কলকাতা 

বাইক দূর্ঘটনায় হবু বরের মৃত্যু ,শোকে আত্মহত্যা করল তরুণী

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : ঈদ-উল-আযহার পর বিয়ে হওয়ার কথা ছিল জিনাত ও আলি আকবরের । কিন্ত মঙ্গলবার বাইক দূর্ঘটনায় মৃত্যু হয় আলি আকবরের । আর এই মৃত্যুর খবর পেয়ে কয়েক ঘন্টার মধ্যেই আত্মহত্যা করল জিনাত । কলকাতার একবালপুর এলাকার ঘটনা। আত্মহত্যা করার কয়েক মিনিট বন্ধুদের হোয়াটসঅ্যাপ করে জিনাত জানিয়ে দেয় ‘ গুড বাই ‘

ঘটনাটি ঘটেছে কলকাতার একবালপুরে। বছর কুড়ির জিনাতের বাড়ি একবালপুর থানার ভূকৈলাশ রোডে। ১১ বছরের ভাইয়ের সঙ্গে একই ঘরে থাকতেন জিনাত। বুধবার সকালে ভাই ঘুম থেকে উঠে দেখতে পায়, বিছানার উপর সিলিং পাখা থেকে দিদির প্রাণহীন দেহটা ঝুলছে। নিজেরই দোপাট্টার ফাঁস গলায়।

ছেলের চিৎকারে পাশের ঘর থেকে আসেন জিনাতের মা। খবর পেয়ে আসেন এলাকার মানুষ, প্রতিবেশীরাও। খবর যায় একবালপুর থানায়। পুলিশ এসে দেহ নামিয়ে ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যায় এসএসকেএম হাসপাতালে।

তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে আলি আকবরের কথা। গত বছর দুয়েক ধরে জিনাত এবং আলির মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক।জিনাতের বন্ধুদের কাছ থেকে পুলিশ জানতে পেরেছে, তাঁদের সঙ্গে বেশ কয়েক বার আলি এবং জিনাত দেখা করেছেন। ফোনে, হোয়াটস্‌অ্যাপে নিয়মিত কথা বার্তা হত জিনাত ও আলির।

পুলিশ সূত্রে খবর, আলির মৃত্যুর খবর জানার পরই শাহিন নামে এক বান্ধবীকে হোয়াটস্অ্যাপ করেন জিনাত। তাঁকে তিনি লেখেন, ‘‘রাহুলের মৃত্যুর পর আমার বেঁচে থাকার কী মানে? আমিও মরব।” স্থানীয় সূত্রে খবর, বন্ধুরা তাঁকে বোঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। অন্য এক বান্ধবীকে রাত ৩টে ৩৯ এবং ৩টে ৪০-এ পর পর দু’টি মেসেজ করেন জিনাত। তাতে লেখা— ‘গুড বাই।’

পুলিশ যখন সমগ্র ঘটনাটি তদন্ত শুরু করেছেন ঠিক তখনই এসএসকেএমে ময়না তদন্তে জন্য পাশাপাশি রাখা হয়েছে জিনাত ও আলি আকবরের লাশ ।

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment