কলকাতা 

চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্সির সর্বভারতীয় পরীক্ষার খাতার খোঁজ পুলিশ পেল পরীক্ষক নন এমন ব্যক্তির কাছে , গ্রেফতার দুই ; তদন্তে কলকাতা পুলিশ

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : পরীক্ষকই নন। পরীক্ষার সঙ্গে কোনো ভাবে যুক্তও নন । তবু ওদের কাছে পাওয়া গেল চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্সির সর্বভারতীয় পরীক্ষার প্রায় সাড়ে পাঁচশো খাতা!

কলকাতা পুলিশ সূত্রে খবর, চাটার্ড অ্যাকাউন্টেন্সি পরীক্ষা ঘিরে বেআইনি কার্যকলাপ চলছেগোপন সূত্রে এমন খবর পেয়ে, বুধবার রাতে বাগবাজারের একটি বাড়িতে হানা দেয় শ্যামপুকুর থানা। রাধামাধব গোস্বামী লেনের ওই বাড়িতে হানা দিয়ে পুলিশ ২৫০টি চাটার্ড অ্যাকাউন্টেন্সি পরীক্ষার খাতা উদ্ধার করে। পুলিশ সূত্রে খবর, গত জুন মাসের তৃতীয় সপ্তাহে ওই পরীক্ষাটি হয়েছিল। এই পরীক্ষাটি নেয় দ্য ইনস্টিটিউট অব চাটার্ড অ্যাকাউন্টান্স অব ইন্ডিয়া। তদন্তকারীদের দাবি, বাড়ির মালিক পবিত্র রায়কে জেরা করলে তিনি স্বীকার করেন যে তিনি দ্য ইনস্টিটিউট অব চাটার্ড অ্যাকাউন্টান্স অব ইন্ডিয়ার অনুমোদিত পরীক্ষক নন।

তাহলে তাঁর কাছে কী ভাবে এল খাতা? পুলিশের দাবি, পবিত্রকে জেরা করে জানা যায়, তাঁকে ওই খাতা দেখতে দিয়েছিলেন নরেন্দ্রপুরের সুরজিৎ দত্ত নামে এক ব্যক্তি। এর পরই পুলিশ সুরজিতের বাড়িতে হানা দেয়। সেখানে তল্লাশি চালিয়ে হদিশ মেলে আরও ৩০০টি খাতার।  পুলিশের দাবি, সুরজিৎও স্বীকার করেন যে তিনি অনুমোদিত পরীক্ষক নন। তা হলে তাঁর কাছেই বা ওই খাতা এল কী করে?

কলকাতা পুলিশ ইতিমধ্যেই দুজনকেই প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার করেছে। তাঁদের আদালতে পেশ করে পরবর্তী তদন্তের জন্য নিজেদের হেফাজতে চাইবে পুলিশ। তদন্তকারীদের ইঙ্গিত, পরীক্ষা ঘিরে একটি চক্র কাজ করছে বলে জানতে পেরেছেন তাঁরা। ওই চক্রটি ঘুর পথে মোটা টাকার বিনিময়ে অকৃতকার্য পরীক্ষার্থীদেরও পাশ করিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করছে। পুলিশ সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই তদন্তকারীরা দ্য ইনস্টিটিউট অব চাটার্ড অ্যাকাউন্টান্স অব ইন্ডিয়ার পদাধিকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। তাঁরা এখনও কোনও অভিযোগ দায়ের করেননি। তবে প্রয়োজনে তাঁদের ভূমিকাও খতিয়ে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন তদন্তকারীরা। ( সৌজন্যে আনন্দবাজার )

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment