কলকাতা 

ডিএ নিয়ে স্যাটের রায় আগামী কাল কেন্দ্রীয় হারে কী ডিএ পেতে চলেছে রাজ্য সরকারের কর্মীরা ?

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : প্রায় আড়াই বছর ধরে মামলা চলছে । সরকারি কর্মচারীদের ডিএ অধিকার এই রায় কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিসন বেঞ্চ দিয়েছে । তারপর ডিএ কেন্দ্রীয় হারে দেওয়া হবে না , রাজ্য তার নিজের মত করে দেবে তা নিয়েই আগামী কাল রায় দিতে চলেছে রাজ্য প্রশাসনিক ট্রাইবুন্যাল ( স্যাট ) ।

এই রায়ে স্পষ্ট হয়ে যাবে কেন্দ্রীয় সরকার যেমন তার কর্মীদের জন্য বছরে দুবার ডিএ ঘোষণা করে, রাজ্যও তেমনটাই করতে বাধ্য কি না তা নির্ধারিত হবে ।রাজ্য সরকারি কর্মীরা অধীর আগ্রহে তাকিয়ে রয়েছেন রায়ের দিকে।

২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতেই ডিএ সংক্রান্ত দাবি নিয়ে স্যাটের দ্বারস্থ হয়েছিল কনফেডারেশন। কিন্তু স্যাট সে সময় মামলাটি শুনতেই চায়নি। শুরুতেই মামলাটি খারিজ করে দেয়। স্যাটে প্রত্যাখ্যাত হয়ে ২০১৭ সালেই কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয় কর্মী সংগঠনটি। ২০১৮ সালে হাইকোর্ট জানায় যে, ডিএ হল কর্মীদের অধিকার। রাজ্য সরকারের তরফে তার আগে হাইকোর্টকে বলা হয়েছিল, ডিএ কোনও অধিকার নয়, ডিএ সরকারের ইচ্ছাধীন। কিন্তু হাইকোর্ট স্পষ্ট জানায়, ডিএ কোনও দয়ার দান নয়, ন্যায্য অধিকার। তবে বছরে বার ডিএ দেওয়া হবে, কী হারে দেওয়া হবে, তা নির্ধারণের ভার ফের স্যাটের হাতেই ছেড়ে দেয় কলকাতা হাইকোর্ট।

উচ্চ আদালতের নির্দেশ পেয়ে ফের বিষয়টি নিয়ে শুনানি শুরু করে স্যাট। কিন্তু মামলা চলাকালীনই রাজ্য সরকার ফের কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়। হাইকোর্টকে তার রায় পুনর্বিবেচনার আর্জি জানানো হয় সরকারের তরফে। হাইকোর্ট অবশ্য আগের রায় বদলায়নি। ডিএ যে কর্মীদের অধিকার, সেই পর্যবেক্ষণ থেকে পিছিয়ে আসতেও বিচারপতিরা রাজি হননি। ফলে ফের স্যাটেই ফেরে মামলা। সে মামলার শুনানি শেষ হয়েছিল আগেই। আগামী কাল রায় ঘোষিত হতে চলেছে। বছরে বার ডিএ ঘোষিত হওয়া উচিত এবং কী হারে ঘোষিত হওয়া উচিত, সে বিষয়ে স্যাট স্পষ্ট নির্দেশ দিয়ে দেবে বলেই কর্মী সংগঠনগুলির আশা।

কনফেডারেশনের তরফে সুবীর সাহা বলেন, ‘‘ডিএ যে সরকারের দয়ার দান নয়, তা যে আমাদের ন্যায্য অধিকার, সে কথা হাইকোর্ট তো আগেই জানিয়েছে। সুতরাং আমরা চাই, স্যাট বার জানিয়ে দিক, কেন্দ্র যেমন বছরে দুবার কর্মীদের জন্য ডিএ ঘোষণা করে, রাজ্যও সে ভাবেই করুক এবং মূল্যবৃদ্ধির যে কেন্দ্রীয় সূচক, তার ভিত্তিতেই ডিএ পরিমাণ নির্ধারণ করা হোক।’’

বিজেপি প্রভাবিত কর্মচারী পরিষদের আহ্বায়ক দেবাশিস শীলের কথায়, ‘‘কনফেডারেশন যা চাইছে, আমরাও সেটাই চাই। বছরে দুবার ডিএ ঘোষণা করাটাই নিয়ম। রাজ্য সরকারকে সেই নির্দেশ স্পষ্ট ভাবে দিয়ে দিক স্যাট, আমরা এটাই চাই। স্যাট সেই নির্দেশই দেবে বলে আমরা আশাবাদী।

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment