আন্তর্জাতিক 

দারিদ্রের ফাঁদে কীভাবে মানুষ আটকে পড়ে সেটা জানতেই আমার গবেষণায় আসা : অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক :  বাঙালি অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় নোবেল পুরস্কার গতকাল গ্রহণ করলেন । নোবেল পুরস্কার গ্রহণ করার পর তাঁর বক্তব্যে উঠে এল অর্থনীতি গবেষণা কথা । দরিদ্র মানুষকে সামনের সারিতে আনার কথা । যাঁরা তাঁর অর্থনীতি গবেষণা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তাঁদেরকেই পাল্টা চ্যালেঞ্জ জানালেন এবছরের নোবেল পুরস্কার প্রাপকের মঞ্চ থেকে অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায় ।

ভারতীর সংস্কৃতিকে তাঁর পোশাকে ঠাঁই দিয়েছিলেন । কুর্তা পাজামা ও নেহেরু জ্যাকেট পরে ভাষণ দিতে গিয়ে অভিজিৎ জানালেন, তাঁরা একই পরীক্ষা অনেকগুলো জায়গায় করে দেখেন, যে ফলাফল পাওয়া যাচ্ছে, সেটা কি সর্বত্রই সত্যি, নাকি দু’-একটা জায়গায় ঘটছে মাত্র?

তাঁদের কাজের ক্ষেত্রে মানুষ জরুরি। কোন মানুষ? অভিজিৎ জানালেন, গবেষণায় তাঁরা দেখেছেন, যাঁরা বেশ পরচর্চা করেন, স্বভাবে আড্ডাবাজ, জরুরি খবর ছড়িয়ে দেওয়ার কাজে তাঁরা ভারী কার্যকর। কর্নাটকে টিকাকরণ সংক্রান্ত এক গবেষণায় দেখা গেল, সবাই যাঁকে ভরসাযোগ্য বলে চেনে, তাঁকে কাজে লাগালে যত শিশুর টিকাকরণ হচ্ছে, এক জন মিশুক লোককে কাজে লাগালে টিকাকরণের হার দাঁড়াচ্ছে তার দ্বিগুণ।

তাঁর এই ব্যাখ্যা শুনে শ্রোতারা যখন হেসে কুটোপাটি, অভিজিৎ তখনই আসল বোমাটা ফেললেন। “মূলধারার অর্থনীতি আমাদের এই অবধি আনতেই পারবে না। সেখানে আড্ডা,  গল্পগুজব, গসিপের প্রসঙ্গই উঠবে না।’’ আরসিটি যে গবেষণার ক্ষেত্রে এক অসামান্য স্বাধীনতা দেয়, মনে করাতে ভুললেন না অভিজিৎ।

“আগে শুনতাম, বড় বড় ব্যাপারস্যাপার নিয়ে অর্থনীতির কাজ— ধনতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, বাজার। আর আরসিটি করে খুচখাচ অদলবদলের কাজ।” কথাটা বলেই অভিজিৎ জানালেন, আরসিটির মাধ্যমে এখন ‘বড় সমস্যা’রও সমাধান হচ্ছে।

উন্নয়ন অর্থনীতির দুনিয়ায় কী ভাবে পৌঁছলেন তিনি, সেই প্রসঙ্গে অভিজিৎ বললেন, দারিদ্রের ফাঁদে কী ভাবে আটকে পড়ে মানুষ, সেই খোঁজেই তাঁর এই গবেষণায় আসা। বাবা গরিব ছিলেন বলেই ছেলেও গরিব, এই অবস্থারই নাম দারিদ্রের ফাঁদ। সেই ফাঁদ কেটে মানুষ মুক্তি পেতে পারে কী ভাবে, অভিজিতের গবেষণার পাখির চোখ সেটাই।

গরিবের হাতে টাকা দিলে তাঁরা আরও অলস হয়ে পড়েন? এই বিশ্বাসকে সরাসরি চ্যালেঞ্জ জানিয়েছিলেন অভিজিৎ। বললেন, “খুব সামান্য টাকার লগ্নিও মানুষের জীবনকে আমূল পাল্টে দিতে পারে। আমরা গরিব মানুষকে অল্প টাকা দিয়েছিলাম। তাঁরা সেটা থেকে অনেক অর্জন করতে পেরেছেন।” গরিব মানুষকে এক বার এগিয়ে দিতে পারলে তাঁদের বেশির ভাগই যে নিজেদের লড়াই লড়ে যেতে পারেন, অভিজিৎ এই বিশ্বাসে অটল।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment