দেশ 

তেলেঙ্গানায় এনকাউন্টার কান্ডে নিহত চার জনের লাশকে সোমবার পর্যন্ত সংরক্ষণের নির্দেশ দিল হাইকোর্ট ; চরম অস্বস্তিতে তেলেঙ্গানা সরকার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : তেলেঙ্গানায় এনকাউন্টার কান্ডে বেকায়দায় পড়ল পুলিশ । আজ তেলেঙ্গানা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ চার অভিযুক্তের দেহ সংরক্ষণের নির্দেশ দিল ।  আদালত ময়নাতদন্তের ভিডিয়ো রেকর্ডিংও করে রাখতে বলেছে। একটি জনস্বার্থ মামলার আবেদনের শুনানিতে ওই রায় দিল তেলঙ্গানা হাইকোর্ট।

শুক্রবার হাইকোর্টের নির্দেশ, ওই এনকাউন্টারে নিহত চার অভিযুক্তের দেহ আগামী সোমবার রাত ৮টা পর্যন্ত সংরক্ষণ করতে হবে। হাইকোর্টের দুই সদস্যের একটি বেঞ্চ জানিয়েছে, দেহ সংরক্ষণ করা ছাড়াও শনিবার সন্ধ্যার মধ্যে আদালতের রেজিস্ট্রার জেনারেলের কাছে ময়নাতদন্তের ভিডিয়ো রেকর্ডিং জমা দিতে হবে পুলিশকে। সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় এই মামলার শুনানি শুরু হবে।

গত ২৭ নভেম্বর তেলঙ্গানায় এক তরুণী চিকিৎসককে গণধর্ষণ ও খুনের পর থেকেই ওই ঘটনা নিয়ে উত্তাল গোটা দেশ। এই আবহে গত কাল ভোরে পুলিশের গুলিতে নিহত হয় মহম্মদ আরিফ (২৬), জল্লু শিবা (২০), জল্লু নবীন (২০) এবং চিন্তাকুন্তা চেন্নাকেশবুলু (২০) নামে চার অভিযুক্ত। পুলিশের দাবি, গণধর্ষণ ও খুনের ঘটনার পুনর্নিমাণ করতেই শুক্রবার রাত সাড়ে ৩টে নাগাদ তাদের শাদনগরে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে ভোর পৌনে ৬টা নাগাদ পুলিশের রিভলভার ছিনিয়ে নিয়ে গুলি চালাতে শুরু করে দুই অভিযুক্ত। বাকিরাও পুলিশকর্মীদের লক্ষ্য করে পাথর ছুড়তে থাকে। সে সময়ই পুলিশ তাদের গুলি করে। ঘটনাস্থলেই নিহত হয় চার অভিযুক্ত। ওই কাণ্ডে প্রশ্নের মুখে পড়ে পুলিশের ভূমিকা। যদিও সাইবারাবাদের পুলিশ কমিশনারের দাবি, আত্মরক্ষার্থেই অভিযুক্তদের গুলি করা হয়। সেই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘আইন তার কর্তব্য পালন করেছে।’’

পুলিশ সূত্রে খবর, গত কাল রাত সাড়ে ৮টার মধ্যে ময়নাতদন্ত শেষ হওয়ার কথা ছিল। এর পর রাত ১০টার মধ্যেই অভিযুক্তদের দেহের শেষকৃত্য সম্পন্ন হওয়ার কথা ছিল। তবে গত কাল ১৫ জন মহিলা-সহ মানবাধিকার কর্মীদের যৌথ আবেদনের ভিত্তিতে তা নিয়ে মামলা শুরু হয়। পুলিশি এনকাউন্টারের আইনি বৈধতা নিয়েই ওই আবেদনে প্রশ্ন তুলেছেন তাঁরা। জরুরি ভিত্তিতে এক শুনানিতে অভিযুক্তদের শেষকৃত্য স্থগিত রেখে দেহ সংরক্ষণের নির্দেশ দেয় আদালত।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment