কলকাতা 

ধর্মের নামে বিভেদের চক্রান্ত চলছেঃ অধ্যাপক ইমানুল হক

শেয়ার করুন
  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

অধ্যাপক ইমানুল হক একজন অত্যন্ত  বিচক্ষণ মানুষ। অধ্যাপক হিসাবেও কলকাতা সহ শহরতলিতে তাঁর যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। রাজ্য থেকে ক্রমশ বিপন্ন হতে থাকা বাংলা ভাষার ঐতিহ্য বজায় রাখতে শহরে যে সমস্ত আন্দোলন হয় তার অন্যতম পথিকৃত তিনি। ভাষা ও চেতনা সমিতি একটি সংগঠনের অন্যতম কর্ণধার ইমানুলবাবু। রাজ্য সহ দেশের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে তাঁর অনুভূতির কথা শেয়ার করলেন বাংলার জনরব প্রতিনিধির সঙ্গে। তাঁর বক্তব্য সরাসরি নীচে তুুলে ধরা হল-

কংগ্রেস শাসনের পরে এরাজ্যে বাম শাসনের ৩৪বছরে সংখ্যালঘু এবং তপসিলিদের নিয়ে যে কৃষি আন্দোলন গড়ে উঠেছিল, আখেরে তার ফল এই দুটি সম্প্রদায়ের সন্তোষজনক নয়। বরং বলা চলে যে, কূটনীতির কূট চালে বিভেদের বেড়াজালে বাম নেতৃত্ব নিজের অগ্রগতি সুকৌশলে আটকে রাখতে পেরে ছিল।
জানা দরকার যে সময়ের ডাক সমুদ্রের জোয়ারের চেয়ে অনেক বেশি গতিশীল সেই অর্থে বঞ্চনার ছাই চাপা আগুন বাংলার মাটিতে যে ভাবে ছড়িয়ে পড়েছিল, তা কুড়িয়ে নিয়ে মমতার জয় যাত্রা শুরু।কিন্তু পাঁচ বছর যেতে না যেতেই ধর্মের নামে রাজনীতির বাইরের প্রসঙ্গ নিয়ে বিজেপি রামচন্দ্রের ঘাড়ে বন্দুক রেখে ভারত দখলে মত্ত হয়ে উঠেছে।রামচন্দ্র একটি লৌকিক মিথ । সমগ্র হিন্দু ভাবনার কেউ নয়। বরং স্বামী বিবেকানন্দ এবং রামকৃষ্ণের মিলনাত্মক ধর্ম ভাবনার মধ্য ভারতকে খুঁজে পাওয়া সম্ভব।বিজেপি জানে যে মিলনের পথে চলতে গেলে স্বামী জি অথবা রামকৃষ্ণকে সামনে এলে যত মত তত পথের প্রচারক হয়ে উঠতে হবে। সেইজন্য তারা সেই পথে না হেটে রামচন্দ্র এবং সেই সঙ্গে বহুরুপি অবলম্বন করে। বিরোধের ছএ ছায়ায় সমগ্র ভারতবাসীকে ভাগ করতে চাইছে। উঁচু -নিচু বিভাজন, হিন্দু-মুসলিম বিভাজন, আর্থিক বিভাজন।নোটবন্দীর নামে , ভারতের অর্থনীতিতে আম্বানিদের পায়ে ছুড়ে দিয়ে বিভেদ মূলক আসরকে বড়ো করে তুলতে চাইছে। মার্কিন মুলকের সঙ্গে বিজেপির বিভেদ রাজনীতি মূলত মিথ এখানে। সারা বিশ্ব জুড়ে অস্ত্র বিক্রি আসরকে বড়ো করে তুলতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মূল কাজ হল বিভিন্ন দেশের মধ্যে বিভেদ তৈরি করে রাখা ।সৌদি আরব থেকে ইজরাইল কিংবা গাজা সমস্যা থেকে উত্তর কোরিয়ার ইস্যু ।সর্বত্রই শান্তি রক্ষার নামে মার্কিন বিভেদের খেলা ।ভারতের অভ্যন্তরে বিজেপির কূটনৈতিক খেলা আরও বেশি মারাত্মক।ইতিহাসে উল্লেখিত যে রামচন্দ্রের গো মাংসে ভক্ষনে দৃষ্টান্ত পেয়ে থাকি, সেই রামচন্দ্রকে সামনে রেখে বিজেপি গরু পন্থীদের দিয়ে ভারত ভাঙার খেলায় নেমে পড়েছে। কোনো বিজ্ঞান চেতনা নেই । উন্নয়নের জন্য কোনো অর্থনীতি নেই , কেবলমাত্র ভারতকে গরুর ভারতে রূপান্তরিত করার জন্য যেন মানুষের সমস্ত ক্রিয়াকলাপ সীমাবদ্ধ। ফ্যাসিবাদ যুগে যুগে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে মাথা চাড়া দিয়ে উঠলেও বর্তমান মুহূর্তে স্বামী বিবেকানন্দ ও রামকৃষ্ণ ধর্ম ও চেতনা বাদ দিয়ে গরু এবং রামচন্দ্রকে নিয়ে ঘরে ঘরে যে বিভেদের আগুন জ্বালাতে চাইছে বিজেপি। তা রুখে দেওয়ার জন্য কংগ্রেস সমস্ত বামপন্থী দল ও অন্যন্য রাজ্যের ধর্ম নিরপেক্ষ শক্তি এবং বিশেষ করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগে সম্মিলিত ভাবে রূপায়ণ করতে হবে। নইলে একশ কোটি ভারতবাসীকে বিজেপির বিভেদ জালে জড়িয়ে যে সর্বনাশা বিভিন্ন ধর্মীয় মানুষের মধ্যে তৈরি হবে, তা ভারতকে ভেঙে টুকরো টুকরো করে দিতে পারে। একতায় বল , বৈচিত্রের মধ্য ঐক্য রক্ষা করতে হবে। বিজেপি বাদে সমগ্র ধর্ম নিরপেক্ষ রাজনৈতিক শক্তি যত তাড়াতাড়ি উপলব্ধি করবে তখন তা ভারতের পক্ষে মঙ্গলের। ধর্মীয় বিভেদের মধ্য বসে এই মুহূর্তে সেই মিলন প্রত্যাশার আগুনে ছ্যাকা খেতে সব ধর্মের নিরপেক্ষ ভারতবাসির খুব ভালো লাগে। পদ পাওয়াতেই আনন্দ , সেই তৃষ্ণা কবে মিটবে জানি না।

অনুলিখনঃ জামিতুল ইসলাম।

 


শেয়ার করুন
  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment