জেলা 

কলকাতার পার্ক সার্কাসের পর মুর্শিদাবদের এক মাদ্রাসা ছাত্রকে জোর করে জয় শ্রীরাম বলানোর চেষ্টা প্রতিবাদে দুঘন্টা ৩৪ নং জাতীয় সড়ক অবরোধ

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : গতকালই বহুল প্রচারিত বাংলা দৈনিকে সাক্ষাৎকার দিয়ে নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. অমর্ত্য সেন বলেছিলেন , জয় শ্রীরাম ধ্বনি দিয়ে বাংলাকে অশান্ত করতে চাইছে কিছু মানুষ এদের বিরুদ্ধে সোচ্চার প্রতিবাদ দরকার। অমর্ত্য সেনের কথার বাস্তব প্রতিধ্বনি দেখা দিল রবিবার সকালে । দেশের সবচেয়ে জনবহুল মুর্শিদাবাদ জেলাতেই এক মাদ্রাসার ছাত্রকে জোর করে জয় শ্রীরাম বলানোর চেষ্টা করে গতকাল ভোলেবাবার দল । তা ‍নিয়ে সোচ্চার প্রতিবাদের উত্তাল হয়ে মুর্শিদাবাদ । পুলিশ-প্রশাসন দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ায় বড় ধরনের কোনো অশান্তি হয়নি বলে সংবাদ পাওয়া গেছে । তবে এ নিয়ে সোস্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক প্রচার শুরু হয়েছে ।

ওয়াকিবহাল মহল বলছে , মুর্শিদাবাদের মত মুসলিম প্রধান জেলায় এই ধরনের কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে ভেবে চিন্তে । হিন্দু মৌলবাদীরা মনে করছেন এর ফলে অশান্তি বাঁধানো সহজ হবে । ঘটনার বিবরণে  জানা গেছে, রবিবার মুর্শিদবাদের সাগরদিঘী থানার কুমারসনডা মাদ্রাসার এক ছাত্র রাজিবুল আলম(১১) বাড়ি থেকে মাদ্রাসা যাচ্ছিলেন। সেসময় ৩৪ নং জাতীয় সড়ক ধরে তারকেশ্বরে মন্দিরে জল ঢালার জন্য বেশ কয়েকটি বাইকে ভোলেবাবার ভক্ত যাচ্ছিল বহরমপুরের দিকে। হঠাৎ তারা
জনসি মোড় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের উপর বাইক থামিয়ে ওই মাদ্রাসা ছাত্রকে জয়শ্রীরাম বলতে জোর করে। ছাত্রটি জয়শ্রীরাম না বলায় ছাত্রটিকে বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। গুরুতর জখম অবস্থায় বর্তমানে সে জঙ্গিপুর মহুকুমা হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

এদিকে রাস্তার উপর এগারো বছরের ছাত্রটিকে মারতে দেখে এলাকা বাসী ছুটে আসতেই পালানোর চেষ্টা করে ভোলেবাবার ভক্তরা। কিন্তু জনতা হাতেনাতে ধরে তাদের চারজনকে পুলিশের হাতে সোপর্দ করলেও দুজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এরপরেই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে শুরু হয় বিক্ষোভ। ৩৪ নম্বর অবরুদ্ধ করে দফায় দফায় বিক্ষোভে সামিল হন এলাকাবাসীরা। ঘন্টা দুয়েকের যানজট এ কার্যত অবরুদ্ধ হয়ে যায় জাতীয় সড়ক। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন জঙ্গিপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম এন ভুটিয়া, এসডিপিও প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, সিআই উদয় শংকর মন্ডল।

এলাকার বাসিন্দাদের দাবি অবিলম্বে দোষীদের কড়া শাস্তি দিতে হবে।  এই ধরনের ঘটান আর যাতে না ঘটে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে পুলিশ প্রশাসনকে । জঙ্গিপুরের এসডিপিও প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক। চারজন অপরাধীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গতমাসে পার্কসার্কাস ষ্টেশন সংলগ্ন এলাকায় এক মাদ্রাসার শিক্ষককে জোর করে জয় শ্রীরাম বলানোর চেষ্টা করা হয় । সে বলতে অস্বীকার করায় তাকে মারধোর করে পার্ক সার্কাস ষ্টেশনে ঠেলে ফেলা দেওয়া হয় বলে অভিযোগ । এই ঘটনায় পুলিশ কড়া ব্যবস্থা নেয় এবং চারজনকে গ্রেফতার করে । সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হল ঘটনাগুলি ঘটানো হচ্ছে মুসলিম প্রধান এলাকায় । এর নেপথ্যে গভীর ষড়যন্ত্র আছে বলে ওয়াকিবহাল  মহল মনে করছে ।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment