কলকাতা 

‘দিদিকে বলো‘ এরপর ‘আমার গর্ব মমতা‘ ২০২১-র টার্গেটে প্রচারের কৌশল বদল তৃণমূলের ; প্রশান্ত কিশোরের চালে ব্যাকফুটে মুকুল-দিলীপ

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শ মত ‘ দিদিকে বলো ‘ কর্মসুচি কয়েকদিনের মধ্যেই সফল হয়েছে । লক্ষ লক্ষ মানুষ ‘ দিদিকে বলো ‘ কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছে । এতে সফল হওয়ার পর এবার নতুন এক প্রচারে নামতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস । এই নতুন প্রচার কৌশলের নাম ‘ আমার গর্ব মমতা ‘ । অনেকটা ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের সময় যেমন চা পেয়ে চর্চা , হর হর মোদী / ঘর ঘর মোদী শ্লোগান দিয়ে মোদীর প্রচারকে ভারতবাসীর ঘরে ঘরে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল । সেই কৌশলের মতই এবার আমার গর্ব মমতা শ্লোগানকে সামনে রেখে নতুন করে বাংলার মানুষের কাছে মমতার ইমেজকে তুলে ধরার চেষ্টা করছেন প্রশান্ত কিশোর ।

ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম, ইউটিউব যেখানে ইচ্ছে কমেন্ট করে দিদিকে নিয়ে গর্বের কারণ জানাতে পারবে সাধারন মানুষ। আর এর ফলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরও সাধারন মানুষের কাছাকাছি পৌছে যেতে পারবেন । এই ধরনের একের পর এক প্রচার স্পষ্ট তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ইমেজকে মূলধন করে ২০২১ সালের রণনীতি তৈরি করছেন প্রশান্ত কিশোর।

শুক্রবার তৃণমূলের তরফে একটি টুইটে জানানো হয়েছে, ‘দিদি আমাদের জন্য লড়েছেন, আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন, আমাদের জন্য নিরলস পরিশ্রম করছেন। বিশ্বজুড়ে লক্ষ লক্ষ মানুষের গর্ব আমাদের দিদি। #আমারগর্বমমতা’। কমেন্ট করে জানান কেন আপনি দিদিকে নিয়ে গর্বিত।

‘দিদিকে বলো’ আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে এবার পুরস্কারের টোপ দেওয়া হল। তৃণমূলের ফেসবুক পেজে এদিন ৬৩০৯৯৫৭৬১০- এই হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরটি দেওয়া হয়েছে৷ এই নম্বরে‘দিদিকে বলো’ কেমন লাগছে তা জানিয়ে ভিডিও পাঠাতে হবে। সেই ভিডিওগুলি থেকে সেরা ৩টি ভিডিওকে দেওয়া হবে পুরস্কার।

তবে তৃণমূলের এই প্রচারকে বিরোধীরা নিজেদের অস্ত্র বানিয়ে ফেলেছে ৷ নানা আশ্বাস সত্ত্বেও সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্রে পড়াশোনার খরচ কেন বেড়েইে চলেছে? মাদ্রাসায় কেন পর্যাপ্ত শিক্ষক নিয়োগ নেই, জঙ্গলমহলের কলেজগুলি কেন শিক্ষকের অভাবে ভুগছে?সিপিএমের ছাত্র সংগঠনের তরফ থেকে ইতিমধ্যেই হাফ ডজন প্রশ্ন তোলা হয়েছে৷ ‘দিদিকে বলো’র পাল্টা প্রচারে আলিমুদ্দিনের স্লোগান হয়েছে ‘বন্ধু হও, হাত বাড়াও’। দিদিকে ছেড়ে মোদিকে বলো’ পাল্টা স্লোগান তুলেছে গেরুয়া বাহিনী।

তবে প্রশান্ত কিশোর একের পর এক কর্মসূচি নিয়ে বিরোধীদের প্রায় এক ঘরে করে দিয়েছে । লোকসভা ভোটের পর তৃণমূলের বিরুদ্ধে যে হাওয়া ছিল তা এখন আর নেই । অনেকটাই ঘর গুছিয়ে নিতে পেরেছে তৃণমূল । তবে প্রশান্ত কিশোরের কৌশলে কী বাজিমাত করতে পারবেন মমতা ? ২০২১ সালে যদি ক্ষমতাকে ধরে রাখতে পারেন মমতা তাহলেই সব কর্মসূচিই সার্থক বলে ধরা হবে । না হলে সবই ফাঁকা ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment