্টগোলের মধ্যে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাস হয়েছে, ঠিক সেই মুহূর্তে খড়গপুরের মাটিতে দাঁড়িয়ে এর বিরোধিতায় আওয়াজ তুললেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

সোমবার খড়গপুরের বিজয় উৎসবে সামিল হন মুখ্যমন্ত্রী । কয়েকদিন আগেই উপনির্বাচনে খড়্গপুর বিধানসভা বিজেপির কাছে কেড়ে নিয়েছে মমতার তৃণমূল । সেই উপলক্ষে আজ মুখ্যমন্ত্রী সেখানে কৃতজ্ঞতা সভা করেন । সেই সভায় মমতা  বলেন, ‘‘কোনও এনআরসি হবে না। কোনও বিভাজন হবে না। কাউকে দেশ থেকে তাড়ানো চলবে না। এনআরসি আর ক্যাব মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ। আসামে এনআরসির নাম করে লক্ষাধিক হিন্দু ভারতীয়র নাম বাদ পড়েছে। জনতাকে ভাগাভাগি করবেন না। দেশ ভাগ করবেন না’’। এরপর বিজেপিকে নাম না করে মমতার আক্রমণ, ‘‘যারা দেশ ভাগ করতে চায়, সেই ফেট্টিবাজদের জায়গা বাংলা নয়। এনআরসি , ক্যাব নিয়ে ভয় পাবেন না। আমরা আছি। আমরা থাকাকলীন কারও ক্ষমতা নেই, আপনাদাদের উপর কেউ জোর করে কিছু চাপাবে’’। ‘এনআরসি আতঙ্কে বাংলায় মৃত্যু’র প্রসঙ্গে মমতা বলেন, ‘‘ ফেট্টিবাজদের কথায় দু:খ পেয়ে যাঁরা মারা যান, তাঁদের পরিবারের জন্য দু:খ হয়’’।

উল্লেখ্য, সদ্য সমাপ্ত উপনির্বাচনে এনআরসি ইস্যুকে হাতিয়ার করেই বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের গড়ে জয়ের হাসি হেসেছে মমতা বাহিনী, এমনটাই ব্যাখ্যা রাজনৈতিক মহলের একাংশের। সেই জয়ের পর এদিন খড়গপুরে গিয়ে যেভাবে এনআরসি ও ক্যাব বিরোধিতায় সরব হলেন মমতা তা রাজনৈতিক ভাবে তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন বঙ্গ রাজনীতির কারবারিরা।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment