অন্যান্য দেশ 

ন্যায়ের পথে ন্যায়পরায়ণ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার যে স্বপ্ন জওহরলাল নেহেরু দেখেছিলেন আজ তার নিধনযজ্ঞ শুরু হয়েছে : ড. আবদুস সাত্তার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দেশজুড়ে বিজেপিআরএসএসের তথাকথিত দেশভক্তদের উল্লাসে ধর্মনিরপেক্ষ আদর্শে বিশ্বাসী মানুষরা দিশেহারা তবে আশার আলো হিসাবে দেখা দিয়েছে মহারাষ্ট্র হরিয়ানা বিধানসভার ফলাফল সাধারন মানুষ যে আরএসএসবিজেপির কথিত দেশভক্তির চেয়ে রুটিরুজির দিকে বেশি নজর দিতে চাইছে তার সংকেত হল এই নির্বাচনের ফলাফল কিন্ত তা সত্ত্বে বলা যাবে না গেরুয়াপন্থীদের দাপট কমে গেছে , বরং বলা যেতে পারে তারা হোঁচট খেয়েছে মাত্র তাদের আদর্শ নীতি এখনও জারি রয়েছে কীভাবে এল হিন্দুত্বের শ্লোগান নিয়ে দেশের রাজনীতিতে আরএসএসের দাপট ? এর নেপথ্যে কোন কোন রাজনৈতিক দল গোপনে বা প্রকাশ্যে বিজেপিকে মদত দিয়েছে আরএসএসবিজেপির শিকড় কীভাবে ধর্মনিরপেক্ষ ভারতবর্ষে প্রবেশ করল তা নিয়ে কলম ধরেছেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ , রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী প্রদেশ কংগ্রেসের সাধারন সম্পাদক . আবদুস সাত্তার বাংলার জনরব নিউজ পোর্টালে তা ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হবে আজ  সপ্তম কিস্তি প্রকাশিত অংশের পর

ঔপনিবেশিক ব্রিটিশ শাসক কূট-কৌশলে শাসন ও শোষণের লক্ষ্যে সাম্প্রদায়িক বিভাজনের রাজনীতিকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপদানে সক্ষম হয়েছিল । এ এক ঐতিহাসিক সত্য । ইংরেজ উপনিবেশ ছেড়ে চলে যাওয়ায় , দেশভাগ , ক্ষমতার হস্তান্তর হয়েছে । স্বাধীন ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র হিসাবে ভারত সাংবিধানিক বিধিবদ্ধতাকে অঙ্গীকার করে ৭২ বছর পূর্বে যাত্রা শুরু করেছে । কিন্ত যন্ত্রণার হলেও সত্য যে , ঔপনিবেশিক শাসকদের ছেড়ে যাওয়া ইতিহাসের সেই সুপরিচিত বিভাজন করো । শাসন করো স্বাধীন ভারতে বিরামহীনভাবে পুনরাবৃত্ত হয়ে চলেছে । অতীত ইতিহাসের ভুলের পুনরাবৃত্তি ঘটেই চলেছে । ছলে-বলে কৌশলে , আদর্শহীন আপোষ – সমঝোতার  রাজনীতিতে বর্তমান সময়ে কী এক কঠিন আকার ধারণ করেছে ? দেশপ্রেমের ছদ্মবেশে সাংস্কৃতিক উগ্র জাতীয়তাবাদের শেকড় নাভিমূলে গভীরভাবে প্রোথিত হয়ে যাচ্ছে । শাসক আসে , শাসক যায় কিন্ত মনুষ্যত্ব হরণকারী এই খেলার কোনো বিনাশ হয় না । পরিণতি ‘ মানুষের হাতে মানুষ হতেছে নাজেহাল ‘। আবার , কেন্দ্রে ও রাজ্যে বিভাজনের একই মতাদর্শের  সরকার থাকলে দাঙ্গার প্রকোপ ও ভয়াবহতা বহুগুণে বেড়ে যায় । গুজরাটের গোধরা তার এক অমানবিক , নিষ্ঠুর দৃষ্টান্ত । পরিণতিতে আক্রান্ত হচ্ছে সংবিধান প্রদত্ত নাগরিক অধিকার , সমানাধিকার , মানুষ হিসাবে বেঁচে থাকার ন্যুনতম মৌলিক অধিকার । ন্যায়ের পথ আগ্রাসী বিভাজনকারী শক্তির ক্ষমতার আস্ফালনে দিনের পর দিন মানুষের জীবন-জীবিকা প্রতিনিয়ত সংকটাপন্ন হচ্ছে। অসহায়তা , কান্নাও শেষ পর্যন্ত নীরবতার কোলে বাধ্যতামূলক অবলম্বন হয়ে আশ্রয় নেয় । ক্ষমতা যুদ্ধে শালীনতার লেশটুকু মাত্র আর থাকছে না ।

ন্যায়ের পথে ন্যায়পরায়ণ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার যে স্বপ্ন জওহরলাল নেহেরু দেখেছিলেন আজ তার নিধনযজ্ঞ শুরু হয়েছে । ‘দাঙ্গার ক্ষত , ‘দগ্ধ হৃদয় ‘ নিয়ে দেশের  ১৮ কোটি সংখ্যালঘু মানুষ অস্তিত্বের প্রশ্নে আজো অসহায় , ন্যায় বিচারের আশ্রয় প্রার্থী । এমন কী বহু রাজ্যে পুলিশ-প্রশাসনের একদেশদর্শী মনোভাবের কারণে দাঙ্গায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষেরা ঠিক মতো এফআইআর-ও করতে পারেন না । এফআইআর-এর সেই ছিদ্রপথেই বিচারের বাণী পথ খুঁজে পায় না । রাষ্ট্রীয় কল্যাণে, নির্দেশনায় এফআইআর-এ নাম না থাকলে দাঙ্গায় ক্ষতিগ্রস্তরা নাকি ক্ষতিপূরণ পাবে না ! দরিদ্র , নিপীড়িত , লাঞ্ছিত , শোষিত মানুষের জন্য শাসকের কান্না আর ভিজে স্নিগ্ধ হয় না । সব ‘ রা ‘ উবে গেছে । রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে কমিটি –কমিশন , প্রতিবেদন প্রকাশিত হয় । ধূলোর আস্তরণ জমতে থাকে । কিন্ত মনুষ্যবিদারী এই শক্তির কোনো বিরাম নেই , শতাব্দী প্রাচীন বিষয়গুলিকে দেশপ্রেমের মোড়কে সাংস্কৃতিক উগ্র জাতীয়তাবাদের ছদ্মবেশে নিত্য-নতুন পথে , নিত্য নতুনভাবে যোগিত্বের বেশে জনমানসের কাছে হাজির করা হচ্ছে । পরিকল্পিতভাবে এমন একটি বাতাবরণ ,পরিবেশ তৈরি করা হচ্ছে যেখানে স্বতন্ত্র অঞ্চল , ধর্মীয় ও জীবন যাপনের পার্থক্যগুলিতে আগ্রাসী, বিদ্বেষী রাজনীতির অঙ্গে রূপান্তরণের এক ভয়ঙ্কর তিমির বিনাশী প্রমত্তলীলা চলছে । জাতীয়তাবাদের এই নবনির্মাণে সাম্প্রদায়িকতার পথ প্রশস্ত হয়ে ভুবনবিদারী হয়ে উঠেছে ।

স্বাধীনতা সংগ্রামী, ভারত অন্বেষণের অগ্রপথিক ও প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরু ‘ ভারতমাতা’র ভাবমূর্তির সঙ্গে জাতীয়তাবাদীদের আবেগ-সংশ্লেষ নিয়ে তাঁর আত্মজীবনীতে যা লিখেছেন তা সাংস্কৃতিক জাতীয়তাবাদে নতুন নতুন সংজ্ঞাদানের বিষয়টি বুঝতে আজও আমাদের সাহায্য করতে পারে । অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরি ‘ জাতীয়তাবাদ , সাম্প্রদায়িকতা ও জনগণের মুক্তির প্রশ্নে ‘ শীর্ষক গ্রন্থে বিষয়টি সম্পর্কে লিখেছেন ,‘ তাঁর কাছে মনে হয়েছে এই মূর্তিটি ( ভারতমাতার মূর্তি ) হচ্ছে সুন্দরী এক মহিলার । যিনি অতি প্রাচীন কিন্ত চেহারায় সব সময়ই নবীন । চোখ দুটি তাঁর বিষন্ন ও নিঃসঙ্গ , বিদেশী ও বহিরাগতদের দ্বারা নিষ্ঠুরভাবে পীড়িত হয়েছেন ,নিজ সন্তানদেরকে তিনি ডাকছেন তাঁকে নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য । এই ধরনের একটা ভাবমূর্তি হাজার হাজার ভারতবাসীকে আবেগে আকূল এবং সংগ্রাম ও আত্মত্যাগে উদ্বুদ্ধ করেছে । নেহেরুর মনে প্রশ্ন জেগেছে , এই মূর্তিটি কী স্বয়ং সম্পূর্ণ ? কেন না চোখের সামনে কৃষক ও শ্রমিকদের যে ভারতকে তিনি দেখতে পেয়েছেন তা মোটেই সুন্দর নয় : দারিদ্রের কোনো সৌন্দর্য নেই , তাঁর মনে জিজ্ঞাসার উদয় হয়েছে ‘ কল্পনার ওই সুন্দরী মহিলা কি মাঠের কারখানার বস্ত্রহীন ন্যূব্জ মেহনতিদের প্রতিনিধি  ?’….. তাঁর মনে হয়েছে যে , শিক্ষিত মানুষেরা যা করেছে তা হল একটি কাল্পনিক মূর্তি দিয়ে সত্যকে ঢেকে ফেলা, বাস্তব জগত থেকে পালিয়ে স্বপ্নের জগতে আশ্রয় নেওয়া । ( চলবে )


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment