কলকাতা 

এসআইও’র পৃথক আইনি লড়াইয়ে অবশেষে জট কাটলো কেন্দ্রীয় ডাক সেবক নিয়োগ পরীক্ষার

শেয়ার করুন
  • 59
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আবদুল হামিদঃ 

অবশেষে জট কাটলো কেন্দ্রীয় ডাক সেবক পদের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি সংক্রান্ত সমস্যার।
কলকাতা হাইকোর্টের অন্তর্বর্তী নির্দেশে জানানো হয়েছে, আগামী ১০ দিনের মধ্যে মাদ্রাসার দশম শ্রেণী উত্তীর্ণ সমস্ত ছাত্রছাত্রীরা পরীক্ষায় বসার জন্য আবেদন করতে পারবে। তারজন্য, সবরকম ব্যাবস্থা নিতে হবে ডাকবিভাগকে । আজ, সকাল ১১ টা থেকে শুনানি শুরু হওয়ার ঘন্টা খানেকের মধ্যেই এই নির্দেশ দেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি।
চলতি বছরের ৪ এপ্রিল মাসে নিয়োগ সংক্রান্ত এক বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল কেন্দ্রীয় ডাক বিভাগ। সেখানে আবেদনকারীদের তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয় মাদ্রাসার ছাত্রদের। কিন্তু, গত বছর ২৫ আগস্ট প্রকাশিত একই পদের জন্য বিজ্ঞপ্তিতে মাদ্রাসের ছেলেদের বাদ রাখা হয়নি। ফলে, তাঁরা পরীক্ষায় বসতে পেরেছিল। এবছর তা পরিবর্তন করা হয়েছিল। তার জেরেই বিষয়টি নিয়ে পৃথক ভাবে উচ্চ আদালতের দারস্ত হয় পশ্চিমবঙ্গ মাদ্রাসা শিক্ষা পর্ষদ ও ছাত্র সংগঠন এসআইও।
কোর্টের রায়ের পর এসআইও পশ্চিমবঙ্গের সংগঠন সম্পাদক খালিদ আলি বলেন, “হাইকোর্টের অন্তর্বর্তী নির্দেশে নিঃসন্দেহে সকলে উপকৃত হবেন। ৫৭৭৮ টি পদ সম্বলিত বিশাল কর্মক্ষেত্র থেকে মাদ্রাসা উত্তীর্ণ ছাত্রছাত্রীদের বঞ্চিত করার চক্রান্ত হয়েছিল।’ তিনি এদিন জানান,’ মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের ডাক বিভাগে নিয়োগে বঞ্চনার বিরুদ্ধে প্রথম থেকেই আইনি ভাবে লড়াই করছে এসআইও। সার্বিকভাবে পশ্চিমবঙ্গ মাদ্রাসা শিক্ষা পর্ষদ থেকে দশম উত্তীর্ণ সমস্ত ছাত্রছাত্রীরা যাতে সুযোগ পায়, সেজন্য ১ মে ১৪ জন আবেদনকারিকে নিয়ে সেন্ট্রাল অ্যাডমিনিস্টেটিভ ট্রাইব্যুনাল (ক্যাট) মামলা করা হয়। ৭ মে আবেদন কারিদের পক্ষে রায় ঘোষনা করে এবং ডাক বিভাগ কে অফলাইনে আবেদন জমা নিতে বলে ক্যাট। কিন্তু ডাকবিভাগ সেই নির্দেশকে অমান্য করে। শুধু ১৪ জন নয়, ৬১৪ টি মাদ্রাসার সকল পড়ুয়াদের জন্য ১৭ মে কলকাতা হাইকোর্টে পৃথক মামলা দায়ের করে এসআইও পশ্চিমবঙ্গের পক্ষে আইনজীবী সামিম আহমেদ, মাদ্রসা শিক্ষা পর্ষদ ও আইনজীবী কমলেশ ভট্টাচার্য। সেই মামলার পরিপেক্ষিতেই আজকে অন্তর্বর্তী নির্দেশে দেয় কলকাতা হাইকোর্ট।’


শেয়ার করুন
  • 59
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment