কলকাতা 

‘‘তৃণমূল দলের এত দৈন্যদশা হয়েছে যে, বেচে দিতে হয়েছে প্রশান্ত কিশোর নামে এক বাণিজ্যিক সংস্থার কাছে’’ মুকুলের এই কটাক্ষের নেপথ্যে কারণ জানতে চান ? ক্লিক করুন

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : প্রশান্ত কিশোরকে তৃণমূল কংগ্রেস তাদের নির্বাচনী কৌশল ঠিক করার দায়িত্ব দিয়েছে । তিনি ইতিমধ্যে শাসক দলের জেলা সভাপতিদের নিয়ে বৈঠকও করেছেন । আর একে কটাক্ষ করেছেন বিজেপি নেতা মুকুল রায় । তিনি সোংবাদিকদের কাছে জানতে চান তৃণমুল দলের সভাপতি নাম কী ? আবার তিনি নিজে্ই এর উত্তর দিয়ে বলেন প্রশান্ত কিশোর হলেন তৃণমুল দলের সভাপতি । আর সভাপতি না হলে কীভাবে তিনি জেরা সভাপতিদের সঙ্গে বৈঠক করেন । মুকুল বলেছেন, ‘‘দলের জেলা সভাপতিদের নিয়ে বৈঠক সাধারণত দলের সভাপতি বা সম্পাদক বা নির্দিষ্ট পদাধিকারীরা করেন। শুনেছি ওকে (প্রশান্ত কিশোর) সভাপতি হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছে। জেলা সভাপতিদের সঙ্গে বৈঠক করছেন (পড়ুন, প্রশান্ত কিশোর), অথচ দলের সভাপতি, জেনারেল সেক্রাটেরারি নন উনি। সভাপতি মমতাদেবী বলছেন পারছি না, তাই ওঁর জায়গায় স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন প্রশান্ত কিশোর। দলের এত দৈন্যদশা হয়েছে যে, বেচে দিতে হয়েছে প্রশান্ত কিশোর নামে এক বাণিজ্যিক সংস্থার কাছে’’।

এরপরই মুকুলের কটাক্ষ, ‘‘উপদেষ্টা না কি পদাধিকারী? বিনা পারিশ্রমিকে করছেন? না কি পারিশ্রমিক নিচ্ছেন? কর্পোরেট হাউস হয়ে গেছে…তৃণমূল দলটা এখন একটা কোম্পানি’’।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহেই বিধায়কদের নিয়ে বৈঠক করেছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। সেই বৈঠকের আগে তৃণমূল ভবনে পিকের সঙ্গে একান্তে কথা বলেন মমতা ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। পিকের পরামর্শ মেনেই সেদিনের বৈঠকে বিধায়কদের একগুচ্ছ নির্দেশিকা দেন দলনেত্রী, এমনটাই খবর। এর ক’দিন বাদেই কালীঘাটে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে বিশেষ বৈঠকে বসেন প্রশান্ত কিশোর। সেই বৈঠকে ছিলেন তৃণমূলের জেলা সভাপতিরা। মমতা ছাড়াই সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কালীঘাটের বাড়িতে বৈঠক থেকে তৃণমূলের জেলা সভাপতিদের একগুচ্ছ পরামর্শ দেন নির্বাচনী স্ট্র্যাটেজিস্ট। আর জেলা সভাপতিদের সঙ্গে প্রশান্ত কিশোরের এই বৈঠককেই সমালোচনা করেছেন মুকুল রায় ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment