কলকাতা 

স্পিকারের ফোন শোভনকে ; তৃণমূলে সক্রিয় হতে চলেছেন কী দিদির কানন ?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : তৃণমূলের মূল স্রোতে ফিরে আসছেন শোভন চট্টোপাধ্যায় । সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে তাঁকে আবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রীসভাতেও দেখা যেতে পারে । জানা গেছে , মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে দলের হেভিওয়েট নেতারা শোভনের সঙ্গে কয়েক মাস ধরে যোগাযোগ রাখছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত বিধানসভার স্পীকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়কে মাঠে নামতে হয় । সংবাদ মাধ্যমে খবর , শনিবার শোভনবাবুকে ফোন করেন স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় । তাঁকে ফের সক্রিয় রাজনীতিতে ফিরতে অনুরোধ করেন স্পিকার বলে জানা গেছে । তাতে সম্মতিও দিয়েছেন শোভনবাবু। স্পিকার তাঁকে বলেছেন, শীঘ্রই শোভনবাবু যেন তাঁর সঙ্গে দেখা করেন।

শোভনবাবুও জানিয়েছেন, আগামী সপ্তাহে তাঁর সঙ্গে দেখা করবেন। প্রসঙ্গত, শুক্রবার তাঁর বন্ধু বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের ইস্তফা নাকচ করে দিয়েছেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। একইসঙ্গে বৈশাখীদেবীর অভিযোগের নিরপেক্ষ তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন পার্থবাবু। তার পরেরদিনই বিমানবাবুর ফোন এবং তাঁর অনুরোধে সাড়া দেওয়ায় শোভন চট্টোপাধ্যায়ের ফের তৃণমূলে ফেরার সম্ভাবনাকে।

কিন্তু সম্প্রতি বিজেপির মধ্যে অসন্তোষ তৈরি হয়েছে দুজনের দলে টানার জল্পনায়। বিজেপির এক শীর্ষস্থানীয় নেতা তথা সাধারণ সম্পাদক নাকি এক অধ্যাপিকার জন্য দলে ‘নো এন্ট্রি’ বলেছেন। আর এতেই শোভন-বৈশাখীর বিজেপি যোগের সম্ভাবনা কার্যত শেষ বলে মনে করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে স্পিকারের ফোন ফের তৃণমূলের দিকে ঝোঁকার ক্ষেত্রে অনুঘটকের কাজ করেছে।

বিজেপির একাংশ মনে করছে, সব্যসাচী দত্ত-শোভন চট্টোপাধ্যায়ের মতো সাংগঠনিত দক্ষ নেতারা দলে এলে তাঁদের অনুগামীরাও আসবেন। তাতে দলের সংগঠন আরও জোরদার হবে। কিন্তু যাদের রাজনৈতিক জনভিত্তিই নেই তাঁদের দলে নিয়ে কী লাভ? প্রশ্ন উঠেছে বিজেপির অন্দরেই। সেই পরিস্থিতি শনিবার স্পিকারের ফোন খুবই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment