অন্যান্য 

সাংবাদিক রাবীশ কুমার আমাদের গর্ব , আমাদের অহংকার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সেখ ইবাদুল ইসলাম : রাবীশ কুমার নামটা মনে আসলে চোখের  সামনে ভেসে ওঠে শান্ত-নির্ভীক এক সাংবাদিকের ছবি । এনডিটিভি-র প্রাইম টাইমে খুব আস্তে আস্তে কথা বলেন , কিন্ত কথাগুলির মধ্যে যে তির্যক ব্যঙ্গ থাকে শাসক দলের বিরুদ্ধে তা যারা শুনেছেন তারই একমাত্র উপলদ্ধি করেছেন । কারও পক্ষে নয় , মানুষের পক্ষে, বিশেষ কোনো রাজনৈতিক দলের পক্ষে নয়, গণতন্ত্রের পক্ষে সওয়াল করেছেন রাবীশ কুমার । দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের এই ছাত্রটি বরাবরই ভারতীয় সংস্কৃতির চিরন্তন ঐতিহ্যকে তুলে ধরেছেন । গোদী মিডিয়া নয় , গোদীর বিরুদ্ধে , ক্ষমতার বিরুদ্ধে মাথা উচুঁ করে নিজের বিবেককে  বন্ধক দিয়ে নয় বরং সাংবাদিকতার নীতিকে যথাযথভাবে কাজে লাগিয়েছেন রাবীশ কুমার।

সমগ্র ভারতের সাংবাদিকতা যখন বিশেষ একটি রাজনৈতিক দলের তল্পিবাহকে পরিণত হয়েছে ঠিক তখনই সমস্ত প্রলোভনকে দূরে সরিয়ে রেখে নিজেকে সত্যের কাছে বিলিয়ে দিয়েছেন রাবীশ কুমার। রাবীশ কুমার সাংবাদিকতায় এশিয়া মহাদেশের নোবেল পুরস্কার বলে খ্যাত র‌্যামেন ম্যাগসাইসাই ২০১৯  পেয়েছেন । পুরস্কার দেওয়ার কারণ হিসাবে সংস্থা বলেছে , প্রাইম টাইমে রাবীশ কুমার বরাবর সেইসব মানুষদের কথা তুলে ধরেছেন যা প্রতিমুহূর্তে বিপর্যস্ত করেছে জাতীয় জীবনকে । যাঁদের হয়ে মুখ খোলেনি কেউ , রাবীশ গর্জে উঠেছেন তাঁদের হয়ে ।

সংস্থার পক্ষ থেকে আরও বলা হয়েছে , যখনই কোনো সাংবাদিক সাধারনের মুখের ভাষা হয়ে ওঠেন তখনই তিনি প্রকৃত সাংবাদিক ।রাবীশ বরাবর তাঁর নিউজ রুমকে জনতা জনার্দনের নিউজ রুম বলে পরিচয় দিয়েছেন সবার কাছে । নিক্তি মেপে তুল্যমূল্য বিচার করেছেন ভালো-মন্দের। কখনও কারোর দিকে বা কারোর পক্ষ নিয়ে একতরফা কথা বলেননি । নিরপেক্ষ থেকে , নির্ভীকভাবে ঘটনা বা খবরের বিশ্লেষণ করে গেছেন ।

র‌্যামেন ম্যাগসাইসাই পুরস্কার কমিটির রাবীশ কুমার সম্পর্কে এই উপলদ্ধি এটাই প্রমাণ করছে , ভারতীয় সাংবাদিকতায় দিন দিন জনতার কথা কমে গেছে । আজকের সাংবাদিকতার মধ্যে ফেক নিউজের গুরুত্ব বেড়েছে । সম্প্রীতি রক্ষা নয় , সম্প্রীতি ভাঙার চেষ্টা চলছে । হলুদ সাংবাদিকতায় ছড়াছড়ি । শাসকের তোষক হয়ে বিরাজ করছেন সাংবাদিকদের একটাংশ । হাতে গোনা কয়েকজন রাবীশ কুমার থাকলেও তাঁদেরকে অবজ্ঞার চোখে দেখা হয় । তাঁদের সাংবাদিকতার নিষ্ঠাকে ব্যঙ্গ করে গোদী মিডিয়ার সাংবাদিকরা । রাবীশ কুমারের এই সম্মান শুধু তাঁর নিজের প্রাপ্তি নয় । আমাদের দেশের যেসব সাংবাদিক জীবনকে বাজি রেখে , সততার সঙ্গে মানুষের কথা বলে চলেছেন তাদের সকলেরই সম্মানপ্রাপ্তি ঘটেছে । রাবীশ কুমার সততার সঙ্গে সাংবাদিকতা করে প্রমাণ করেছেন শাসক দল তাঁর দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন তুলতেন পারেন কিন্ত বিশ্বের উদারবাদী মানুষেরা যাঁরা যোগ্য সম্মান দিতে জানেন তারা অবশ্যই সম্মানিত করবেন।

রাবীশ কুমারের এই সম্মান থেকে শাসক দল বিজেপিকে শিক্ষা নিতে হবে । যে সাংবাদিক সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে থাকেন তাকে যথাযথ সম্মান দেওয়া শাসকের কর্তব্য । গনতন্ত্রের পক্ষে রাবীশ কুমারের এই স্বীকৃতি গুরুত্বপূর্ণ । কারণ তিনি তাঁর দীর্ঘ সাংবাদিকতা জীবনে গণতন্ত্রের পক্ষেই সওয়াল করেছেন । এ থেকে প্রমাণিত রাবীশ কুমার যা এতদিন ধরে বলেছেন তা উদারবাদীদের প্রত্যেকের মত । তাই রাবীশ কুমার আমাদের দেশের সন্তান হওয়ার কারণে আমরা গর্বিত, তিনি আমাদের অহংকার । হারিয়ে যাওয়া নির্ভীক সাংবাদিকতার মধ্যে তিনি জীবন্ত কিংবদন্তী হয়ে আমাদের মধ্যে বিরাজ করছেন । আগামী প্রজন্মের সাংবাদিকরা যদি রাবীশ কুমারকে অনুসরণ করেন তাহলে দেশ থেকে সব বৈরতার অবসান ঘটবে । সাংবাদিকতা আবার তার স্বর্ণযুগ ফিরে পাবে ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment