কলকাতা 

মেটিয়াবুরুজ চলো ডাক দিলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : মেটিয়াবুরুজের আরএসএসের স্থানীয় নেতা বীরবাহাদুর সিং উপর গুলি চালানোর ঘটনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে আরএসএস ঘনিষ্ট কয়েকটি সংগঠন ইতিমধ্যে বিক্ষোভ কর্মসূচি নিয়েছে । আজ বৃহস্পতিবার এই গুলি কান্ডের বিরুদ্ধে মেটিয়াবুরুজে এক সভার ডাক দেয় বিজেপি । মুকুল রায় এবং সব্যসাচী দত্ত এই সভার প্রধান বক্তা ছিলেন । কিন্ত মুকুল রায়ের এই সভার অনুমতি পুলিশ বাতিল করে । সেই খিদিরপুরের কাছে মুকুল রায় ও সব্যসাচী দত্তের গাড়ি আটকে দেয় পুলিশ । সেখান থেকে তাঁদের ফেরত পাঠানো হয় । মুকুল রায়ের দাবি, “পুলিশ ও তৃণমূল কংগ্রেস যৌথভাবে আমাদের আটকে দেয় খিদিরপুরে। ইট, পাথর ছুড়়ে রীতিমতো আক্রমণ করা হয় বিজেপি নেতা ও কর্মীদের ওপর”। পরে সাংবাদিক বৈঠকে মুকুল রায় বলেন, “আমরা মেটিয়াবুরুজ চলোর ডাক দেব। কবে হবে তা দলে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হবে”।

বিজেপির অভিযোগ, মেটিয়াবুরুজের লিচুবাগানের বাসিন্দা বীর বাহাদুর সিংয়ের ওপর গুলি চালিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। এসএসকেএম হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে বীর বাহাদুর সিংয়ের। ইতিমধ্যে তাঁকে দেখতে হাসপাতালে ও বাড়িতে গিয়েছেন রাজ্যের বিজেপি পর্যবেক্ষক কৈলাশ বিজয়বর্গীয়, মুকুল রায়-সহ একাধিক বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব। এই ঘটনার প্রতিবাদ করতে বৃহস্পতিবার দুপুরে কেশোরাম কটন মিলের গেটের সামনে বিক্ষোভ-সভা করার কথা ছিল মুকুল রায় ও সব্যসাচী দত্তের। সভায় যাওয়ার পথে খিদিরপুরে পুলিশ তাঁদের আটকে দেয়। বিজেপি নেতৃত্বকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী-সমর্থকরা।

এদিনের সভার অনুমতিও দেয়নি পুলিশ। উত্তেজনার সৃষ্টি হয় খিদিরপুর এলাকায়। মুকুল রায় বলেন, “বিজেপি বিক্ষোভ সভা করবে বলে ডিসি পোর্টের কাছে আবেদন করেছিল। অনুমতি দেওয়া হয়নি। বরং ডিসির নেতৃত্বে মঞ্চ ভেঙা হয়েছে। যাঁরা মঞ্চ তৈরি করছিল তাঁদের তাড়িয়ে দেয় পুলিশ। আমরা ঠিক করেছিলাম যতদূর যাওয়ার যাব। ভূকৈলাশের কাছে পুলিশ আমাদের আটকে দেয়। অপর দিক থেকে তৃণমূল বাহিনী আমাদের ওপর হামলে পড়ে। ইট, পাথর ছুড়তে থাকে। ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হয়। সভা বাতিল করতে হয়”।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment