আন্তর্জাতিক 

ভারত এবং আন্তর্জাতিক মহলের প্রবল চাপের মুখে হাফিজ সইদকে গ্রেফতার করল পাক প্রশাসন

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : ভারত এবং আন্তর্জাতিক মহলের প্রবল চাপের মুখে অবশেষে জামাত-উদ-দাওয়া প্রধান হাফিজ সইদকে গ্রেফতার করল পাক প্রশাসন। গ্রেফতারের পরই তাঁকে গোপন জায়গায় রাখা হয়েছে। পাকিস্তানেরএকাধিক সংবাদ মাধ্যমসূত্রে খবর, বুধবার লাহৌর থেকে গুজরানওয়ালা যাওয়ার পথে পাক-পঞ্জাব প্রদেশের সন্ত্রাস দমন শাখার হাতে গ্রেফতার হয় ২৬/১১ মুম্বই হামলার মাস্টারমাইন্ড হাফিজ। সন্ত্রাসে অর্থ যোগানোর অভিযোগে দায়ের হওয়া একটি এফআইআর-এর ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তাকে বিচারবিভাগীয় হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত। হাফিজের গ্রেফতারিতে স্বস্তির হাওয়া নয়াদিল্লিতেও। পাশাপাশি এই ঘটনাকে পরোক্ষে ভারতের সাফল্য হিসেবেও দেখছে কূটনৈতিক শিবির।

সংবাদ মাধ্যম ‘দ্য ডন’-এর খবর অনুযায়ী, সন্ত্রাস সংক্রান্ত একটি মামলায় গুজরানওয়ালা আদালতে জামিনের জন্য যাচ্ছিলেন হাফিজ সইদ। গোপন সূত্রে আগেই সেই খবর পেয়েছিলেন সন্ত্রাসদমন শাখার গোয়েন্দারা। মাঝপথেই তাকে গ্রেফতার করে নিজেদের হেফাজতে নেন তাঁরা। তার পর আদালতে পেশ করা হলে বিচারক তাঁকে বিচারবিভাগীয় হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন।

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসে মদত দেওয়ার অভিযোগ নতুন নয়। ভারত-সহ রাষ্ট্রপুঞ্জের অধিকাংশ সদস্য এ নিয়ে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জনমত তৈরির চেষ্টা করেছে। রাষ্ট্রপুঞ্জও একাধিক বার ইসলামবাদকে সতর্ক করেছে, হুঁশিয়ারি দিয়েছে। কিন্তু তাতেও কার্যত কোনও কাজ না হওয়ায় সম্প্রতি চরম হুঁশিয়ারি দেয় রাষ্ট্রপুঞ্জের ফাইনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স (এফএটিএফ)। জঙ্গিদের অর্থ যোগানের উপর কড়া নজরদারি এবং সেই যোগানের পাইপলাইন বন্ধ করার ক্ষেত্রে নীতি নির্ধারক সংস্থা এই এফএটিএফ।

আন্তর্জাতিক মহলের এই প্রবল চাপের মুখেই এ মাসের গোড়ায় ৩ জুলাই হাফিজ সইদ-সহ ১৩ শীর্ষ নেতার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করে পাক প্রশাসন। জঙ্গিদের অর্থ যোগান দেওয়া, টাকা পাচার, জঙ্গি কার্যকলাপের মতো ধারায় ২০টিরও বেশি মামলা দায়ের হয়। তারই একটি মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে হাফিজকে।

 

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment