কলকাতা 

বাংলার জনরব-এর উদ্যোগে শতবর্ষে সিদ্ধার্থ শংকর রায়কে নিয়ে আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে আলোচনা সভা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বুলবুল চৌধুরি :  স্বাধীনোত্তর ভারতে যে কয়েকজন রাজনীতিবিদ ধর্মনিরপেক্ষ আদর্শকে সামনে রেখে রাজনীতি করেছেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন পশ্চিমবাংলার সাবেক মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থ শংকর রায় । ১৯৭২-৭৭ সাল এই ৫ বছর তিনি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন । মাত্র ৫ বছরের মধ্যেই তিনি এরাজ্যের সংখ্যালঘুদের সার্বিক উন্নয়নে যে কাজ করেছেন তা নজীরবিহীন । তাঁর কাজের তুলনা এখন পর্যন্ত কোনো মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে করা যাবে না । কিন্ত তাঁর জন্ম শতবর্ষ হয়েও গেলে এই রাজ্যের সংখ্যালঘু কোনো সংগঠন তাঁকে নিয়ে কোনো আলোচনা সভা বা নিদেন পক্ষে কোনো স্মারক বক্তৃতার আয়োজনও করেনি ।

তবে বাংলার জনরব  নিউজ পোর্টাল ও সজাগ মঞ্চ নামে এক সংস্থার উদ্যোগে আগামী ৮ ডিসেম্বর আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্ক সার্কাস ক্যাম্পাসের অডিটোরিয়ামে তাঁকে নিয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হতে চলেছে । এই সভায় উপস্থিত থাকবেন রাজ্যের গ্রন্থাগার মন্ত্রী জনাব মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরি , প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র , প্রাক্তন সাংসদ ও বিশিষ্ট আইনজীবী সরদার আমজাদ আলী সহ ডান –বাম দলের নেতারা । একই সঙ্গে সিদ্ধার্থ শংকর রায়ের সঙ্গে সর্ম্পক ছিল এমন বেশ কয়েক জন সমাজকর্মী ও শিক্ষাবিদ এই সভায় উপস্থিত থাকবেন ।

সভার উদ্দেশ্য সম্পর্কে বলতে গিয়ে বাংলার জনরব নিউজ পোর্টালের সাম্মানিক সম্পাদক সেখ ইবাদুল ইসলাম বলেন , সিদ্ধার্থ শংকর রায় স্বাধীনোত্তর বাংলার প্রথম মুখ্যমন্ত্রী যিনি এই রাজ্যের সংখ্যালঘু সমাজের কাছে বার্তা দিয়েছিলেন এদেশের মাটিতে সংখ্যাগুরুদের যে অধিকার আছে , তা সংখ্যালঘুদের আছে । তিনিই প্রথম মুখ্যমন্ত্রী যিনি সংখ্যালঘু সমাজের ছেলেমেয়েদের সমাজের মূলস্রোতে ফিরিয়ে আনার জন্য সরকারি চাকরিতে ভাল সংখ্যায় নিয়োগ করেছিলেন । মাদ্রাসা শিক্ষার মানোন্নয়ন থেকে শুরু করে আজকের মাদ্রাসা বোর্ড গঠনে এবং মাদ্রাসার শিক্ষকদের স্কুল শিক্ষকদের সঙ্গে সম মর্যাদা তিনিই প্রতিষ্ঠা করে গেছেন ।

সেখ ইবাদুল ইসলাম দুঃখের সঙ্গে বলেন , তিনি বাংলার সংখ্যালঘুদের জন্য এতকাজ করে যাওয়ার পরেও শতবর্ষে কোনো সংখ্যালঘু সংগঠন তাঁকে স্মরণ করল না , এটা অত্যন্ত দুঃখের । সেই অপরাধবোধ থেকেই বাংলার জনরব ও সজাগ মঞ্চ সামাজিক দায়বদ্ধতা পালনের লক্ষ্যে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করার জন্য ৮ ডিসেম্বর সভার আয়োজন করেছে । এই অনুষ্ঠানে সকলকে স্বাগত জানিয়েছে আয়োজক সংস্থা ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment