দেশ 

কর্ণাটকে আড়াই দিনের মাথায় পতন ঘটল বিজেপি সরকারের, আস্থা ভোটে না গিয়ে ইস্তফা ইয়েদুরাপ্পার

শেয়ার করুন
  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব নিউজ ডেস্কঃ কর্নাটকে সকাল থেকে শুরু হওয়া টানটান উত্তেজনার অবসান ঘটলো আজ বিকেল চারটেয়। শেষ পর্যন্ত আড়াই দিনের মাথাতেই পতন ঘটল বিজেপি সরকারের। আস্থা ভোটের মাধ্যমে শক্তি পরীক্ষায় না গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিলেন বিএস ইয়েদুরাপ্পা। আজ বিধান সৌধে আবেগঘন ভাষণের পর রাজভবনে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দেন তিনি। সেইসঙ্গে হুঁশিয়ারি দিয়ে  ইয়েদুরাপ্পা বলেন, লোকসভা নির্বাচনে কর্ণাটকের ২৮ টি আসনেই জয়ী হবেন বিজেপি প্রার্থীরা।

সূত্রে খবর, কর্নাটকে প্রয়োজনীয় ম্যাজিক সংখ্যা জোগাড় করতে পারেনি বিজেপি। তাই আস্থাভোটে গিয়ে মুখ পোড়াতে নারাজ মোদি- অমিত শাহরা। তাঁরা মনে করছেন অনৈতিকতার আশ্রয় নেওয়ার চেয়ে সসম্মানে পরাজয়ই শ্রেয়। বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের এই বার্তাই পৌঁছে গিয়েছ কর্নাটকে।

Advertisement

ইস্তফা দেওয়ার পর ইয়েদুরাপ্পা বলেন, আমি দুবছর ধরে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে মানুষের দুর্দশা দেখেছি। আমরা চেয়েছিলাম মানুষকে সেই সব দুর্দশা থেকে মুক্তি দিতে। জনাদেশও কংগ্রেস-জেডি (এস) এর পক্ষে ছিল না। বিজেপির পক্ষেই ছিল। মানুষ আমাদের ১০৪ টি আসনে জয়লাভ করিয়েছে। তবে ভোটাররা ১১৩ টি আসনে জয়ী করলে এই রাজ্যকে স্বর্গে পরিণত করতাম।

প্রসঙ্গত, কর্ণাটক বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল অনুযায়ী কোন দলই ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছাতে পারেনি। তবে রাজ্যপাল বাজু ভাই বালার নির্দেশে ওই রাজ্যে একক বৃহত্তম দল হিসেবে সরকার গড়ে বিজেপি। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে আটটায় মুখ্যমন্ত্রীর পদে শপথ নিয়েছিলেন বিএস ইয়েদুরাপ্পা। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী আজ বিকেল চারটেয় ইয়েদুরাপ্পা সরকারকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করতে হত। কিন্তু আস্থা ভোটে না গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দেন ইয়েদুরাপ্পা।

 


শেয়ার করুন
  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment