কলকাতা 

মন্ত্রী-বিধায়কদের পর রাজ্যের পঞ্চায়েত জনপ্রতিনিধিদেরও সাম্মানিক বাড়ানো হল , শিক্ষকরা নয় দিন ধরে অনশন করলেও বেতন বাড়ানোর কোন সংকেত নেই নবান্নের

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : মন্ত্রী-বিধায়কদের ভাতা এক ধাক্কায় অনেকটা বাড়িয়ে ছিল মমতা সরকার । এবার রাজ্যের ত্রিস্তর পঞ্চায়েতে সদস্যদের সাম্মানিক বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য সরকার।

সোমবার  নবান্নের সভাঘরে জেলা পরিষদের প্রায় ৮০০ সদস্যকে নিয়ে  বৈঠকে করেন মুখ্যমন্ত্রী। এই বৈঠকের পরেই মুখ্যমন্ত্রী ভাতা বাড়ানোর সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেন ।মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, পঞ্চায়েত সদস্যদের এই সাম্মানিক বৃদ্ধিতে সরকারের প্রায় ২২০ কোটি টাকা খরচ হবে ।

মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, গ্রামসভা, পঞ্চায়েত সমিতি কিংবা জেলা পরিষদ, সদস্যদের কাজ করতে হয় সারাক্ষণ। সেই তুলনায় তাঁরা হাতে কম টাকা পান।  তাঁর সরকারই কিছুটা করে সাম্মানিক বাড়ায়। এবার আরও কিছুটা বাড়ানো হল।

জেলাপরিষদের সভাধিপতিরা ৬,৬০০ টাকা করে পেতেন। সেখানে তা বাড়িয়ে ৯ হাজার টাকা করা হয়ছে। সহ সভাধিপতি পেতেন ৫ হাজার টাকা। সেটা বাড়িয়ে ৮ হাজার টাকা করা হয়েছে। কর্মাধ্যক্ষদের সাম্মানিক ৪ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৭ হাজার টাকা করা হয়েছে। আর সাধারণ সদস্য যাঁরা দেড় হাজার টাকা করে পেতেন, তা বাড়িয়ে ৫ হাজার টাকা করা হয়েছে।

পঞ্চায়েত সমিতিতে যাঁরা সাড়ে ৩ হাজার টাকা পেতেন, তাঁদের ছয় হাজার টাকা করা হয়েছে। সহ সভাপতি, যাঁরা পেতেন ৩ হাজার টাকা, তা বাড়িয়ে ৫,৫০০ টাকা করা হয়েছে। কর্মাধ্যক্ষদের সাম্মানিক আড়াই হাজার থেকে বাড়িয়ে পাঁচ হাজার করা হয়েছে। সাধারণ সদস্য যাঁরা দেড় হাজার টাকা করে পেতেন, তাঁদের এবার থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা দেওয়া হবে।

গ্রাম প্রধানরা ৩ হাজার করে পেতেন, তা বাড়িয়ে ৫ হাজার করা হয়েছে। উপপ্রধানরা ২ হাজার টাকা করে পেতেন, তা বাড়িয়ে ৪ হাজার টাকা করা হয়েছে। সঞ্চালকরা পেতেন ১৮০০ টাকা, তা বাড়িয়ে ৩৮০০ টাকা করা হয়েছে। গ্রাম পঞ্চায়েতের সাধারণ সদস্যরা ১৫০০ টাকা করে পেতেন, তাঁদেরটা বাড়িয়ে ৩ হাজার টাকা করা হয়েছে।

এদিকে প্রাথমিক শিক্ষকরা পিআরটি স্কেলের দাবিতে অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন । কিন্ত নয় দিন অনশন করলেও নবান্ন থেকে তাদের বেতন বাড়ানো বা বদলীর আদেশ প্রত্যাহার নিয়ে কোনো সংকেত নেই বলে বিশেষ সূত্রে জানা গেছে ।

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment